নেতানিয়াহুর কারণেই ইসরাইলে ইরানি হামলা: এরদোয়ান

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০১:২৩:৪৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪
  • / ৩৬ Time View

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোয়ান ইরানের পক্ষ থেকে প্রতিশোধমূলক হামলার জন্য ইসরাইলকে দায়ী করেছেন। তিনি বলেছেন, ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনয়ামিন নেতানিয়াহুর কারণেই ইরান এই হামলা করেছে।

মঙ্গলবার তুরস্কের মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর টেলিভিশনে দেয়া ভাষণে তিনি একথা বলেন।

এরদোয়ান বলেন, গত শনিবার যে হামলার ঘটনা ঘটেছে তা শূন্যতার মাঝে দেখা অন্যায় হবে। ১৩ এপ্রিল সন্ধ্যায় আমাদের হৃদয়ে যে উত্তেজনা দেখা দিয়েছিল তার জন্য প্রধানত এক ব্যক্তি দায়ী; তিনি হলেন নেতানিয়াহু এবং তার খুনে প্রশাসন। ৭ অক্টোবর থেকে ইসরাইল সরকার বিভিন্নভাবে উসকানি সৃষ্টির চেষ্টা করেছে যাতে পুরো অঞ্চলকে আগুনের কুণ্ডলীতে পরিণত করা যায়। ইসরাইল সরকার দামেস্কে অবস্থিত ইরানের কনসুলেট ভবনে হামলা চালিয়েছে এই হামলার মধ্য দিয়ে তারা আন্তর্জাতিক আইন এবং ভিয়েনা কনভেনশন লঙ্ঘন করেছে এবং একে কেন্দ্র করেই ইরান-ইসরাইল সংঘাত শুরু হয়েছে।

এ বিষয়ে পশ্চিমা দেশগুলোর দ্বিমুখী নীতির কঠোর সমালোচনা করেন তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমরা পশ্চিমা দেশগুলোর দ্বিমুখী নীতি দেখেছি। ইরানি কনস্যুলেটে ইসরাইলের হামলার বিরুদ্ধে তারা কোনো কথা বলেনি কিন্তু ইরান যখন ইসরাইলের বিরুদ্ধে প্রতিশোধমূলক হামলা চালিয়েছে তখন দ্রুতই তারা তার নিন্দা জানিয়েছে।

মধ্যপ্রাচ্যের চলমান সংঘাতের জন্য ইসরাইলকে সাধারণভাবে দায়ী করে তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, ইসরাইলি বাহিনী গায়ের জোরে এবং নির্বিচারে ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকার হাজার হাজার মানুষকে হত্যা করেছে এবং তারা মানবিক ত্রাণ পৌঁছানোর ক্ষেত্রে বাধা পর্যন্ত দিয়েছেন। ১৩২ দিনের বেশি সময় ধরে ইসরাইল গাজায় গণহত্যামূলক নীতি বাস্তবায়ন করে চলেছে।

গত শনিবার দিবাগত রাতে ইরানের সামরিক বাহিনী ইসরাইলের বিরুদ্ধে কয়েকশ ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে প্রতিশোধমূলক হামলা চালায়। পার্সটুডে

Please Share This Post in Your Social Media

নেতানিয়াহুর কারণেই ইসরাইলে ইরানি হামলা: এরদোয়ান

Update Time : ০১:২৩:৪৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোয়ান ইরানের পক্ষ থেকে প্রতিশোধমূলক হামলার জন্য ইসরাইলকে দায়ী করেছেন। তিনি বলেছেন, ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনয়ামিন নেতানিয়াহুর কারণেই ইরান এই হামলা করেছে।

মঙ্গলবার তুরস্কের মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর টেলিভিশনে দেয়া ভাষণে তিনি একথা বলেন।

এরদোয়ান বলেন, গত শনিবার যে হামলার ঘটনা ঘটেছে তা শূন্যতার মাঝে দেখা অন্যায় হবে। ১৩ এপ্রিল সন্ধ্যায় আমাদের হৃদয়ে যে উত্তেজনা দেখা দিয়েছিল তার জন্য প্রধানত এক ব্যক্তি দায়ী; তিনি হলেন নেতানিয়াহু এবং তার খুনে প্রশাসন। ৭ অক্টোবর থেকে ইসরাইল সরকার বিভিন্নভাবে উসকানি সৃষ্টির চেষ্টা করেছে যাতে পুরো অঞ্চলকে আগুনের কুণ্ডলীতে পরিণত করা যায়। ইসরাইল সরকার দামেস্কে অবস্থিত ইরানের কনসুলেট ভবনে হামলা চালিয়েছে এই হামলার মধ্য দিয়ে তারা আন্তর্জাতিক আইন এবং ভিয়েনা কনভেনশন লঙ্ঘন করেছে এবং একে কেন্দ্র করেই ইরান-ইসরাইল সংঘাত শুরু হয়েছে।

এ বিষয়ে পশ্চিমা দেশগুলোর দ্বিমুখী নীতির কঠোর সমালোচনা করেন তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমরা পশ্চিমা দেশগুলোর দ্বিমুখী নীতি দেখেছি। ইরানি কনস্যুলেটে ইসরাইলের হামলার বিরুদ্ধে তারা কোনো কথা বলেনি কিন্তু ইরান যখন ইসরাইলের বিরুদ্ধে প্রতিশোধমূলক হামলা চালিয়েছে তখন দ্রুতই তারা তার নিন্দা জানিয়েছে।

মধ্যপ্রাচ্যের চলমান সংঘাতের জন্য ইসরাইলকে সাধারণভাবে দায়ী করে তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, ইসরাইলি বাহিনী গায়ের জোরে এবং নির্বিচারে ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকার হাজার হাজার মানুষকে হত্যা করেছে এবং তারা মানবিক ত্রাণ পৌঁছানোর ক্ষেত্রে বাধা পর্যন্ত দিয়েছেন। ১৩২ দিনের বেশি সময় ধরে ইসরাইল গাজায় গণহত্যামূলক নীতি বাস্তবায়ন করে চলেছে।

গত শনিবার দিবাগত রাতে ইরানের সামরিক বাহিনী ইসরাইলের বিরুদ্ধে কয়েকশ ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে প্রতিশোধমূলক হামলা চালায়। পার্সটুডে