বুয়েটে ‘নিয়মতান্ত্রিক’ ছাত্র রাজনীতির ঘোষণা ছাত্রলীগের, কর্মসূচি ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০২:৩২:১৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ এপ্রিল ২০২৪
  • / ৪২ Time View

বাস ভাড়া কিলোমিটারে কমল ৩ পয়সা, আজ থেকে কার্যকর তাপপ্রবাহে পুড়ছে দেশের ৫ অঞ্চল রাজধানীর ডেমরায় আগুনে পুড়ল ১৪টি ভলভো বাস অ্যান্টিবায়োটিক বানাতেন তারা আটা-ময়দা দিয়ে এবারের ঈদে সড়কপথে ঢাকা ছাড়বে ৯০ লাখ মানুষ! সিলেটে শিলার আঘাতে শতাধিক আহত বাড়িওয়ালার কাছ থেকে সেরা ঈদ উপহার পেলেন ভাড়াটিয়া শেকলে বেঁধে রেখে তরুণীকে ধর্ষণ: গ্রেফতার চারজন রিমান্ডে আফগান পুরুষ দর্জিরা নারীদ

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ‘নিয়মতান্ত্রিক’ ছাত্র রাজনীতির ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতি ফিরিয়ে আনতে চার দফা কর্মসূচি ঘোষণা করেছে তারা। এ সময় বুয়েট থেকেই ছাত্রলীগের আধুনিক রাজনীতি শুরু হবে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সাদ্দাম হোসেন।

সংবাদ সম্মেলন লিখিত বক্তব্য পাঠকালে সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ঘটে যাওয়া ঘটনাবলির উপর আপনারা সম্পূর্ণরূপে ওয়াকিবহাল। ৭ অক্টোবর ২০১৯ বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের মর্মান্তিক মৃত্যুর পর বাংলাদেশ ছাত্রলীগ তার নৈতিক ও সাংগঠনিক অবস্থান থেকে সর্বোচ্চ দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করেছে। ছাত্র রাজনীতির নামে এমনকি ছাত্রলীগের দলীয় পরিচয় ব্যবহার করে জিয়া-এরশাদ-খালেদা-নিজামী প্রবর্তিত হত্যা-খুন-সন্ত্রাস পরিচালনা করা যে কোনোমতেই সম্ভব নয়, সেটি এই হত্যাকাণ্ডের পর বাংলাদেশ ছাত্রলীগ প্রমাণ করেছে। বাংলাদেশের ছাত্রসমাজের সবচেয়ে কাছের বন্ধু দেশরত্ন শেখ হাসিনা এই ঘটনার সুষ্ঠু বিচার নিশ্চিত করেছেন, আবরারের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন। কিন্তু এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে, প্রশাসন বুয়েট ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ করার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তা বাংলাদেশ ছাত্রলীগ অতীতেও সমর্থন করেনি, বর্তমানেও করে না। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বারবার বলার চেষ্টা করেছে, বাংলাদেশের মহান সংবিধান ও বুয়েট আইন কোনোটিই ছাত্র রাজনীতি বন্ধের এই সিদ্ধান্তকে বৈধতা দেয় না। বুয়েট পরিবারের অংশীজনদের আবেগ-অনুভূতির প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ আহ্বান জানিয়েছে, ‘ধ্বংস দেখে ভয় কেন তোর? প্রলয় নূতন সৃজন-বেদন।’

মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে বুয়েটের উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে জরুরি সংবাদ সম্মেলন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন, সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালি আসিফ ইনান, ঢাবি শাখা সভাপতি মাজহারুল ইসলাম শয়ন ও সাধারণ সম্পাদক তানবীর হাসান সৈকতসহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় তারা নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতি ফিরিয়ে আনতে চার দফা কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। তাদের ঘোষিত কর্মসূচিগুলো হলো-

১. আবাসিক হলে রাব্বীর সিট ফিরিয়ে দেওয়ার লক্ষ্যে বুয়েট শহিদ মিনারে অবস্থান কর্মসূচি; ২. আধুনিক, স্মার্ট ও পলিসি নির্ভর নিয়মতান্ত্রিক ছাত্র রাজনীতি প্রতিষ্ঠার কর্মপরিকল্পনা নির্ধারণে বুয়েট শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মতামত আহ্বান ও আলোচনা; ৩. সাম্প্রদায়িক-মৌলবাদী-জঙ্গি কালোছায়া থেকে বুয়েটকে মুক্ত করতে সেমিনার ও সাংস্কৃতিক উৎসব আয়োজন এবং ৪. বুয়েটে ছাত্র সংসদ নির্বাচনের দাবিতে প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) সব রাজনৈতিক সংগঠন ও তাদের কার্যক্রম নিষিদ্ধ ঘোষণার ‘জরুরি বিজ্ঞপ্তির’ কার্যক্রম স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। উচ্চ আদালতের এ রায়ে বাংলাদেশের ছাত্র রাজনীতির বিজয় হয়েছে উল্লেখ করে ছাত্রলীগ সভাপতি বলেন, বুয়েটের মর্যাদা ধরে রেখে সুষ্ঠু ও নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতি শুরু করবে ছাত্রলীগ। প্রয়োজনে সব শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনা করা হবে। শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি শিক্ষকদের সঙ্গেও আলাপ করে সাংস্কৃতি চর্চা শুরু হবে।

বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি ফিরিয়ে এনেই কেবল বাংলাদেশ ছাত্রলীগ তার দায়িত্ব শেষ করবে না উল্লেখ করে তিনি জানান, শেখ হাসিনার পরিকল্পিত আগামী দিনের উন্নত, স্মার্ট বাংলাদেশে উন্নত ও স্মার্ট ছাত্র রাজনীতি উপহার দেওয়ার জন্য মডেল প্ল্যাটফর্ম হিসেবে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বুয়েটকে গ্রহণ করবে। এই ঐতিহাসিক যাত্রায় বুয়েটের সকল শিক্ষার্থীকে সহযোগিতা সংকল্প নিয়ে পাশে থাকার আহ্বান জানাচ্ছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। একইসঙ্গে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ প্রগতিশীল সকল ছাত্র সংগঠনের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছে, আসুন গৎবাঁধা ধারা বাদ দিয়ে আধুনিক, উন্নত ছাত্র রাজনীতির চর্চা শুরু করুন বুয়েট থেকেই। সুন্দর, স্বনির্ভর, সম্মানজনক ভবিষ্যৎ গড়তে আজকের প্রজন্ম আর কালক্ষেপণ করবে না, এটিই বাংলাদেশ ছাত্রলীগের আহ্বান।

এসময় যারা রাজনীতির বিরুদ্ধে আন্দোলন করছে তাদের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘প্রশ্নই আসে না। যারা আন্দোলন করেছে, তাদের পক্ষ রয়েছে, তাদেরও মত প্রকাশের স্বাধীনতা রয়েছে। আমরা তাদের মতামতকে স্বাগত জানাই। তবে সাধারণ শিক্ষার্থীদের সেন্টিমেন্টকে কাজে লাগিয়ে নিষিদ্ধ রাজনীতি যারা করেছে, তাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সোচ্চার রয়েছে।’

বুয়েটে ছাত্রলীগ কবে কমিটি দিতে পারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেই আমরা পরবর্তী কর্মসূচি করবো। তাদের সঙ্গে মুক্ত আলোচনা করবো। তারপর আমরা কমিটি নিয়ে ভাববো। বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষায়িত ছাত্র রাজনীতি থাকবে।’

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

বুয়েটে ‘নিয়মতান্ত্রিক’ ছাত্র রাজনীতির ঘোষণা ছাত্রলীগের, কর্মসূচি ঘোষণা

Update Time : ০২:৩২:১৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ এপ্রিল ২০২৪

বাস ভাড়া কিলোমিটারে কমল ৩ পয়সা, আজ থেকে কার্যকর তাপপ্রবাহে পুড়ছে দেশের ৫ অঞ্চল রাজধানীর ডেমরায় আগুনে পুড়ল ১৪টি ভলভো বাস অ্যান্টিবায়োটিক বানাতেন তারা আটা-ময়দা দিয়ে এবারের ঈদে সড়কপথে ঢাকা ছাড়বে ৯০ লাখ মানুষ! সিলেটে শিলার আঘাতে শতাধিক আহত বাড়িওয়ালার কাছ থেকে সেরা ঈদ উপহার পেলেন ভাড়াটিয়া শেকলে বেঁধে রেখে তরুণীকে ধর্ষণ: গ্রেফতার চারজন রিমান্ডে আফগান পুরুষ দর্জিরা নারীদ

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ‘নিয়মতান্ত্রিক’ ছাত্র রাজনীতির ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতি ফিরিয়ে আনতে চার দফা কর্মসূচি ঘোষণা করেছে তারা। এ সময় বুয়েট থেকেই ছাত্রলীগের আধুনিক রাজনীতি শুরু হবে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সাদ্দাম হোসেন।

সংবাদ সম্মেলন লিখিত বক্তব্য পাঠকালে সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ঘটে যাওয়া ঘটনাবলির উপর আপনারা সম্পূর্ণরূপে ওয়াকিবহাল। ৭ অক্টোবর ২০১৯ বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের মর্মান্তিক মৃত্যুর পর বাংলাদেশ ছাত্রলীগ তার নৈতিক ও সাংগঠনিক অবস্থান থেকে সর্বোচ্চ দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করেছে। ছাত্র রাজনীতির নামে এমনকি ছাত্রলীগের দলীয় পরিচয় ব্যবহার করে জিয়া-এরশাদ-খালেদা-নিজামী প্রবর্তিত হত্যা-খুন-সন্ত্রাস পরিচালনা করা যে কোনোমতেই সম্ভব নয়, সেটি এই হত্যাকাণ্ডের পর বাংলাদেশ ছাত্রলীগ প্রমাণ করেছে। বাংলাদেশের ছাত্রসমাজের সবচেয়ে কাছের বন্ধু দেশরত্ন শেখ হাসিনা এই ঘটনার সুষ্ঠু বিচার নিশ্চিত করেছেন, আবরারের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন। কিন্তু এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে, প্রশাসন বুয়েট ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ করার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তা বাংলাদেশ ছাত্রলীগ অতীতেও সমর্থন করেনি, বর্তমানেও করে না। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বারবার বলার চেষ্টা করেছে, বাংলাদেশের মহান সংবিধান ও বুয়েট আইন কোনোটিই ছাত্র রাজনীতি বন্ধের এই সিদ্ধান্তকে বৈধতা দেয় না। বুয়েট পরিবারের অংশীজনদের আবেগ-অনুভূতির প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ আহ্বান জানিয়েছে, ‘ধ্বংস দেখে ভয় কেন তোর? প্রলয় নূতন সৃজন-বেদন।’

মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে বুয়েটের উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে জরুরি সংবাদ সম্মেলন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন, সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালি আসিফ ইনান, ঢাবি শাখা সভাপতি মাজহারুল ইসলাম শয়ন ও সাধারণ সম্পাদক তানবীর হাসান সৈকতসহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় তারা নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতি ফিরিয়ে আনতে চার দফা কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। তাদের ঘোষিত কর্মসূচিগুলো হলো-

১. আবাসিক হলে রাব্বীর সিট ফিরিয়ে দেওয়ার লক্ষ্যে বুয়েট শহিদ মিনারে অবস্থান কর্মসূচি; ২. আধুনিক, স্মার্ট ও পলিসি নির্ভর নিয়মতান্ত্রিক ছাত্র রাজনীতি প্রতিষ্ঠার কর্মপরিকল্পনা নির্ধারণে বুয়েট শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মতামত আহ্বান ও আলোচনা; ৩. সাম্প্রদায়িক-মৌলবাদী-জঙ্গি কালোছায়া থেকে বুয়েটকে মুক্ত করতে সেমিনার ও সাংস্কৃতিক উৎসব আয়োজন এবং ৪. বুয়েটে ছাত্র সংসদ নির্বাচনের দাবিতে প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) সব রাজনৈতিক সংগঠন ও তাদের কার্যক্রম নিষিদ্ধ ঘোষণার ‘জরুরি বিজ্ঞপ্তির’ কার্যক্রম স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। উচ্চ আদালতের এ রায়ে বাংলাদেশের ছাত্র রাজনীতির বিজয় হয়েছে উল্লেখ করে ছাত্রলীগ সভাপতি বলেন, বুয়েটের মর্যাদা ধরে রেখে সুষ্ঠু ও নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতি শুরু করবে ছাত্রলীগ। প্রয়োজনে সব শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনা করা হবে। শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি শিক্ষকদের সঙ্গেও আলাপ করে সাংস্কৃতি চর্চা শুরু হবে।

বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি ফিরিয়ে এনেই কেবল বাংলাদেশ ছাত্রলীগ তার দায়িত্ব শেষ করবে না উল্লেখ করে তিনি জানান, শেখ হাসিনার পরিকল্পিত আগামী দিনের উন্নত, স্মার্ট বাংলাদেশে উন্নত ও স্মার্ট ছাত্র রাজনীতি উপহার দেওয়ার জন্য মডেল প্ল্যাটফর্ম হিসেবে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বুয়েটকে গ্রহণ করবে। এই ঐতিহাসিক যাত্রায় বুয়েটের সকল শিক্ষার্থীকে সহযোগিতা সংকল্প নিয়ে পাশে থাকার আহ্বান জানাচ্ছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। একইসঙ্গে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ প্রগতিশীল সকল ছাত্র সংগঠনের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছে, আসুন গৎবাঁধা ধারা বাদ দিয়ে আধুনিক, উন্নত ছাত্র রাজনীতির চর্চা শুরু করুন বুয়েট থেকেই। সুন্দর, স্বনির্ভর, সম্মানজনক ভবিষ্যৎ গড়তে আজকের প্রজন্ম আর কালক্ষেপণ করবে না, এটিই বাংলাদেশ ছাত্রলীগের আহ্বান।

এসময় যারা রাজনীতির বিরুদ্ধে আন্দোলন করছে তাদের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘প্রশ্নই আসে না। যারা আন্দোলন করেছে, তাদের পক্ষ রয়েছে, তাদেরও মত প্রকাশের স্বাধীনতা রয়েছে। আমরা তাদের মতামতকে স্বাগত জানাই। তবে সাধারণ শিক্ষার্থীদের সেন্টিমেন্টকে কাজে লাগিয়ে নিষিদ্ধ রাজনীতি যারা করেছে, তাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সোচ্চার রয়েছে।’

বুয়েটে ছাত্রলীগ কবে কমিটি দিতে পারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেই আমরা পরবর্তী কর্মসূচি করবো। তাদের সঙ্গে মুক্ত আলোচনা করবো। তারপর আমরা কমিটি নিয়ে ভাববো। বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষায়িত ছাত্র রাজনীতি থাকবে।’