দুর্নীতির প্রমাণ পেয়েছে তদন্ত কমিটি: বগুড়া শেরপুর পৌর মেয়রকে কারণ দর্শানো নোটিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৬:০৩:৪০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ এপ্রিল ২০২৪
  • / ৩০ Time View

শাহীন শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি:

গত ২৭ মার্চ স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মো. আব্দুর রহমান স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে জানানো হয়েছে বগুড়ার শেরপুর পৌরসভার মেয়র জানে আলম খোকার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ
প্রমাণিত হয়েছে বলে জানিয়েছে তদন্ত কমিটি। এজন্য তাঁকে কেন মেয়র পদ থেকে অপসারণ করা হবে না তা জানতে চেয়ে কারণ দর্শানোর চিঠি দেওয়া হয়েছে।
তদন্ত প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়, পৌর মেয়র জানে আলম খোকার বিরুদ্ধে আটটি অভিযোগ প্রমানিত হয়েছে। সেগুলো হলো, পৌরসভার মালিকানাধীন বিভিন্ন দোকান বরাদ্দের নামে অর্থ আত্মসাৎ, বিধি বহির্ভূতভাবে শেরপুর পৌরসভাধীন ধুনট মোড় বাস টার্মিনালের ২০২০
এবং ২০২১ সালের ইজারা মওকুফ, অনিয়মতান্ত্রিকভাবে মাষ্টাররোলে কর্মচারী নিয়োগ, জিপ গাড়ি মেরামতে ১০ লাখ টাকা ব্যয়, শেরপুর পৌর কিচেন মার্কেটটি ২০২১ সালের জুন মাসে হস্তান্তর করা হলেও ২২৮টি দোকান বরাদ্দ প্রদান না করা, পৌরসভার বিভিন্ন ক্রয়ে দুর্নীতি ও অনিয়ম, পৌরসভার গৃহকর অ্যাসেসমেন্ট দুর্নীতি এবং ইমারত ও ভূমির ওপর অতিরিক্ত কর আদায় করা।
উল্লেখ্য, শেরপুর পৌরসভার সান্যালপাড়া এলাকার বাসিন্দা নাজমুল হক লুলু ২০২৩ সালের ১৬ এপ্রিল স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের
স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দেন।
সেখানে তিনি পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে ২১টি বিষয়ে অর্থ আত্মসাৎ ও বিভিন্ন অনিয়ম দুর্নীতির বিষয় তুলে ধরেন। বিষয়টি তদন্ত করার জন্য রাজশাহী বিভাগের স্থানীয় সরকার বিভাগের পরিচালকের নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করা হয়। তদন্তে উপরোক্ত অভিযোগগুলো সত্য প্রমাণিত হয়েছে।
স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন ২০০৯ এর ধারা ৩২ এর উপধারা (১) (ঘ) অনুযায়ী অসদাচরণ ও ক্ষমতার অপব্যবহারের দায়ে তাঁকে কেন অপসারণ করা হবে না, এ বিষয়ে আগামী ১০ কর্মদিবসের মধ্যে লিখিত জবাব দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে।
এ বিষয়ে মেয়র জানে আলম খোকা বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে আনীত সব অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কারণ দর্শানোর জবাব দেওয়া হবে।’

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

দুর্নীতির প্রমাণ পেয়েছে তদন্ত কমিটি: বগুড়া শেরপুর পৌর মেয়রকে কারণ দর্শানো নোটিশ

Update Time : ০৬:০৩:৪০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ এপ্রিল ২০২৪

শাহীন শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি:

গত ২৭ মার্চ স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মো. আব্দুর রহমান স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে জানানো হয়েছে বগুড়ার শেরপুর পৌরসভার মেয়র জানে আলম খোকার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ
প্রমাণিত হয়েছে বলে জানিয়েছে তদন্ত কমিটি। এজন্য তাঁকে কেন মেয়র পদ থেকে অপসারণ করা হবে না তা জানতে চেয়ে কারণ দর্শানোর চিঠি দেওয়া হয়েছে।
তদন্ত প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়, পৌর মেয়র জানে আলম খোকার বিরুদ্ধে আটটি অভিযোগ প্রমানিত হয়েছে। সেগুলো হলো, পৌরসভার মালিকানাধীন বিভিন্ন দোকান বরাদ্দের নামে অর্থ আত্মসাৎ, বিধি বহির্ভূতভাবে শেরপুর পৌরসভাধীন ধুনট মোড় বাস টার্মিনালের ২০২০
এবং ২০২১ সালের ইজারা মওকুফ, অনিয়মতান্ত্রিকভাবে মাষ্টাররোলে কর্মচারী নিয়োগ, জিপ গাড়ি মেরামতে ১০ লাখ টাকা ব্যয়, শেরপুর পৌর কিচেন মার্কেটটি ২০২১ সালের জুন মাসে হস্তান্তর করা হলেও ২২৮টি দোকান বরাদ্দ প্রদান না করা, পৌরসভার বিভিন্ন ক্রয়ে দুর্নীতি ও অনিয়ম, পৌরসভার গৃহকর অ্যাসেসমেন্ট দুর্নীতি এবং ইমারত ও ভূমির ওপর অতিরিক্ত কর আদায় করা।
উল্লেখ্য, শেরপুর পৌরসভার সান্যালপাড়া এলাকার বাসিন্দা নাজমুল হক লুলু ২০২৩ সালের ১৬ এপ্রিল স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের
স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দেন।
সেখানে তিনি পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে ২১টি বিষয়ে অর্থ আত্মসাৎ ও বিভিন্ন অনিয়ম দুর্নীতির বিষয় তুলে ধরেন। বিষয়টি তদন্ত করার জন্য রাজশাহী বিভাগের স্থানীয় সরকার বিভাগের পরিচালকের নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করা হয়। তদন্তে উপরোক্ত অভিযোগগুলো সত্য প্রমাণিত হয়েছে।
স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন ২০০৯ এর ধারা ৩২ এর উপধারা (১) (ঘ) অনুযায়ী অসদাচরণ ও ক্ষমতার অপব্যবহারের দায়ে তাঁকে কেন অপসারণ করা হবে না, এ বিষয়ে আগামী ১০ কর্মদিবসের মধ্যে লিখিত জবাব দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে।
এ বিষয়ে মেয়র জানে আলম খোকা বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে আনীত সব অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কারণ দর্শানোর জবাব দেওয়া হবে।’