নরসিংদীর পলাশের ঘোড়াশালে এক নারী সহকর্মীকে বাঁচাতে গিয়ে ট্রেনের ধাক্কায় এক তরুণের মৃত্যু হয়েছে। এ দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ওই তরুণীও।
.

মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ঘোড়াশাল ফ্লাগ রেলওয়ে স্টেশনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। পরে সন্ধ্যায় নরসিংদী রেলওয়ে ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তার লাশ উদ্ধার করে।

ট্রেনের ধাক্কায় নিহত ওই তরুণের নাম মো. সাইফুল ইসলাম (২৫)। তিনি নরসিংদীর শিবপুর উপজেলার ধানুয়া গ্রামের জামাল উদ্দিনের ছেলে। অন্যদিকে আহত ওই সহকর্মী নারীর নাম নিতু (১৮)। তারা দুজন পার্শ্ববর্তী গাজীপুরের কালীগঞ্জে চাকরি করতেন।
.
রেলওয়ে পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে তারা দুজন ঘোড়াশাল ফ্লাগ রেলওয়ে স্টেশনে ঘুরে বেড়াতে আসেন। প্রায় দুই ঘণ্টা তারা স্টেশনটির দক্ষিণ পাশের রেললাইনে বসে ছিলেন। এ সময় তাদের মধ্যে কিছু একটা নিয়ে মনোমালিন্য হয়। পরে বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে কিশোরগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী এগারসিন্দুর এক্সপ্রেস ওই স্টেশন অতিক্রম করার সময় নিতু ওই ট্রেনের সামনে গিয়ে দাঁড়ায়। কাছাকাছি ট্রেন চলে আসছে দেখেও নিতু না সরে যাওয়ায় তাকে বাঁচাতে এগিয়ে যান সাইফুল। নিতুকে সরাতে পারলেও ওই ট্রেনের ধাক্কায় সাইফুল রেললাইনের পাশে ছিটকে পড়েন। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।
.
অন্যদিকে দুর্ঘটনার সময় নিতুও আহত হলে তাকে স্থানীয় একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যান উপস্থিত লোকজন। পরে তাকে তার কর্মস্থলের তত্ত্বাবধানে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজধানী ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। আহত নিতুর বাড়ি সুনামগঞ্জের বদলপুর গ্রামে।
.
নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক ইমায়েদুল জাহিদী জানান, ট্রেনে কাটা পড়ে ওই তরুণের মৃত্যুর খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থল থেকে তার লাশ উদ্ধার করে ফাঁড়িতে নিয়ে এসেছি। তার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

fifteen − four =