নিজস্ব প্রতিবেদক: মুজিববর্ষ উপলক্ষে হবিগঞ্জ জেলায় গৃহ ও ভূমিহীন ৭৮৭ পরিবার পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া ঘর। প্রতিটি ঘর এক লাখ ৭২ হাজার টাকা হিসাবে এতে সরকারের ব্যয় হবে ১৩ কোটি ৪৫ লাখ ৭৭ হাজার টাকা।

প্রথম ধাপে সাত কোটি ৭২ লাখ ৯২ হাজার টাকা ব্যয়ে নির্মিত ৪৫২টি ঘর হস্তান্তর করা হবে। এরমধ্যে আগামী ১০ জানুয়ারির মধ্যেই ২২৬টি ঘর হস্তান্তর করা হচ্ছে। প্রথম ধাপের বাকিগুলো নির্মাণকাজ চলছে, হস্তান্তর হবে শিগগিরই।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, সদর উপজেলায় ১৩৫টির মধ্যে প্রথম ধাপে ৫০টি ও দ্বিতীয় ধাপে ৮৫টি। শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় ৫৫টির মধ্যে প্রথম ধাপে ৩০টি ও দ্বিতীয় ধাপে ২৫টি। লাখাইয়ে ৭৭টির মধ্যে প্রথম ধাপে ৫২টি ও দ্বিতীয় ধাপে ২৫টি। নবীগঞ্জ উপজেলায় ১১০টির মধ্যে প্রথম ধাপে ৬০টি ও দ্বিতীয় ধাপে ৫০টি।
বানিয়াচংয়ে ১০৫টির মধ্যে প্রথম ধাপে ৫৫টি ও দ্বিতীয় ধাপে ৫০টি। আজমিরীগঞ্জ উপজেলায় ৮৮টির মধ্যে সবগুলোই এক ধাপে। চুনারুঘাটে ৮০টির মধ্যে সবগুলোই এক ধাপে। বাহুবলে ৫৭টির মধ্যে প্রথম ধাপে সাতটি ও দ্বিতীয় ধাপে ৫০টি এবং মাধবপুর উপজেলায় ৮০টির মধ্যে প্রথম ধাপে ৩০ ও দ্বিতীয় ধাপে ৫০টি।  
এ পর্যন্ত জেলার নয় উপজেলায় মোট ৪৭৯টি ঘরের নির্মাণকাজ চলছে।
.
এগুলোর মধ্যে হবিগঞ্জ সদরে ৫০টি, শায়েস্তাগঞ্জে ১৮টি, লাখাইয়ে ১৩টি, নবীগঞ্জে ৩০টি, বানিয়াচংয়ে ২০টি, আজমিরীগঞ্জে ১০টি, চুনারুঘাটে ৪৮টি, বাহুবলে ১৭টি ও মাধবপুরে ২০টিসহ মোট ২২৬টি ঘর হস্তান্তর করা হবে আগামী ১০ জানুয়ারি। বাকি ২৫৩টি ঘর নির্মাণের কাজ আগামী ১৭, ২০ ও ৩০ জানুয়ারির মধ্যেই শেষ হলে এগুলো উপকারভোগীদের হাতে হস্তান্তর করা হবে।
.
এদিকে ব্যক্তি উদ্যোগে জেলার নয় উপজেলায় আরও ২৫টি ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি চুনারুঘাট উপজেলায় নয়টি। এগুলোও প্রশাসনের উপস্থিতিতে আনুষ্ঠানিকভাবে ভূমি ও গৃহহীনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান বলেন, মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছেন। তিনি প্রকৃত ভূমি ও গৃহহীনদের মাথা গোঁজার ঠাঁই করে দিচ্ছেন। এ প্রকল্পে যেন কোনো ধরনের অনিয়ম না হয় সেজন্য আমরা নিয়মিত তদারকি করছি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

4 × five =