বেইলি রোডে আগুনের ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর ক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৩:৩৪:১০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪
  • / ৮৭ Time View

রাজধানীর বেইলি রোডে আগুনের ঘটনার কথা উল্লেখ করে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, বেইলি রোডে আগুনের ঘটনায় ৪৬ জন লোক মারা গেছেন এর থেকে কষ্টের আর কী হতে পারে! অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা বাড়ানোর নির্দেশ দিচ্ছি, সেটা কিন্তু আর মানে না।

প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্ন, ‘এত বড় একটা ভবন আগুন লাগলো, এই ভবনে কি অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা ছিল না?’

শুক্রবার (১ মার্চ) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় বিমা দিবসের উদযাপন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, বেইলি রোডে যেখানে আগুন লেগেছে সেখানে কোনো ফায়ার এক্সিট নেই। এসব ভবন নির্মাণে ইঞ্জিনিয়ার এবং মালিকদের গাফিলতি থাকে। এসব ক্ষেত্রে সচেতনতা খুব প্রয়োজন।

শেখ হাসিনা বলেন, বর্তমানে মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বেড়েছে, জীবনব্যবস্থা অনেক উন্নত হয়েছে। আমাদের লক্ষ্য দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। যে কোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। সেক্ষেত্রে ইনস্যুরেন্স কিন্তু নিরাপত্তা দিতে পারে।

তিনি বলেন, অনেক সময় বিমা নিয়ে অনেকে নানা ধরনের ব্যবসাও করে। ইচ্ছাকৃতভাবেও আগুন দিয়ে মোটা অঙ্কের টাকা তুলে নেওয়া হয়।

তিনি আরও বলেন, জাতির পিতাকে হত্যার পর দেশের সব অগ্রযাত্রা বন্ধ করে দেওয়া হয়। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে অনেক উন্নয়নমূলক কাজ হাতে নেয়। পরে ২০০৮ সালে ক্ষমতায় এসে দেশের উন্নয়নে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করি। বর্তমানে বিমা শিল্প অনেক এগিয়ে গেছে।

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

বেইলি রোডে আগুনের ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর ক্ষোভ

Update Time : ০৩:৩৪:১০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪

রাজধানীর বেইলি রোডে আগুনের ঘটনার কথা উল্লেখ করে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, বেইলি রোডে আগুনের ঘটনায় ৪৬ জন লোক মারা গেছেন এর থেকে কষ্টের আর কী হতে পারে! অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা বাড়ানোর নির্দেশ দিচ্ছি, সেটা কিন্তু আর মানে না।

প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্ন, ‘এত বড় একটা ভবন আগুন লাগলো, এই ভবনে কি অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা ছিল না?’

শুক্রবার (১ মার্চ) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় বিমা দিবসের উদযাপন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, বেইলি রোডে যেখানে আগুন লেগেছে সেখানে কোনো ফায়ার এক্সিট নেই। এসব ভবন নির্মাণে ইঞ্জিনিয়ার এবং মালিকদের গাফিলতি থাকে। এসব ক্ষেত্রে সচেতনতা খুব প্রয়োজন।

শেখ হাসিনা বলেন, বর্তমানে মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বেড়েছে, জীবনব্যবস্থা অনেক উন্নত হয়েছে। আমাদের লক্ষ্য দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। যে কোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। সেক্ষেত্রে ইনস্যুরেন্স কিন্তু নিরাপত্তা দিতে পারে।

তিনি বলেন, অনেক সময় বিমা নিয়ে অনেকে নানা ধরনের ব্যবসাও করে। ইচ্ছাকৃতভাবেও আগুন দিয়ে মোটা অঙ্কের টাকা তুলে নেওয়া হয়।

তিনি আরও বলেন, জাতির পিতাকে হত্যার পর দেশের সব অগ্রযাত্রা বন্ধ করে দেওয়া হয়। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে অনেক উন্নয়নমূলক কাজ হাতে নেয়। পরে ২০০৮ সালে ক্ষমতায় এসে দেশের উন্নয়নে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করি। বর্তমানে বিমা শিল্প অনেক এগিয়ে গেছে।