গাজীপুর প্রতিনিধি :

মাদকের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে গিয়ে নিহত রাসেলের (শিক্ষক) জন্য দোয়া ও মিলাদ মাহফিল করেছে তার সহপাঠীরা।

কিছু দিন আগে গাজীপুরের, শ্রীপুর থানার দক্ষিণ বারোপোতা গ্রামের স্কুল শিক্ষক মাদকদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে গিয়ে নির্মম ভাবে খুন হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে সারা দেশে এস.এস.সি ২০১০ এবং এইচ.এস.সি ২০১২ ব্যাচ (SSC 2010 AND HSC 2012 BATCH OF BANGLADESH) ফেসবুক গ্রুপের পক্ষ থেকে সহপাঠী হত্যার বিচার চেয়ে সারা দেশ ব্যাপি বিভিন্ন জেলা শহরে এবং শাহবাগ প্রেসক্লাবের সামনে মানব বন্ধন করে।

শুক্রবার ২০১০ -১২ ব্যাচ এস.এস.সি ও এইচ.এস.সি বন্ধুদের সার্বিক সহযোগিতায় ব্যাচের শিক্ষার্থী রাসেলের পরিবারের সাথে দেখা, রাসেলের কবর জিয়ারত এবং দোয়া মাহফিলের আয়োজন করেছে।

উক্ত দোয়া ও মিলাদ মাহফিলে প্রায় ২০০ জন উপস্থিত মুস্ললিদের মাঝে বিরিয়ানি বিতরণ করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, শ্রীপুর থানার এসআই রফিকুল ইসলাম, স্থানীয় জন প্রতিনিধি, সমাজের গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ, সাংবাদিক, রাসেলের নিকটাত্মীয় স্বজন রা।

ওসির বক্তব্য অনুযায়ী, পুলিশ মেইন দুই খুনিকে গ্রেফতার করেছে। তারা রাসেলের হত্যার দায়ভার স্বীকার করেছে। অন্যান্য সহযোগীদের গ্রেফতারের সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে। এবং দ্রুততম সময়ে এই মামলার সঠিক বিচার হবে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা রাসেলের পরিবারের প্রতি যেন কোন ভয় ভীতি প্রদর্শন কিংবা হুমকি ধামকি কেউ দিতে না পারে, এবং সামাজিক ভাবে কেউ যেন চাপ সৃষ্টি করতে না পারে, সেই প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এবং যে কোন প্রয়োজনে রাসেলের পরিবারের পাশে থাকবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

১০-১২ ব্যাচের উপস্হিত শিক্ষার্থীরা মসজিদের ভিতরেই সকল মুস্ললিদের সাথে উপস্থিত বক্তব্য দিয়ে গ্রামবাসীর কাছে রাসেল হত্যার বিচার চেয়েছেন এবং সামাজিক ভাবে মাদকের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহবান জানিয়েছন এবং সকল মুস্ললিরা একাত্বতা প্রকাশ করেছেন।

বন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা থেকে ১০/১২ ব্যাচের পক্ষ থেকে রাসেলের ছোট ভাইকে স্মৃতি স্বরুপ একটা ১০/১২ ব্যাচের লোগো এবং স্লোগান যুক্ত টি-শার্ট উপহার দেয়া হয়।

এছাড়াও দোয়া মাহফিল এর পাশাপাশি রাসেলের জন্যে সদকায়ে জারিয়া হিসাবে ১০/১২ ব্যাচের পক্ষ থেকে মসজিদের নতুন সাউন্ড সিস্টেম কেনার জন্যে মসজিদে অবস্থান কালিন সময়ে তাৎক্ষণিকভাবে ১৭০০ টাকা দেয়া হয়েছে। এবং পরে করে পূর্বের ফান্ড থেকে অতিরিক্ত ৩ হাজার এবং উপস্থিত বন্ধুদের কাছ থেকে আরো কিছু টাকা নিয়ে মোট ৬৭০০টাকা দেয়া হয়।

অনুষ্ঠান শেষে গাজীপুর পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার এর কাছে রাসেল হত্যার বিচার চেয়ে স্বারকলিপি প্রদান করতে গেলে তিনি ছুটির দিন থাকায় দেখা করতে পারেনি। তবে ফোনে যোগাযোগ করা হবে রবিবার তিনি স্বারকলিপি গ্রহণ করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

পাশাপাশি রাসেল হত্যার সঠিক বিচার এবং দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি চেয়ে ১০/১২ ব্যাচের বন্ধুরা সরকারের আইন প্রয়োগকারী বিভিন্ন সংস্থার কাছে স্বারকলিপি দিবেন বলে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে যেমন:
১. মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার।
২. মাননীয় মন্ত্রী, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
৩. সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
৪. মাননীয় সাংসদ সদস্য, গাজীপুর -৩ আসন।
৪. জেলা প্রশাসক, গাজীপুর।
৫. পুলিশ কমিশনার, গাজীপুর মেট্রো পলিটন।
৬. সিভিল সার্জন, গাজীপুর।

অবশেষে ১০/১২ ব্যাচের সকল শিক্ষার্থীদের একটাই চাওয়া যেন রাসেল হত্যার সঠিক বিচার হয় এবং খুনীদের যেন দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি দেয়া হয়। পাশাপাশি বাংলাদেশ সরকারের কাছে আকুল আবেদন, সর্বোচ্চ পদক্ষেপ নিয়ে যেন দেশ এবং সমাজ থেকে এই মাদকের ভয়াল গ্রাস থেকে রক্ষা করতে৷

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

seventeen − 6 =