দুর্গাপুরে চাঁদা উঠানোকে কেন্দ্র করে আহত ১০,মোটরসাইকেল ভাঙচুর

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ১২:২৭:৩৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩ জুলাই ২০২০
  • / ১১৮ Time View

 

ইকবাল হাসান, নেত্রকোনা জেলা প্রতিনিধি:

নেত্রকোনার দুর্গাপুরে বালু বাহী ট্রাক, লড়ি থেকে চাঁদা উঠানোকে কেন্দ্র করে কৃষ্ণেরচর বাজারে বুধবার সকালে শ্রমিক নেতা শফিকুল ইসলামসহ শ্রমিকদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। এ সময় বলাই সরকার, শামীম আহমেদ, আরশাদ মিয়া, আবুল হাসেমসহ কমপক্ষে ১০জন আহত হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নেয়। দুই পক্ষের মধ্যে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে।

অভিযোগে জানা গেছে, জেলার দুর্গপুরের সোমেশ্বরী নদীর বালু মহাল থেকে জেলা সদরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান, লড়িতে করে বালু পরিবহন করা হয়। জেলার শ্যামগঞ্জ- বিরিশিরি সড়কে ওই সমস্ত যানবাহন থেকে বিভিন্ন সংগঠনের নামে চাঁদা উত্তোলন করছিল স্থানীয় কিছুলোক। চাাঁদা উত্তোলনে বিরোধতা করছিল নেত্রকোনা জেলা ট্রাক, ট্রাক্টর, কাভার্ড ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়ন নামে একটি সংগঠন। এ নিয়ে নেত্রকোনা জেলা মোটরযান কর্মচারী ইউনিয়নের সাথে ওই সংগঠনটির বিরোধের সৃষ্টি হয়। মঙ্গলবার রাতে জেলার দুর্গাপুরের বিরিশিরি এলাকায় দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। দুই শ্রমিক সংগঠনের লোকজন মূখোমূখি অবস্থানে চলে যায়। খবর পেয়ে দুর্গাপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নেয় এবং বুধবার সকালে দুই পক্ষকে নিয়ে একত্রে বসার কথা বলে।

বুধবার সকাল ১১টার দিকে নেত্রকোনা জেলা ট্রাক, ট্রাক্টর, কাভার্ড ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম সংগঠনের নেতাকর্মীদের নিয়ে দুর্গাপুর যাওয়ার পথে বিরিশিরি এলাকায় তাদের ওপর হামলা চালায় স্থানীয় কিছু শ্রমিক। এ সময় বলাই সরকার, শামীম আহমেদ, আরশাদ মিয়া, আবুল হাসেমসহ কমপক্ষে ১০জন আহত হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নেয়। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। হামলাকারীরা এ সময় তিনটি মোটর সাইকেল ভাঙচুর এবং দুইটি নিয়ে যায়।

নেত্রকোনা জেলা ট্রাক, ট্রাক্টর, কাভার্ড ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম বলেন, সরকার সড়কে চাঁদাবাজী বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে। কিন্তু অদৃশ্য শক্তিবলে নামে বেনামে কিছু সংগঠন সড়কে বালবিাহী ট্রাক, ট্রাক্টর প্রতি গাড়ি থেকে ৩০০ টাকা চাঁদা উত্তোলন করছে। আমারা চাঁদাবাজীর পক্ষে নই। প্রতিবাদ করায় মোটরযান কর্মচারী ইউনিয়নের লোকজন আমাকে হত্যার উদ্যেশে আমার ওপর হামলা করেছিল।

নেত্রকোনা জেলা মোটরযান কর্মচারী ইউনিয়নের যুগ্নসাধারণ সম্পাদক সিবলী সাদিক বলেন, আমাদের লোকজন কারো উপর হামলা করে নি। নিজেরা নিজেদের ওপর হামলা করে দায় আমাদের উপর চাপানোর চেষ্টা করছে।

দুর্গাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মিজানুর রহমান জানান, শ্রমিকদের দুই পক্ষের মধ্যে কিছুটা উত্তেজনা দেখা দিয়েছিল। দুই পক্ষকে তাদের সংগঠনের কাগজপত্র নিয়ে ইউএনও সাবের কাছে দেয়ার জন্য বলা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এলাকার পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

দুর্গাপুরে চাঁদা উঠানোকে কেন্দ্র করে আহত ১০,মোটরসাইকেল ভাঙচুর

Update Time : ১২:২৭:৩৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩ জুলাই ২০২০

 

ইকবাল হাসান, নেত্রকোনা জেলা প্রতিনিধি:

নেত্রকোনার দুর্গাপুরে বালু বাহী ট্রাক, লড়ি থেকে চাঁদা উঠানোকে কেন্দ্র করে কৃষ্ণেরচর বাজারে বুধবার সকালে শ্রমিক নেতা শফিকুল ইসলামসহ শ্রমিকদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। এ সময় বলাই সরকার, শামীম আহমেদ, আরশাদ মিয়া, আবুল হাসেমসহ কমপক্ষে ১০জন আহত হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নেয়। দুই পক্ষের মধ্যে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে।

অভিযোগে জানা গেছে, জেলার দুর্গপুরের সোমেশ্বরী নদীর বালু মহাল থেকে জেলা সদরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান, লড়িতে করে বালু পরিবহন করা হয়। জেলার শ্যামগঞ্জ- বিরিশিরি সড়কে ওই সমস্ত যানবাহন থেকে বিভিন্ন সংগঠনের নামে চাঁদা উত্তোলন করছিল স্থানীয় কিছুলোক। চাাঁদা উত্তোলনে বিরোধতা করছিল নেত্রকোনা জেলা ট্রাক, ট্রাক্টর, কাভার্ড ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়ন নামে একটি সংগঠন। এ নিয়ে নেত্রকোনা জেলা মোটরযান কর্মচারী ইউনিয়নের সাথে ওই সংগঠনটির বিরোধের সৃষ্টি হয়। মঙ্গলবার রাতে জেলার দুর্গাপুরের বিরিশিরি এলাকায় দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। দুই শ্রমিক সংগঠনের লোকজন মূখোমূখি অবস্থানে চলে যায়। খবর পেয়ে দুর্গাপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নেয় এবং বুধবার সকালে দুই পক্ষকে নিয়ে একত্রে বসার কথা বলে।

বুধবার সকাল ১১টার দিকে নেত্রকোনা জেলা ট্রাক, ট্রাক্টর, কাভার্ড ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম সংগঠনের নেতাকর্মীদের নিয়ে দুর্গাপুর যাওয়ার পথে বিরিশিরি এলাকায় তাদের ওপর হামলা চালায় স্থানীয় কিছু শ্রমিক। এ সময় বলাই সরকার, শামীম আহমেদ, আরশাদ মিয়া, আবুল হাসেমসহ কমপক্ষে ১০জন আহত হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নেয়। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। হামলাকারীরা এ সময় তিনটি মোটর সাইকেল ভাঙচুর এবং দুইটি নিয়ে যায়।

নেত্রকোনা জেলা ট্রাক, ট্রাক্টর, কাভার্ড ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম বলেন, সরকার সড়কে চাঁদাবাজী বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে। কিন্তু অদৃশ্য শক্তিবলে নামে বেনামে কিছু সংগঠন সড়কে বালবিাহী ট্রাক, ট্রাক্টর প্রতি গাড়ি থেকে ৩০০ টাকা চাঁদা উত্তোলন করছে। আমারা চাঁদাবাজীর পক্ষে নই। প্রতিবাদ করায় মোটরযান কর্মচারী ইউনিয়নের লোকজন আমাকে হত্যার উদ্যেশে আমার ওপর হামলা করেছিল।

নেত্রকোনা জেলা মোটরযান কর্মচারী ইউনিয়নের যুগ্নসাধারণ সম্পাদক সিবলী সাদিক বলেন, আমাদের লোকজন কারো উপর হামলা করে নি। নিজেরা নিজেদের ওপর হামলা করে দায় আমাদের উপর চাপানোর চেষ্টা করছে।

দুর্গাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মিজানুর রহমান জানান, শ্রমিকদের দুই পক্ষের মধ্যে কিছুটা উত্তেজনা দেখা দিয়েছিল। দুই পক্ষকে তাদের সংগঠনের কাগজপত্র নিয়ে ইউএনও সাবের কাছে দেয়ার জন্য বলা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এলাকার পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।