মিয়ানমার কথা দিলেও ৭ বছরে ফিরিয়ে নেয়নি রোহিঙ্গাদের -পররাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৮:৪১:৪৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ মে ২০২৪
  • / ১১ Time View

কক্সবাজার প্রতিনিধি :-

মিয়ানমার কথা দিয়েছিলো নাগরিকত্ব দিয়ে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিয়ে যাবে কিন্তু গত ৭ বছর চলে গেলেও তাদের ফিরিয়ে নেয়নি তারা।

রবিবার (১২ মে) বিকেল সাড়ে ৫টায় কক্সবাজারে শরণার্থী ত্রান ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কার্যালয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে যোগ দেয়ার আগে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.হাছান মাহমুদ।

এইসময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, নতুন করে পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া ১৩৮ জন বিজিপির মধ্যে একজন লেফটেন্যান্ট কর্নেল এবং দুইজন মেজরও রয়েছে। উপরন্তু এখন মিয়ানমার-আরাকান কনফ্লিক্ট আমাদের উপর ভর করেছে। মায়ানমারের সাথে আমরা আলাপ আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছি। এর আগেও পালিয়ে এসে আশ্রয় নেওয়া ৫ শতাধিকেরও বেশি মিয়ানমার নাগরিকদের ফেরত পাঠিয়েছি। এদেরকেও ফেরত পাঠানো হবে।

মন্ত্রী আরও বলেন, রোহিঙ্গাদের কারণে পরিবেশগত সমস্যা, আইনশৃঙ্খলা সমস্যা, ইয়াবা ও মাদক পাচারের মতো সমস্যা তৈরি হয়েছে। এছাড়াও রোহিঙ্গাদের সন্ত্রাসী দলে ভেড়ানো হচ্ছে। এসব কারণে পার্শ্ববর্তী রাষ্ট্রসহ সকলেই সমস্যায় আছে। রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের ব্যাপারে মায়ানমার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে কথা হয়েছে এছাড়াও অন্যান্য দেশের সাথে আন্তর্জাতিকভাবে আলোচনা চলছে যেন মায়ানমারকে চাপ সৃষ্টি করে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব দিয়ে দ্রুত ফেরত নেওয়া হয়।

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

মিয়ানমার কথা দিলেও ৭ বছরে ফিরিয়ে নেয়নি রোহিঙ্গাদের -পররাষ্ট্রমন্ত্রী

Update Time : ০৮:৪১:৪৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ মে ২০২৪

কক্সবাজার প্রতিনিধি :-

মিয়ানমার কথা দিয়েছিলো নাগরিকত্ব দিয়ে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিয়ে যাবে কিন্তু গত ৭ বছর চলে গেলেও তাদের ফিরিয়ে নেয়নি তারা।

রবিবার (১২ মে) বিকেল সাড়ে ৫টায় কক্সবাজারে শরণার্থী ত্রান ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কার্যালয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে যোগ দেয়ার আগে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.হাছান মাহমুদ।

এইসময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, নতুন করে পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া ১৩৮ জন বিজিপির মধ্যে একজন লেফটেন্যান্ট কর্নেল এবং দুইজন মেজরও রয়েছে। উপরন্তু এখন মিয়ানমার-আরাকান কনফ্লিক্ট আমাদের উপর ভর করেছে। মায়ানমারের সাথে আমরা আলাপ আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছি। এর আগেও পালিয়ে এসে আশ্রয় নেওয়া ৫ শতাধিকেরও বেশি মিয়ানমার নাগরিকদের ফেরত পাঠিয়েছি। এদেরকেও ফেরত পাঠানো হবে।

মন্ত্রী আরও বলেন, রোহিঙ্গাদের কারণে পরিবেশগত সমস্যা, আইনশৃঙ্খলা সমস্যা, ইয়াবা ও মাদক পাচারের মতো সমস্যা তৈরি হয়েছে। এছাড়াও রোহিঙ্গাদের সন্ত্রাসী দলে ভেড়ানো হচ্ছে। এসব কারণে পার্শ্ববর্তী রাষ্ট্রসহ সকলেই সমস্যায় আছে। রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের ব্যাপারে মায়ানমার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে কথা হয়েছে এছাড়াও অন্যান্য দেশের সাথে আন্তর্জাতিকভাবে আলোচনা চলছে যেন মায়ানমারকে চাপ সৃষ্টি করে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব দিয়ে দ্রুত ফেরত নেওয়া হয়।