রাকিবুল হাসান, বশেমুরবিপ্রবি সংবাদদাতা:
দেশের স্বনামধন্য লেখক, গবেষক, মুক্তিযুদ্ধের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণকারী জাতীয় অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামানের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছে গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি।
.
আজ শুক্রবার (১৫মে) বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি সহকারী অধ্যাপক ড. হাসিবুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ রকিবুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।
.
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, অধ্যাপক আনিসুজ্জামান ছিলেন বাংলাদেশের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র, আমাদের চেতনার বাতিঘর।বাংলা ভাষা,সাহিত্য, সংস্কৃতি, সমাজ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনা চর্চায় তার অবদান অনবদ্য।
.
বাংলা সাহিত্য চর্চা ও সৃষ্টির পাশাপাশি বাঙালি সমাজে রেখে গেছেন নৈতিকতা ও মূল্যবোধের এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত।
.
তিনি বাহান্নর ভাষা আন্দোলন, ঊনসত্তরের গণঅভ্যুথ্যান ও একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন।তিনি স্বাধীন বাংলাদেশের ড. কুদরত-ই-খুদা শিক্ষা কমিশনের সদস্য ছিলেন। তিনি বাংলাদেশের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান স্বাধীনতা পুরস্কার ও একুশে পদক লাভ করেন।তাছাড়া দেশে বিদেশের বহু পুরস্কারসহ ভারতের পদ্মভূষণ পুরস্কার লাভ করেন।তার মৃত্যতে আমরা হারালাম এক কৃতি শিক্ষাবিদ ও সকল গনতান্ত্রিক আন্দোলনের পুরোধা ব্যক্তিত্বকে।
.
বিজ্ঞপ্তিতে ড. আনিসুজ্জামানের মৃত্যুতে বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে গভীর শোক এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করা হয়। একই সাথে তাঁর বিদেহি আত্মার শান্তি কামনা করা হয়।
.
উল্লেখ্য, গতকাল বৃহস্পতিবার (১৪ মে) বিকাল ৫:০০ টার সময় জাতীয় অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর। মৃত্যুর পর জানা যায় তিনি করোনা পজিটিভ ছিলেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে