বকেয়া বেতন ভাতার দাবিতে দৈনিক দিনকাল সাংবাদিক-শ্রমিক-কর্মচারীদের মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৭:০৯:৫৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ এপ্রিল ২০২৪
  • / ৫৩ Time View

বকেয়া বেতন ভাতার দাবিতে বুধবার (৩ এপ্রিল) দুপুর ১২ টায় দৈনিক দিনকাল অফিসের সামনে দিনকাল সাংবাদিক কর্মচারীরা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন দৈনিক দিনকাল সাংবাদিক-শ্রমিক- কর্মচারী সমন্বয় কমিটির আহবায়ক আবুল হোসেন খান মোহন, সদস্য মন্মথ সরকার, জহির চৌধুরী, আব্দুস সেলিম, লিপি সরকার, ডিইউজে দিনকাল ইউনিট চিফ আব্দুল্লাহ জেয়াদ, ডেপুটি ইউনিট মিজানুর রহমান ও দিনকাল শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক লিয়াকত আলী।

মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তারা বলেন, দৈনিক দিনকালের সাংবাদিক কর্মচারীদের গত একবছর ধরে বেতন ভাতা দেয়া হচ্ছে না। এছাড়া করোনাকালিন সময়ের চার মাসের বেতন ও উৎসব ভাতা বকেয়া রয়েছে।  সরকার ২০২২ সালের ২৬ ডিসেম্বর দিনকালের ডিক্লেয়ারেশন বাতিল করে। এরপর প্রেস কাউন্সিলে আবেদনের প্রেক্ষিতে ২০২৩ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত পত্রিকাটি চালু ছিল। প্রেস কাউন্সিলের রায়ে সরকারের আদেশ বহাল রেখে পত্রিকাটি নিয়মমাফিক প্রকাশের নির্দেশনা দেয়া হয় এবং কর্মরত সাংবাদিক কর্মচারীদের বেতন ভাতা চালিয়ে যেতে বলা হয়। কিন্তু দিনকাল কর্তৃপক্ষ দীর্ঘ একবছর ধরে সাংবাদিক কর্মচারীদের বেতন ভাতা দিচ্ছে না। আবার পাওনাকড়িও পরিশোধ করছে না। এতে বর্তমান দুমূল্যের বাজারে সাংবাদিক কর্মচারীদের পরিবারগুলো মানবেতর জীবন যাপনে বাধ্য হচ্ছে।

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

বকেয়া বেতন ভাতার দাবিতে দৈনিক দিনকাল সাংবাদিক-শ্রমিক-কর্মচারীদের মানববন্ধন

Update Time : ০৭:০৯:৫৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ এপ্রিল ২০২৪

বকেয়া বেতন ভাতার দাবিতে বুধবার (৩ এপ্রিল) দুপুর ১২ টায় দৈনিক দিনকাল অফিসের সামনে দিনকাল সাংবাদিক কর্মচারীরা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন দৈনিক দিনকাল সাংবাদিক-শ্রমিক- কর্মচারী সমন্বয় কমিটির আহবায়ক আবুল হোসেন খান মোহন, সদস্য মন্মথ সরকার, জহির চৌধুরী, আব্দুস সেলিম, লিপি সরকার, ডিইউজে দিনকাল ইউনিট চিফ আব্দুল্লাহ জেয়াদ, ডেপুটি ইউনিট মিজানুর রহমান ও দিনকাল শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক লিয়াকত আলী।

মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তারা বলেন, দৈনিক দিনকালের সাংবাদিক কর্মচারীদের গত একবছর ধরে বেতন ভাতা দেয়া হচ্ছে না। এছাড়া করোনাকালিন সময়ের চার মাসের বেতন ও উৎসব ভাতা বকেয়া রয়েছে।  সরকার ২০২২ সালের ২৬ ডিসেম্বর দিনকালের ডিক্লেয়ারেশন বাতিল করে। এরপর প্রেস কাউন্সিলে আবেদনের প্রেক্ষিতে ২০২৩ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত পত্রিকাটি চালু ছিল। প্রেস কাউন্সিলের রায়ে সরকারের আদেশ বহাল রেখে পত্রিকাটি নিয়মমাফিক প্রকাশের নির্দেশনা দেয়া হয় এবং কর্মরত সাংবাদিক কর্মচারীদের বেতন ভাতা চালিয়ে যেতে বলা হয়। কিন্তু দিনকাল কর্তৃপক্ষ দীর্ঘ একবছর ধরে সাংবাদিক কর্মচারীদের বেতন ভাতা দিচ্ছে না। আবার পাওনাকড়িও পরিশোধ করছে না। এতে বর্তমান দুমূল্যের বাজারে সাংবাদিক কর্মচারীদের পরিবারগুলো মানবেতর জীবন যাপনে বাধ্য হচ্ছে।