নীলফামারীর ডিমলায় রাস্তা সংস্কারে অনিয়ম এলাকাবাসীর মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৫:১৭:৪৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪
  • / 28

মশিয়ার রহমান, নীলফামারী প্রতিনিধি।

পাকা রাস্তা সংস্কারে নানাবিধ অনিয়মের প্রতিবাদে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলাধীন পশ্চিম ছাতনাই ইউনিয়নের ঠাকুরগঞ্জ ও কালীগঞ্জ এলাকাবাসীরা মানববন্ধন করেছে।
শনিবার (১৮মে) সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন থেকে এলাকাবাসী সাংবাদিকদের জানান, ঠাকুরগঞ্জ বাজার থেকে কালীগঞ্জ বাজার পর্যন্ত সাড়ে চার কিঃমিঃ পাকা রাস্তা পুনঃমেরামতের জন্য টেন্ডার হয়। এই মেরামতের কাজ পান “মেসার্স নাছিমুল একরাম” নামে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। গত ৪/৫ মাস যাবৎ রাস্তা খোরা ও রোলিং করা এবং প্রাইড কোড দেওয়াসহ কার্পেটিং-এ বিভিন্ন ধরনের অনিয়ম দেখা গেছে। অনিয়ম ও নিম্নমানের কাজের বিষয়ে ঠিকাদারের লোকজনকে বললে তারা আমাদেরকে উপেক্ষা করে হুমকি ধামকি দিয়া বলে এরচেয়ে বেশি কাজ হবে না। তোমাদের কিছু করার থাকলে করেন। কি অনিয়ম ও নিম্নমানের কাজ করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান প্রশ্ন করা হলে মানববন্ধনে দাড়ানো জাহাঙ্গীর আলম ও মামুনুর রশীদ মামুন বলেন, প্রথম থেকে যখন রাস্তা খোরা শুরু করে তখন কোন কোন জায়গায় রাস্তা ট্রাক্টর দিয়ে চাষ করেছে আবার কোন জায়গায় চাষ করে নাই। শুধু পিচ ঢেলেছে। মাঝেমাঝে নতুন পুরাতন খোয়া দেওয়া হলেও নতুন খোয়া গুলো ছিল নিম্নমানের ইটের। এছাড়াও ইটের খোয়ার সাথে ডাশ মাটি মিশ্রিত ছিল। এর প্রতিবাদ করায় কন্ডাক্টারের লোকজন মারমুখী হয়ে আসে। তারাই আবার থানায় চাঁদাবাজির মামলা করেছে। এভাবে ঠিকাদারের লোকজন হুমকি ও চাঁদাবাজির ভয় দেখিয়ে ধামাচাপা দিয়ে রাস্তার কাজ করছে।
তারা আরও বলেন, রাস্তায় যে পিচের কার্পেটিং করতেছে হাতদিয়ে তা উঠে যাচ্ছে। এমন হালকা কাজ করছে এরআগে এমন কাজ তারা কখনো দেখে নাই বলে অভিযোগ করেন।
এবিষয়ে রাস্তা দেখভালের দায়িত্বে থাকা উপসহকারী প্রকৌশলী আবু বক্কর ছিদ্দিক বিডিসমাচার২৪.কম পত্রিকাকে বলেন, উপজেলা প্রকৌশলীর আদেশ ব্যাতিত আমি কোন কমেন্টস করবো না। এমনকি তিনি রাস্তার কাজ কোন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান করেছে, কত বরাদ্দ ইত্যাদি জিজ্ঞাসার উত্তর দিতে অপারগতা প্রকাশ করেছেন।
অতঃপর উপজেলা প্রকৌশলী শফিউল ইসলামের নিকট রাস্তার অনিয়মের বিষয়ে মুঠোফোনে জানতে চাইলে, তিনি প্রথমে বলেন আমি ব্যস্ত আছি পরে কথা বলব। এরপর ঘন্টা দুয়েক পর আবার ফোন দিলে তিনি রাগান্বিত স্বরে বলেন নিউজ তো হয়েছে সেটা দেখে করেন আমি কোন কথা বলতে পারবো না বলে ফোনের লাইন ডিস কানেক্ট করে দেন।
ঠিকাদার নাসিমুল ইসলামের ০১৭১৬১২৪৪২১ফোন নাম্বারে বারবার কল দিলেও তিনি রিসিভ না করায় তাঁর মন্তব্য নেওয়া যায়নি।
একইভাবে এলজিইডি নীলফামারী জেলা নির্বাহী প্রকৌশলী ফিরোজ হাসান বলেন রাস্তার সংস্কার বিষয়ে বেশ কয়েকজন ফোন করেছে। জরুরি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

নীলফামারীর ডিমলায় রাস্তা সংস্কারে অনিয়ম এলাকাবাসীর মানববন্ধন

Update Time : ০৫:১৭:৪৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪

মশিয়ার রহমান, নীলফামারী প্রতিনিধি।

পাকা রাস্তা সংস্কারে নানাবিধ অনিয়মের প্রতিবাদে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলাধীন পশ্চিম ছাতনাই ইউনিয়নের ঠাকুরগঞ্জ ও কালীগঞ্জ এলাকাবাসীরা মানববন্ধন করেছে।
শনিবার (১৮মে) সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন থেকে এলাকাবাসী সাংবাদিকদের জানান, ঠাকুরগঞ্জ বাজার থেকে কালীগঞ্জ বাজার পর্যন্ত সাড়ে চার কিঃমিঃ পাকা রাস্তা পুনঃমেরামতের জন্য টেন্ডার হয়। এই মেরামতের কাজ পান “মেসার্স নাছিমুল একরাম” নামে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। গত ৪/৫ মাস যাবৎ রাস্তা খোরা ও রোলিং করা এবং প্রাইড কোড দেওয়াসহ কার্পেটিং-এ বিভিন্ন ধরনের অনিয়ম দেখা গেছে। অনিয়ম ও নিম্নমানের কাজের বিষয়ে ঠিকাদারের লোকজনকে বললে তারা আমাদেরকে উপেক্ষা করে হুমকি ধামকি দিয়া বলে এরচেয়ে বেশি কাজ হবে না। তোমাদের কিছু করার থাকলে করেন। কি অনিয়ম ও নিম্নমানের কাজ করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান প্রশ্ন করা হলে মানববন্ধনে দাড়ানো জাহাঙ্গীর আলম ও মামুনুর রশীদ মামুন বলেন, প্রথম থেকে যখন রাস্তা খোরা শুরু করে তখন কোন কোন জায়গায় রাস্তা ট্রাক্টর দিয়ে চাষ করেছে আবার কোন জায়গায় চাষ করে নাই। শুধু পিচ ঢেলেছে। মাঝেমাঝে নতুন পুরাতন খোয়া দেওয়া হলেও নতুন খোয়া গুলো ছিল নিম্নমানের ইটের। এছাড়াও ইটের খোয়ার সাথে ডাশ মাটি মিশ্রিত ছিল। এর প্রতিবাদ করায় কন্ডাক্টারের লোকজন মারমুখী হয়ে আসে। তারাই আবার থানায় চাঁদাবাজির মামলা করেছে। এভাবে ঠিকাদারের লোকজন হুমকি ও চাঁদাবাজির ভয় দেখিয়ে ধামাচাপা দিয়ে রাস্তার কাজ করছে।
তারা আরও বলেন, রাস্তায় যে পিচের কার্পেটিং করতেছে হাতদিয়ে তা উঠে যাচ্ছে। এমন হালকা কাজ করছে এরআগে এমন কাজ তারা কখনো দেখে নাই বলে অভিযোগ করেন।
এবিষয়ে রাস্তা দেখভালের দায়িত্বে থাকা উপসহকারী প্রকৌশলী আবু বক্কর ছিদ্দিক বিডিসমাচার২৪.কম পত্রিকাকে বলেন, উপজেলা প্রকৌশলীর আদেশ ব্যাতিত আমি কোন কমেন্টস করবো না। এমনকি তিনি রাস্তার কাজ কোন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান করেছে, কত বরাদ্দ ইত্যাদি জিজ্ঞাসার উত্তর দিতে অপারগতা প্রকাশ করেছেন।
অতঃপর উপজেলা প্রকৌশলী শফিউল ইসলামের নিকট রাস্তার অনিয়মের বিষয়ে মুঠোফোনে জানতে চাইলে, তিনি প্রথমে বলেন আমি ব্যস্ত আছি পরে কথা বলব। এরপর ঘন্টা দুয়েক পর আবার ফোন দিলে তিনি রাগান্বিত স্বরে বলেন নিউজ তো হয়েছে সেটা দেখে করেন আমি কোন কথা বলতে পারবো না বলে ফোনের লাইন ডিস কানেক্ট করে দেন।
ঠিকাদার নাসিমুল ইসলামের ০১৭১৬১২৪৪২১ফোন নাম্বারে বারবার কল দিলেও তিনি রিসিভ না করায় তাঁর মন্তব্য নেওয়া যায়নি।
একইভাবে এলজিইডি নীলফামারী জেলা নির্বাহী প্রকৌশলী ফিরোজ হাসান বলেন রাস্তার সংস্কার বিষয়ে বেশ কয়েকজন ফোন করেছে। জরুরি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।