আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
১১৯ বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে ঠাণ্ডা দিন দেখা গিয়েছে ভারতের রাজধানী দিল্লিতে। ১৯০১ সালের পর সোমবারের দিল্লিকে, ভারতের আবহাওয়া দফতর ‘শীতলতম’ দিন হিসেবে চিহ্নিত করেছে।
আইএমডি তথা কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতরের আঞ্চলিক প্রধান এদিন পিটিআইকে বলেন, ‘আমরা দেখেছি দিল্লিতে দিনের তাপমাত্রা সাধারণ মাত্রার চেয়ে অর্ধেক থাকে। কিন্তু সোমবার সকালে অনেক বেশি পারদ নেমেছে। তাই এই দিনকে ডিসেম্বরের শীতলতম দিন হিসেবে ঘোষণা করলাম।’
তিনি বলেন, গত ১১৯ বছরের মধ্যে ডিসেম্বর মাসের হিসেব ধরলে দিল্লিতে সোমবার সকালের তাপমাত্রা সবচেয়ে বেশি নিচে নেমেছিল। দুপুর ২টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত সকালের তাপমাত্রার নিম্নগতি রেকর্ডেড হয়েছে।
পিটিআইকে ওই কর্মকর্তা বলেন, সেই মোতাবেক সফদরজঙের তাপমাত্রা ছিল ৯.৪ ডিগ্রি আর পালামের ছিলো ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এই মরশুমে দিল্লিতে রাতের দিকে পারদ সূচক টানা এক সপ্তাহ ৪ ডিগ্রির নিচে। গত সপ্তাহেই রাতের গড় তাপমাত্রা ২.৪ থেকে ২.৭ পর্যন্ত রেকর্ড করা হয়েছিল।
ঘন কুয়াশার চাদর জড়িয়ে এদিন দিল্লি ও তার পড়শি এলাকার ঘুম ভাঙে। যার জেরে বেলা বাড়ার সঙ্গে প্রভাবিত হয়েছে ট্রেন ও বিমান চলাচল। দিল্লিগামী কম-বেশি ২১টি বিমানের যাত্রাপথ ঘুরিয়ে দেয়া হয়েছে, ৬টি বিমান বাতিল করা হয়েছে আর একাধিক বিমান দেরিতে চলেছে। নয়া দিল্লিগামী রাজধানী, শতাব্দী ও দুরন্তের মতো ট্রেনগুলো দেরিতে চলএছে। শনিবার থেকেই আইএমডি দিল্লিতে অত্যাধিক শৈত্যপ্রবাহের লাল সতর্কতা জারি করে রেখেছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে