মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশিসহ আটক ৫৩০

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৫:৩৬:২৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ৩২ Time View

৫৩০ জন অবৈধ অভিবাসীকে আটক করেছে মালয়েশিয়ার অভিবাসন বিভাগ। শুক্রবার গভীর রাতে সেলাঙ্গর রাজ্যের সেরিকেমবাঙ্গান পাইকারি বাজারে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

শুক্রবার রাত ৩টায় শুরু হওয়া অভিযান শেষ হয় শনিবার সকাল ৬টায়। এ সময় দুই বাংলাদেশির একটি ড্রেনে লুকিয়ে থাকার প্রচেষ্টাও ব্যর্থ হয়।

শনিবার এক বিবৃতিতে অভিযানে অংশ নেওয়া সেলাঙ্গর ইমিগ্রেশনের পরিচালক খায়রুল আমিনুস কামার উদ্দিন বলেন, অভিযানে ৫০৪ জন পুরুষ ও ২৬ জন নারীসহ মোট ৫৩০ জন অবৈধ অভিবাসীকে আটক করা হয়েছে। আটকদের মধ্যে ২৭৭ মিয়ানমারের নাগরিক, ৯৪ বাংলাদেশি, ৭২ ভারতের, ৩৯ ইন্দোনেশিয়, ১৫ নেপাল, ৯ শ্রীলঙ্কা, ৬ পাকিস্তান এবং একজন ভিয়েতনামের নাগরিক।

খায়রুল আমিনুস বলেন, আটক অভিবাসীদের মালয়েশিয়ায় থাকার বৈধ কাগজপত্র আছে কি না তা পরীক্ষা করা হবে। অভিযানে জেনারেল অপারেশন ফোর্স (পিজিএ), রয়্যাল মালয়েশিয়া পুলিশ, মালয়েশিয়ান সিভিল ডিফেন্স ফোর্স (এপিএম), সেলাঙ্গর ন্যাশনাল রেজিস্ট্রেশন ডিপার্টমেন্ট (জেপিএন) এবং সুবাং সিটি কাউন্সিলও অংশ নেয়।

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশিসহ আটক ৫৩০

Update Time : ০৫:৩৬:২৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

৫৩০ জন অবৈধ অভিবাসীকে আটক করেছে মালয়েশিয়ার অভিবাসন বিভাগ। শুক্রবার গভীর রাতে সেলাঙ্গর রাজ্যের সেরিকেমবাঙ্গান পাইকারি বাজারে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

শুক্রবার রাত ৩টায় শুরু হওয়া অভিযান শেষ হয় শনিবার সকাল ৬টায়। এ সময় দুই বাংলাদেশির একটি ড্রেনে লুকিয়ে থাকার প্রচেষ্টাও ব্যর্থ হয়।

শনিবার এক বিবৃতিতে অভিযানে অংশ নেওয়া সেলাঙ্গর ইমিগ্রেশনের পরিচালক খায়রুল আমিনুস কামার উদ্দিন বলেন, অভিযানে ৫০৪ জন পুরুষ ও ২৬ জন নারীসহ মোট ৫৩০ জন অবৈধ অভিবাসীকে আটক করা হয়েছে। আটকদের মধ্যে ২৭৭ মিয়ানমারের নাগরিক, ৯৪ বাংলাদেশি, ৭২ ভারতের, ৩৯ ইন্দোনেশিয়, ১৫ নেপাল, ৯ শ্রীলঙ্কা, ৬ পাকিস্তান এবং একজন ভিয়েতনামের নাগরিক।

খায়রুল আমিনুস বলেন, আটক অভিবাসীদের মালয়েশিয়ায় থাকার বৈধ কাগজপত্র আছে কি না তা পরীক্ষা করা হবে। অভিযানে জেনারেল অপারেশন ফোর্স (পিজিএ), রয়্যাল মালয়েশিয়া পুলিশ, মালয়েশিয়ান সিভিল ডিফেন্স ফোর্স (এপিএম), সেলাঙ্গর ন্যাশনাল রেজিস্ট্রেশন ডিপার্টমেন্ট (জেপিএন) এবং সুবাং সিটি কাউন্সিলও অংশ নেয়।