সুন্দরগঞ্জে আরো ১১ জন করোনাজয়ীকে শুভেচ্ছা ও ছাড়পত্র

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০১:৪১:৫৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ জুলাই ২০২০
  • / ১৬৫ Time View
সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি:
গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে আরো ১১ জন করোনাজয়ীকে ফুলের শুভেচ্ছা ও ছাড়পত্র দিয়েছেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। বৃহস্পতিবার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চত্বরে এ ফুলের শুভেচ্ছা ও ছাড়পত্র দেয়া হয়।
.
করোনাজয়ী এগারো ব্যক্তি হলেন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত চিকিৎসক ডাঃ রবিউল ইসলাম (২৭), তার স্ত্রী ইয়াসমিন (২৪), স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত (হারবাল সহকারি) হাবিবুর রহমান (৪৪), ফার্মাসিস্ট আব্দুর রাজ্জাক মিয়া (৩৩), তারাপুর ইউনিয়নের মৃত যোগেন্দ্রনাথ সরকারের ছেলে নারায়ণ চন্দ্র সরকার (৬০), পৌর সভার নজরুল ইসলাম (৪২) ও তার ছেলে আব্দুল মোহ্য়ামিন (১৫), সোনারায় ইউনিয়নের আঃ রশিদ মিয়া (৫০), দহবন্দ ইউনিয়নের ওসমান গণির ছেলে শাহজাহান মিঞা (৩৮), বামনডাঙ্গা ইউনিয়নের ফারুক আহম্মেদের স্ত্রী জেসমিন বেগম (২৭) ও মাহামুদ ইসলাম (৫৫)।
.
এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আশরাফুজ্জামান সরকার, থানা অফিসার ইনচার্জ আব্দুল্লাহিল জামান, স্বাস্থ্য পরিদর্শক আঃ রউফ সরকার ও ক্যাশিয়ার এরশাদুল হক লিটন প্রমূখ। এসময় ডাঃ আশরাফুজ্জামান সরকার জানান, রংপুর পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষার জন্য শুরু থেকে এখন পর্যন্ত মোট ২৬৪ জনের নমুনা পাঠানো হয়।
.
পর্যায়ক্রমে ১৮২ জনের রিপোর্ট আসলে ১৮ জনের দেহে করোনা পজিটিভ পাওয়া যায়। এরমধ্যে এক নারী মারা যান। এর আগে ৩ জনসহ মোট ১৪ জনকে ফুলের শুভেচ্ছা ও ছাড়পত্র দেয়া হলো।
.
বাকী আইসোলেসনে থাকা ৩ ব্যক্তি হলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) কাজী লুতফুল হাসান, সাবেক এমপি আলহাজ্ব ওয়াহেদুজ্জামান সরকার বাদশা ও আনছার সদস্য আনোয়ারুল ইসলাম।
Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

সুন্দরগঞ্জে আরো ১১ জন করোনাজয়ীকে শুভেচ্ছা ও ছাড়পত্র

Update Time : ০১:৪১:৫৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ জুলাই ২০২০
সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি:
গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে আরো ১১ জন করোনাজয়ীকে ফুলের শুভেচ্ছা ও ছাড়পত্র দিয়েছেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। বৃহস্পতিবার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চত্বরে এ ফুলের শুভেচ্ছা ও ছাড়পত্র দেয়া হয়।
.
করোনাজয়ী এগারো ব্যক্তি হলেন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত চিকিৎসক ডাঃ রবিউল ইসলাম (২৭), তার স্ত্রী ইয়াসমিন (২৪), স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত (হারবাল সহকারি) হাবিবুর রহমান (৪৪), ফার্মাসিস্ট আব্দুর রাজ্জাক মিয়া (৩৩), তারাপুর ইউনিয়নের মৃত যোগেন্দ্রনাথ সরকারের ছেলে নারায়ণ চন্দ্র সরকার (৬০), পৌর সভার নজরুল ইসলাম (৪২) ও তার ছেলে আব্দুল মোহ্য়ামিন (১৫), সোনারায় ইউনিয়নের আঃ রশিদ মিয়া (৫০), দহবন্দ ইউনিয়নের ওসমান গণির ছেলে শাহজাহান মিঞা (৩৮), বামনডাঙ্গা ইউনিয়নের ফারুক আহম্মেদের স্ত্রী জেসমিন বেগম (২৭) ও মাহামুদ ইসলাম (৫৫)।
.
এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আশরাফুজ্জামান সরকার, থানা অফিসার ইনচার্জ আব্দুল্লাহিল জামান, স্বাস্থ্য পরিদর্শক আঃ রউফ সরকার ও ক্যাশিয়ার এরশাদুল হক লিটন প্রমূখ। এসময় ডাঃ আশরাফুজ্জামান সরকার জানান, রংপুর পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষার জন্য শুরু থেকে এখন পর্যন্ত মোট ২৬৪ জনের নমুনা পাঠানো হয়।
.
পর্যায়ক্রমে ১৮২ জনের রিপোর্ট আসলে ১৮ জনের দেহে করোনা পজিটিভ পাওয়া যায়। এরমধ্যে এক নারী মারা যান। এর আগে ৩ জনসহ মোট ১৪ জনকে ফুলের শুভেচ্ছা ও ছাড়পত্র দেয়া হলো।
.
বাকী আইসোলেসনে থাকা ৩ ব্যক্তি হলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) কাজী লুতফুল হাসান, সাবেক এমপি আলহাজ্ব ওয়াহেদুজ্জামান সরকার বাদশা ও আনছার সদস্য আনোয়ারুল ইসলাম।