ঢামেক করোনা ইউনিটে ৫৪ দিনে ৭৭১ জনের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৭:৩৯:৪৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৭ জুন ২০২০
  • / ১০৮ Time View

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে করোনা ও করোনার উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। হাসপাতালটিতে একদিনে আরও ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে করোনা পজিটিভ ছিলেন দুইজন। অপর আটজন করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন।

শুরুর পর থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত করোনা ইউনিটে মৃত্যুবরণ করেছেন ৭৭১ জন রোগী। যাদের মধ্যে ১৭৩ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ ছিল। বাকিরা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। যারা মারা গেছেন তারা করোনা ইউনিটে ভর্তির ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই মৃত্যুবরণ করেছেন।

ঢামেক সূত্র জানায়, গত ২ মে হাসপাতালটিতে করোনা ইউনিট চালুর পর থেকে গড়ে প্রতিদিন ১৪ জন করে রোগী মারা যাচ্ছেন। করোনা ইউনিটে ২২ জুন পর্যন্ত চিকিৎসা নিতে ভর্তি হয়েছেন ৩ হাজার ৩৭০ জন রোগী। এরমধ্যে ১ হাজার ৩৪০ জন রোগী করোনা সংক্রমিত ছিলেন। ,

ভর্তি রোগীর সঙ্গে মৃত্যুর পর্যালোচনায় দেখা যায় ২১ শতাংশের বেশি রোগী মৃত্যুবরণ করেছেন। এছাড়া উপসর্গ আছে এমন অনেক রোগীদের করোনা পরীক্ষা মৃত্যুর আগে পরে করা হয়না বলেও অভিযোগ আছে। আর সাধারণ মৃত্যুর ক্ষেত্রেও টেস্ট করা হয়না। শুধুমাত্র চিকিৎসকদের পরামর্শ মতেই মৃত ব্যক্তির করোনা পরীক্ষা করা হয়।

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

ঢামেক করোনা ইউনিটে ৫৪ দিনে ৭৭১ জনের মৃত্যু

Update Time : ০৭:৩৯:৪৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৭ জুন ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে করোনা ও করোনার উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। হাসপাতালটিতে একদিনে আরও ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে করোনা পজিটিভ ছিলেন দুইজন। অপর আটজন করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন।

শুরুর পর থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত করোনা ইউনিটে মৃত্যুবরণ করেছেন ৭৭১ জন রোগী। যাদের মধ্যে ১৭৩ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ ছিল। বাকিরা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। যারা মারা গেছেন তারা করোনা ইউনিটে ভর্তির ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই মৃত্যুবরণ করেছেন।

ঢামেক সূত্র জানায়, গত ২ মে হাসপাতালটিতে করোনা ইউনিট চালুর পর থেকে গড়ে প্রতিদিন ১৪ জন করে রোগী মারা যাচ্ছেন। করোনা ইউনিটে ২২ জুন পর্যন্ত চিকিৎসা নিতে ভর্তি হয়েছেন ৩ হাজার ৩৭০ জন রোগী। এরমধ্যে ১ হাজার ৩৪০ জন রোগী করোনা সংক্রমিত ছিলেন। ,

ভর্তি রোগীর সঙ্গে মৃত্যুর পর্যালোচনায় দেখা যায় ২১ শতাংশের বেশি রোগী মৃত্যুবরণ করেছেন। এছাড়া উপসর্গ আছে এমন অনেক রোগীদের করোনা পরীক্ষা মৃত্যুর আগে পরে করা হয়না বলেও অভিযোগ আছে। আর সাধারণ মৃত্যুর ক্ষেত্রেও টেস্ট করা হয়না। শুধুমাত্র চিকিৎসকদের পরামর্শ মতেই মৃত ব্যক্তির করোনা পরীক্ষা করা হয়।