ড. লাফিফা জামাল ঢাবির শামসুন নাহার হলের নতুন প্রভোস্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০১:৫৩:১১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১
  • / ২০২ Time View

ঢাবি প্রতিনিধি:

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শামসুন নাহার হলের নতুন প্রভোস্ট হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রোবটিক্স অ্যান্ড মেকাট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. লাফিফা জামাল।

১৪ জুন(সোমবার) অধ্যাপক ড. লাফিফা জামালকে ঢাবির উপাচার্য ড. মো. আখতারুজ্জামান এ পদে নিয়োগ দেন।

লাফিফা এর আগে তিনি রোকেয়া হলের হাউজ টিউটরের দায়িত্বে ছিলেন। তিনি বাংলাদেশ রোবট অলিম্পিয়াড কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। একই সঙ্গে তিনি আন্তর্জাতিক রোবট অলিম্পিয়াডের কেন্দ্রীয় কমিটিরও একজন সদস্য।

তিনি বলেন, রোকেয়া হলে দীর্ঘ ১০ বছর কাজ করার কারণে হল পরিচালনায় আমার কিছু অভিজ্ঞতাও রয়েছে। শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন কারণে আবাসন সুবিধাটা ভালো পাচ্ছে না। আমি চেষ্টা করব আবাসন সুবিধাটা আরও জোরদার করার জন্য। এটা অবশ্য একদিনে করে ফেলা সম্ভব নয়, এটি একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়া। সে জন্য আমার প্রশাসনের সহযোগিতা লাগবে। শিক্ষার্থীদের ভালো পরিবেশ ও হলের সার্বিক উন্নয়নে কাজ করব।

উল্লেখ্য, একজন হল প্রভোস্টের মেয়াদ ৩ বছর। একজন শিক্ষক সর্বোচ্চ দুই মেয়াদে হল প্রভোস্ট হিসেবে থাকতে পারেন। হল প্রাধ্যক্ষরা প্রভোস্ট বাংলোসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা পান।

Please Share This Post in Your Social Media

ড. লাফিফা জামাল ঢাবির শামসুন নাহার হলের নতুন প্রভোস্ট

Update Time : ০১:৫৩:১১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১

ঢাবি প্রতিনিধি:

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শামসুন নাহার হলের নতুন প্রভোস্ট হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রোবটিক্স অ্যান্ড মেকাট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. লাফিফা জামাল।

১৪ জুন(সোমবার) অধ্যাপক ড. লাফিফা জামালকে ঢাবির উপাচার্য ড. মো. আখতারুজ্জামান এ পদে নিয়োগ দেন।

লাফিফা এর আগে তিনি রোকেয়া হলের হাউজ টিউটরের দায়িত্বে ছিলেন। তিনি বাংলাদেশ রোবট অলিম্পিয়াড কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। একই সঙ্গে তিনি আন্তর্জাতিক রোবট অলিম্পিয়াডের কেন্দ্রীয় কমিটিরও একজন সদস্য।

তিনি বলেন, রোকেয়া হলে দীর্ঘ ১০ বছর কাজ করার কারণে হল পরিচালনায় আমার কিছু অভিজ্ঞতাও রয়েছে। শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন কারণে আবাসন সুবিধাটা ভালো পাচ্ছে না। আমি চেষ্টা করব আবাসন সুবিধাটা আরও জোরদার করার জন্য। এটা অবশ্য একদিনে করে ফেলা সম্ভব নয়, এটি একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়া। সে জন্য আমার প্রশাসনের সহযোগিতা লাগবে। শিক্ষার্থীদের ভালো পরিবেশ ও হলের সার্বিক উন্নয়নে কাজ করব।

উল্লেখ্য, একজন হল প্রভোস্টের মেয়াদ ৩ বছর। একজন শিক্ষক সর্বোচ্চ দুই মেয়াদে হল প্রভোস্ট হিসেবে থাকতে পারেন। হল প্রাধ্যক্ষরা প্রভোস্ট বাংলোসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা পান।