ফেনীতে আরও ৩৬ জনের করোনা শনাক্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৯:৪১:১২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুন ২০২০
  • / ১১৫ Time View

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ফেনীতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন আরও ৩৬ জন।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুন) জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের পরিসংখ্যানবিদ মো. ইউসুফ এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি আরও জানান, জেলায় এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬শ ৪৫জন।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, নোয়াখালীর আব্দুল মালেক উকিল মেডিক্যাল কলেজে ১শ ১৩টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। তারমধ্যে ১টি দ্বিতীয় নমুনাসহ ৩৭টি পজিটিভ এসেছে। তাদের মধ্যে রয়েছেন পরশুরামের ৪, সদরের ১৪, দাগনভূঁঞার ৬ ও ছাগলনাইয়ায় ১১ জন।

দাগনভূঞা উপজেলায় আক্রান্ত ৬ জনের মধ্যে দুইজন পুলিশ সদস্য। বাকিরা পৌরসভা, রামনগর, পূর্বচন্দ্রপুর ও সদর ইউনিয়নের বাসিন্দা।

পরশুরাম উপজেলায় ৪ জনের মধ্যে ৬ মাস বয়সী শিশু ও ১১ বছর বয়সী কিশোর রয়েছে।

ছাগলনাইয়া উপজেলায় ১১ জনের মধ্যে সাতজনই পৌরসভার বিভিন্ন এলাকার।

স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যমতে, গত ১৬ এপ্রিল জেলায় প্রথম এক যুবকের শরীরে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়। এরপর থেকে জেলায় ধারাবাহিকভাবে করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার বেড়ে চলছে। জেলায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তে সংখ্যা ৬শ ৪৫।

এ পর্যন্ত ৪ হাজার ৪শ ৩৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেজ (বিআইটিআইডি), চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও অ্যানিমেল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় এবং নোয়াখালী আবদুল মালেক মেডিক্যাল কলেজ পরীক্ষাগারে প্রেরণ করা হলে ৩ হাজার ২শ ৫০ জনের প্রতিবেদন আসে।

হাসপাতালের আইসোলেশনে ১৮ জন চিকিৎসাধীন। অন্যত্র স্থানান্তর করা হয়েছে ১৩ জনকে। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৩৫ জন। মারা গেছেন ১৩ জন।

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

ফেনীতে আরও ৩৬ জনের করোনা শনাক্ত

Update Time : ০৯:৪১:১২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুন ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ফেনীতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন আরও ৩৬ জন।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুন) জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের পরিসংখ্যানবিদ মো. ইউসুফ এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি আরও জানান, জেলায় এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬শ ৪৫জন।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, নোয়াখালীর আব্দুল মালেক উকিল মেডিক্যাল কলেজে ১শ ১৩টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। তারমধ্যে ১টি দ্বিতীয় নমুনাসহ ৩৭টি পজিটিভ এসেছে। তাদের মধ্যে রয়েছেন পরশুরামের ৪, সদরের ১৪, দাগনভূঁঞার ৬ ও ছাগলনাইয়ায় ১১ জন।

দাগনভূঞা উপজেলায় আক্রান্ত ৬ জনের মধ্যে দুইজন পুলিশ সদস্য। বাকিরা পৌরসভা, রামনগর, পূর্বচন্দ্রপুর ও সদর ইউনিয়নের বাসিন্দা।

পরশুরাম উপজেলায় ৪ জনের মধ্যে ৬ মাস বয়সী শিশু ও ১১ বছর বয়সী কিশোর রয়েছে।

ছাগলনাইয়া উপজেলায় ১১ জনের মধ্যে সাতজনই পৌরসভার বিভিন্ন এলাকার।

স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যমতে, গত ১৬ এপ্রিল জেলায় প্রথম এক যুবকের শরীরে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়। এরপর থেকে জেলায় ধারাবাহিকভাবে করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার বেড়ে চলছে। জেলায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তে সংখ্যা ৬শ ৪৫।

এ পর্যন্ত ৪ হাজার ৪শ ৩৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেজ (বিআইটিআইডি), চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও অ্যানিমেল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় এবং নোয়াখালী আবদুল মালেক মেডিক্যাল কলেজ পরীক্ষাগারে প্রেরণ করা হলে ৩ হাজার ২শ ৫০ জনের প্রতিবেদন আসে।

হাসপাতালের আইসোলেশনে ১৮ জন চিকিৎসাধীন। অন্যত্র স্থানান্তর করা হয়েছে ১৩ জনকে। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৩৫ জন। মারা গেছেন ১৩ জন।