শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ নিয়ে যা বললেন মন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৪:৩২:৩৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৮ এপ্রিল ২০২৪
  • / ২৩ Time View

শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেছেন, ‘কোনো একটি বা দুইটি জেলার বা ঢাকার তাপমাত্রা বিবেচনা করে সারা দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়ার মানসিকতা পরিহার করতে হবে। কিছু হলেই স্কুল বন্ধ করে দেওয়ার এত আলোচনা কেন আসে? বাংলাদেশে কি অন্য কোনো প্রতিষ্ঠান নেই? এখন সবকিছু খোলা থাকবে আর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে, এই প্রত্যাশাটি যথাযথ নয়।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘কোনো জেলায় যদি ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপর তাপমাত্রা যায় সেখানকার আঞ্চলিক কর্মকর্তারা আলোচনা করে স্কুল বন্ধের সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন। চাইলে তারা পাঠদানের সময়ও পরিবর্তন করতে পারেন।’

রবিবার (২৮ এপ্রিল) কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা সপ্তাহের উদ্বোধন অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

তাপপ্রবাহের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাস অনুযায়ী, পাঁচটি জেলায় তাপমাত্রা ৪০ এর পর্যায়ে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা বাংলাদেশে তো নতুন নয়। সুতরাং পাঁচটি জেলায় তাপমাত্রা ৪০ এর ওপরে যাওয়ার পূর্বাভাসের ওপর ভিত্তি করে সারাদেশে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া যুক্তিযুক্ত নয়।’

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আলোচনা-সমালোচনার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এই আলোচনা-সমালোচনার ভিত্তিতে রাষ্ট্র পরিচালিত হয় না। আমাদের শিক্ষার্থীদের শিখন ফল অর্জন করার বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’

শনিবার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘একটি পরিস্থিতিতে শনিবার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ দেওয়া হয়েছিল। নতুন কারিকুলামের যে প্রক্রিয়া সেখানে পুরো বছর শনিবার বন্ধ দেওয়া উচিত কি না, সেটি নিয়ে আমাদের আলোচনা আছে। এই মুহূর্তে যেহেতু আমরা ১০ দিন পাঠদান মিস করেছি, তাই এই মুহূর্তে শনিবার স্কুল খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ নিয়ে যা বললেন মন্ত্রী

Update Time : ০৪:৩২:৩৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৮ এপ্রিল ২০২৪

শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেছেন, ‘কোনো একটি বা দুইটি জেলার বা ঢাকার তাপমাত্রা বিবেচনা করে সারা দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়ার মানসিকতা পরিহার করতে হবে। কিছু হলেই স্কুল বন্ধ করে দেওয়ার এত আলোচনা কেন আসে? বাংলাদেশে কি অন্য কোনো প্রতিষ্ঠান নেই? এখন সবকিছু খোলা থাকবে আর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে, এই প্রত্যাশাটি যথাযথ নয়।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘কোনো জেলায় যদি ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপর তাপমাত্রা যায় সেখানকার আঞ্চলিক কর্মকর্তারা আলোচনা করে স্কুল বন্ধের সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন। চাইলে তারা পাঠদানের সময়ও পরিবর্তন করতে পারেন।’

রবিবার (২৮ এপ্রিল) কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা সপ্তাহের উদ্বোধন অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

তাপপ্রবাহের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাস অনুযায়ী, পাঁচটি জেলায় তাপমাত্রা ৪০ এর পর্যায়ে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা বাংলাদেশে তো নতুন নয়। সুতরাং পাঁচটি জেলায় তাপমাত্রা ৪০ এর ওপরে যাওয়ার পূর্বাভাসের ওপর ভিত্তি করে সারাদেশে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া যুক্তিযুক্ত নয়।’

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আলোচনা-সমালোচনার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এই আলোচনা-সমালোচনার ভিত্তিতে রাষ্ট্র পরিচালিত হয় না। আমাদের শিক্ষার্থীদের শিখন ফল অর্জন করার বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’

শনিবার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘একটি পরিস্থিতিতে শনিবার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ দেওয়া হয়েছিল। নতুন কারিকুলামের যে প্রক্রিয়া সেখানে পুরো বছর শনিবার বন্ধ দেওয়া উচিত কি না, সেটি নিয়ে আমাদের আলোচনা আছে। এই মুহূর্তে যেহেতু আমরা ১০ দিন পাঠদান মিস করেছি, তাই এই মুহূর্তে শনিবার স্কুল খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’