গাজীপুর প্রতিনিধি:

গাজীপুরে অবৈধভাবে গ্যাস সংযোগ নেওয়া ও ব্যবহারের দায়ে এক কারখানার ম্যানেজারকে কারাদণ্ড ও পাঁচ নারীসহ ১৪ জনকে অর্থদণ্ড করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এসময় একটি ওয়াশিং প্ল্যান্ট সিলগালা করে বন্ধ করে দেওয়া হয়। অভিযানকালে আদালত এক হাজার শতাধিক অবৈধ আবাসিক সংযোগ বিচ্ছিন্ন ও গ্যাস লাইন অপসারণ করে। মঙ্গলবার রাতে গাজীপুরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদুর রহমানের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালতের এই অভিযান পরিচালিত হয়।

তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড গাজীপুর আঞ্চলিক অফিসের ব্যবস্থাপক সুরুজ আলম জানান, গাজীপুরের বিভিন্ন এলাকায় অসাধু লোকজন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাসা বাড়িতে অবৈধ লাইন সংযোগ দিয়ে গ্যাস ব্যবহার করেছে। এসব অবৈধ সংযোগের সংবাদ পেয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালিত হয়।

তিনি জানান, অভিযানকালে আদালত অবৈধ গ্যাস লাইন স্থাপন করে অবৈধ গ্যাস সংযোগ প্রদান করার দায়ে গাছা থানার বোর্ডবাজারের আইইউটি রোডের কাথোরা এলাকার মেসার্স এমা ড্রাই প্রসেস নামের একটি কারখানার ম্যানেজার আনিসুর রহমানকে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। আদালত এসময় কারখানাটি সিলগালা করে বন্ধ করে দেয়। এছাড়াও অননুমোদিতভাবে মেইন লাইনে সংযোগ দিয়ে গ্যাস কমপ্রেসার ও বুস্টার দিয়ে গ্যাস টেনে নিয়ে অবৈধভাবে ব্যবহারের দায়ে শহীদ সিদ্দিক রোড এলাকায় অবস্থিত মেসার্স পারফেক্ট ওয়াশিং লিমিটেডকে ৮০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করে আদালত।

একই আদালত গাজীপুর সিটি করপোরেশনের বাসন থানার রওশন সড়ক, মোগর খাল ও শরীফপুর কোনাপাড়া এলাকার বিভিন্ন পয়েন্টে অভিযান চালিয়ে ৫ নারীসহ ১৪ জনকে মোট ৫ লাখ ৩১ হাজার টাকা জরিমানা করে।

তিনি জানান, অভিযানকালে একটি বেকারিসহ প্রায় ৭শ’ বাসা-বাড়ির ১৭শ’ অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন এবং অবৈধভাবে স্থাপিত সাড়ে ৩ কিলোমিটার পাইপ লাইনের সংযোগস্থলসহ ৩শ’ মিটার গ্যাসের পাইপ লাইনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন ও অপসারণ করা হয়। এসময় চুলাসহ বিভিন্ন ব্যাসার্ধের পাইপ, রাইজার ও অবৈধ সংযোগে ব্যবহৃত বিভিন্ন সরঞ্জামাদি জব্দ করা হয়। এসময় অভিযান পরিচালনার খবর পেয়ে অবৈধ গ্যাস ব্যবহারকারীরা পালিয়ে যায়। স্থানীয় অসাধু চক্রের সদস্যরা বিভিন্ন বাসা-বাড়ির মালিকদের কাছ থেকে কয়েক লাখ টাকা নিয়ে রাতের আঁধারে এসব অবৈধ সংযোগ প্রদান করেছে বলে জানা গেছে।

অভিযানকালে গাজীপুর তিতাস গ্যাসের (জোবিঅ-গাজীপুর) ব্যবস্থাপক প্রকৌশলী সুরুজ আলম, উপব্যবস্থাপক প্রকৌশলী এস এম আবু সুফিয়ান ও প্রকৌশলী মির্জা শাহনেওয়াজ লতিফ, উপ-সহকারী প্রকৌশলী মজিবুর রহমান ও সাবিনুর রহমান, রাজস্ব উপ-শাখার সহকারী কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক ও ইকবাল হোসেন চৌধুরীসহ টেকনিক্যালটিম এবং পুলিশ ও আনসার ব্যাটলিয়নের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

3 × two =