প্রিয়াঙ্কা গান্ধীকে বাড়ি ছাড়ার নোটিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৮:২৩:১৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩ জুলাই ২০২০
  • / ১২৪ Time View

গান্ধী পরিবারের সদস্যদের বিশেষ নিরাপত্তা সুরক্ষা ব্যবস্থা (এসপিজি) আগেই বাতিল করেছিল মোদি সরকার। এবার ভারতের কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ভদ্রকে চলতি মাসের মধ্যে দিল্লির সরকারি বাংলো ছাড়ার নোটিশ পাঠানো হয়েছে। তিনি ২৩ বছর ধরে ৩৫, লোদি এস্টেটের বাসিন্দা।

মোদি সরকারের কেন্দ্রীয় নগরে উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নোটিশে প্রিয়াঙ্কাকে আগামী ১ আগস্টের মধ্যে বাংলোটি খালি করতে হবে বলে জানানো হয়েছে। স্পেশাল প্রোটেকশন গ্রুপের (এসপিজি) পরামর্শ অনুযায়ী ১৯৯৭ সালে লোধি এস্টেটের ৩৫ নম্বর বাংলোটি ‘স্পেশাল লাইসেন্সি’ হিসেবে থাকতে দেওয়া হয় প্রিয়াঙ্কাকে।

সে সময় বাংলোটির জন্য মাসিক ভাড়া ঠিক হয় ৩৭ হাজার রুপি। সেই অর্থও প্রিয়াঙ্কা ঠিক মতো মেটাননি বলেই অভিযোগ সরকারের। নোটিশ পাওয়ার পরপর প্রিয়াঙ্কা জুন মাসের শেষ পর্যন্ত বকেয়া ভাড়া ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৬৭৭ রুপি অনলাইনে শোধ করে দেন।

ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী নিহত হওয়ার পর দেশটির প্রধানমন্ত্রী, সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও তাদের পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তার জন্য স্পেশাল প্রোটেকশন গ্রুপ (এসপিজি) তৈরি করা হয়েছিল। তবে গত নভেম্বরে গান্ধী পরিবারের এসপিজি নিরাপত্তা তুলে জেড প্লাস ক্যাটেগরির নিরাপত্তা দেয় মোদি সরকার।

ইন্দিরা গান্ধীর পরিবারের নিরাপত্তার দায়িত্ব থেকে এসপিজিকে অব্যাহতি দিয়ে সেই ভার তুলে দেওয়া হয় আধা সামরিক বাহিনী সিআরপিএফের ওপর। এই ঘটনার পর থেকে ভারতে এখন এসপিজি নিরাপত্তার আওতায় রয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এর আগেও একাধিকবার ওই আইন পরিবর্তন ও সংশোধিত হয়েছে।

প্রিয়াঙ্কাসহ গান্ধী পরিবারের কেউই এখনো এ নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি। তবে কংগ্রেস মুখপাত্র রণদীপ সুরযেওয়ালা বলেছেন, ‘কংগ্রেস নেতৃত্বের ওপর মোদি ও তার সরকার ক্ষিপ্ত। হিংসা ও ক্রোধে তারা অন্ধ। প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর সরকারের অপশাসন উন্মেষ করা রুখতেই এই প্রতিহিংসা। তবে কংগ্রেস এতে বিচলিত নয়।’

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

প্রিয়াঙ্কা গান্ধীকে বাড়ি ছাড়ার নোটিশ

Update Time : ০৮:২৩:১৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩ জুলাই ২০২০

গান্ধী পরিবারের সদস্যদের বিশেষ নিরাপত্তা সুরক্ষা ব্যবস্থা (এসপিজি) আগেই বাতিল করেছিল মোদি সরকার। এবার ভারতের কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ভদ্রকে চলতি মাসের মধ্যে দিল্লির সরকারি বাংলো ছাড়ার নোটিশ পাঠানো হয়েছে। তিনি ২৩ বছর ধরে ৩৫, লোদি এস্টেটের বাসিন্দা।

মোদি সরকারের কেন্দ্রীয় নগরে উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নোটিশে প্রিয়াঙ্কাকে আগামী ১ আগস্টের মধ্যে বাংলোটি খালি করতে হবে বলে জানানো হয়েছে। স্পেশাল প্রোটেকশন গ্রুপের (এসপিজি) পরামর্শ অনুযায়ী ১৯৯৭ সালে লোধি এস্টেটের ৩৫ নম্বর বাংলোটি ‘স্পেশাল লাইসেন্সি’ হিসেবে থাকতে দেওয়া হয় প্রিয়াঙ্কাকে।

সে সময় বাংলোটির জন্য মাসিক ভাড়া ঠিক হয় ৩৭ হাজার রুপি। সেই অর্থও প্রিয়াঙ্কা ঠিক মতো মেটাননি বলেই অভিযোগ সরকারের। নোটিশ পাওয়ার পরপর প্রিয়াঙ্কা জুন মাসের শেষ পর্যন্ত বকেয়া ভাড়া ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৬৭৭ রুপি অনলাইনে শোধ করে দেন।

ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী নিহত হওয়ার পর দেশটির প্রধানমন্ত্রী, সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও তাদের পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তার জন্য স্পেশাল প্রোটেকশন গ্রুপ (এসপিজি) তৈরি করা হয়েছিল। তবে গত নভেম্বরে গান্ধী পরিবারের এসপিজি নিরাপত্তা তুলে জেড প্লাস ক্যাটেগরির নিরাপত্তা দেয় মোদি সরকার।

ইন্দিরা গান্ধীর পরিবারের নিরাপত্তার দায়িত্ব থেকে এসপিজিকে অব্যাহতি দিয়ে সেই ভার তুলে দেওয়া হয় আধা সামরিক বাহিনী সিআরপিএফের ওপর। এই ঘটনার পর থেকে ভারতে এখন এসপিজি নিরাপত্তার আওতায় রয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এর আগেও একাধিকবার ওই আইন পরিবর্তন ও সংশোধিত হয়েছে।

প্রিয়াঙ্কাসহ গান্ধী পরিবারের কেউই এখনো এ নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি। তবে কংগ্রেস মুখপাত্র রণদীপ সুরযেওয়ালা বলেছেন, ‘কংগ্রেস নেতৃত্বের ওপর মোদি ও তার সরকার ক্ষিপ্ত। হিংসা ও ক্রোধে তারা অন্ধ। প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর সরকারের অপশাসন উন্মেষ করা রুখতেই এই প্রতিহিংসা। তবে কংগ্রেস এতে বিচলিত নয়।’