রাণীশংকৈলে গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে প্রাণ দিলো মহেন্দ্র চালক

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৪:৩৩:১৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৯ মে ২০২৪
  • / ২২ Time View

হুমায়ুন কবির,

রাণীশংকৈল(ঠাকুরগাঁও)প্রতিনিধিঃঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈলে পারিবারিক কলহের জেরে সফিকুল ইসলাম (৩৫)নামে এক মহেন্দ্র চালক গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে মারা গেছেন। গত বুধবার ৮ মে দিবাগত রাত দেড় টায় দিনাজপুর নেয়ার পথে সফিকুলের মৃত্যু হয়। সফিকুল উপজেলা পদমপুর উত্তরগাও গ্রামের মৃত রমজান আলীর ছেলে। রাণীশংকৈল থানা অফিসার ইনচার্জ সোহেল রানা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। থানা ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে সফিকুল তার স্ত্রী রিতা আক্তারকে না জানিয়ে এক জনকে ১৯ হাজার টাকা হাওয়ালত (ধার) দেয়। এ নিয়ে তার স্ত্রী, ছেলে হৃদয়ের সাথে বাগবিতণ্ডা বাঁধে । গতকাল রাত ৯ টায় সফিকুল বাড়ির পাশে হাজ্বী মৌড় থেকে বাড়ি এসে না খেয়ে শুয়ে পড়ে। তার ছেলে ও স্ত্রী ভাত খেতে ডাকলে সে বলে আমি খাবোনা। এর পর তার অস্বাভাবিক আচরণ দেখে জিজ্ঞাসা করলে সফিকুল বলে আমি দুটি গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে ফেলেছি। খবর পেয়ে পরিবারের লোকজন সাথে সাথে তাকে রাণীশংকৈল উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল রেফার্ড করেন। দিনাজপুর নিয়ে যাওয়ার পথিমধ্যে সফিকুল মারা যায়। সকালে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।পুলিশ লাশের সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ থানায় নিয়ে আসে। রাণীশংকৈল থানা অফিসার ইনচার্জ সোহেল রানা আরো বলেন, ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। মৃতের পরিবারের পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। এ নিয়ে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা রুজু করা হয়।

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

রাণীশংকৈলে গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে প্রাণ দিলো মহেন্দ্র চালক

Update Time : ০৪:৩৩:১৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৯ মে ২০২৪

হুমায়ুন কবির,

রাণীশংকৈল(ঠাকুরগাঁও)প্রতিনিধিঃঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈলে পারিবারিক কলহের জেরে সফিকুল ইসলাম (৩৫)নামে এক মহেন্দ্র চালক গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে মারা গেছেন। গত বুধবার ৮ মে দিবাগত রাত দেড় টায় দিনাজপুর নেয়ার পথে সফিকুলের মৃত্যু হয়। সফিকুল উপজেলা পদমপুর উত্তরগাও গ্রামের মৃত রমজান আলীর ছেলে। রাণীশংকৈল থানা অফিসার ইনচার্জ সোহেল রানা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। থানা ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে সফিকুল তার স্ত্রী রিতা আক্তারকে না জানিয়ে এক জনকে ১৯ হাজার টাকা হাওয়ালত (ধার) দেয়। এ নিয়ে তার স্ত্রী, ছেলে হৃদয়ের সাথে বাগবিতণ্ডা বাঁধে । গতকাল রাত ৯ টায় সফিকুল বাড়ির পাশে হাজ্বী মৌড় থেকে বাড়ি এসে না খেয়ে শুয়ে পড়ে। তার ছেলে ও স্ত্রী ভাত খেতে ডাকলে সে বলে আমি খাবোনা। এর পর তার অস্বাভাবিক আচরণ দেখে জিজ্ঞাসা করলে সফিকুল বলে আমি দুটি গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে ফেলেছি। খবর পেয়ে পরিবারের লোকজন সাথে সাথে তাকে রাণীশংকৈল উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল রেফার্ড করেন। দিনাজপুর নিয়ে যাওয়ার পথিমধ্যে সফিকুল মারা যায়। সকালে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।পুলিশ লাশের সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ থানায় নিয়ে আসে। রাণীশংকৈল থানা অফিসার ইনচার্জ সোহেল রানা আরো বলেন, ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। মৃতের পরিবারের পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। এ নিয়ে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা রুজু করা হয়।