ঠাকুরগাঁওয়ে পিসিআর ল্যাব ও আইসিইউ স্থাপনের দাবিতে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ১০:৫২:৪৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৮ জুন ২০২০
  • / ১২০ Time View
ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধিঃ
ঠাকুরগাঁও জেলায় করোনা ভাইরাস শনাক্তের জন্য পিসিআর ল্যাব স্থাপন ও আইসিইউ এর দাবি জানিয়ে মানববন্ধন করেছে ঠাকুরগাঁওবাসী।
.
১১ জুন সোমবার সকাল ১১ টায় করোনা প্রতিরোধে ঠাকুরগাঁও জেলাবাসীর ব্যানারে শহরের প্রাণকেন্দ্র চৌরাস্তায় রোদ উপেক্ষা করে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে স্বাস্থ্যবিধি মেনে মানবন্ধনে অংশগ্রহণ করে জেলার সর্বস্থতরের মানুষ।
.
ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধনে বক্তারা বলেন- করোনা ভাইরাসের কারনে বিপর্যস্ত গোটা বিশ্ব। নতুন ধরনের এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট এবং কার্যকরী কোন প্রতিষেধক বা টিকা যখন সুদূর প্রত্যাশী, রোগের বিস্তার রোধে অসহায় বিশ্ব যখন পুরোটাই নির্ভর করে আছে লকডাউন পদ্ধতি এবং সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার উপর। তা কার্যকর করতে হলে ল্যাব টেস্টের ভিত্তিতে সম্ভাব্য করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীকে চিহ্নিত করা এবং সে অনুযায়ী অন্যদের থেকে আলাদা রাখা। কিন্তু শুধু মাত্র টেস্ট কম হওয়ার কারনে ও রিপোর্ট পেতে বিলম্ব হওয়ার কারণে ঠাকুরগাঁও জেলাতে করোনা সংক্রমণ দিন ক’দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং শঙ্কা বাড়ছে মানুষের মাঝে।
.
বক্তারা আরও বলেন, এখন সারাদেশে করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হয়েছে। আমাদের প্রিয় ঠাকুরগাঁও জেলায় করোনা তার বিস্তার ব্যপক হারে ছড়িয়েছে। ঠাকুরগাঁও জেলাতে করোনা শনাক্তের জন্য পিসিআর ল্যাব না থাকায় নমুনা সংগ্রহ করে অন্য জেলায় পাঠাতে হচ্ছে।
.
এতে রিপোর্ট হাতে পেতে সময় লাগছে ৫ থেকে ৭ দিন। এর মধ্যে কোন ব্যক্তি করোনা সংক্রমিত হলো কিনা জানা যাচ্ছে না। ফলে আক্রান্ত ব্যক্তির আইসোলেশন বা চিকিৎসার সুযোগও তৈরি হচ্ছেনা।
.
এতে আক্রান্ত ব্যক্তি যেমন ঝুঁকিতে পড়েন এবং কখনো বা মারা যাচ্ছে। তেমনি অন্যদের মাঝে রোগটির সংক্রমন বেড়ে যায়। তাই অনতিবিলম্বে ঠাকুরগাঁওয়ে পিসিআর ল্যাব স্থাপনের দাবি জানিয়েছে ঠাকুরগাঁওবাসী।
সম্প্রতি ঠাকুরগাঁওয়ের আওয়ামীলীগ নেতা মো: রওশন করোনা ভাইরাসে মারা যাওয়ায় জেলার হাসপাতালে পিসিআর ল্যাব ও আইসিইউ না থাকার কারনকে দায়ী করছেন বক্তারা। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত থাকবে বলে জানান তারা।
.
এ মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, ঠাকুরগাও প্রেসক্লাবের সভাপতি মনসুর আলী, জেলা উদীচির সাধারন সম্পাদক রেজওয়ানুল হক রিজু, ত্যাল,গ্যাস খনিজ সম্পদ রক্ষা জাতীয় কমিটির জেলার সদস্য সচিব মাহাবুব আলম রুবেল, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নাজমুল হুদা শাহ্ মো: এ্যাপোলো, জেলা বিএনপির সহসভাপতি ওবায়দুল্লাহ মাসুদ,জেলা মটর মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক বেলাল হোসেন, উপজেরা সিপিবির সভাপতি আহসানুল হাবিব বাবু, জেলা উদীচীর সহ সভাপতি এম এস আহম্মেদ রাজু, নিরাপদ সড়ক চাই জেলার সভাপতি, আবু মহিউদ্দীন, জেলা ছাত্র ইউনিয়নে সভাপতি আবু বকর সিদ্দিক প্রমুখ।
.
প্রসঙ্গত : ঠাকুরগাঁওয়ে পিপি আর ল্যাব স্থাপন করা হলে উত্তরের পঞ্চগড়, নীলফামারীসহ ঠাকুরগাঁও জেলার সকল মানুষ এ সুবিধা পাবে বলে জেলার সচেতন মহল মনে করেন।
Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

ঠাকুরগাঁওয়ে পিসিআর ল্যাব ও আইসিইউ স্থাপনের দাবিতে মানববন্ধন

Update Time : ১০:৫২:৪৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৮ জুন ২০২০
ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধিঃ
ঠাকুরগাঁও জেলায় করোনা ভাইরাস শনাক্তের জন্য পিসিআর ল্যাব স্থাপন ও আইসিইউ এর দাবি জানিয়ে মানববন্ধন করেছে ঠাকুরগাঁওবাসী।
.
১১ জুন সোমবার সকাল ১১ টায় করোনা প্রতিরোধে ঠাকুরগাঁও জেলাবাসীর ব্যানারে শহরের প্রাণকেন্দ্র চৌরাস্তায় রোদ উপেক্ষা করে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে স্বাস্থ্যবিধি মেনে মানবন্ধনে অংশগ্রহণ করে জেলার সর্বস্থতরের মানুষ।
.
ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধনে বক্তারা বলেন- করোনা ভাইরাসের কারনে বিপর্যস্ত গোটা বিশ্ব। নতুন ধরনের এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট এবং কার্যকরী কোন প্রতিষেধক বা টিকা যখন সুদূর প্রত্যাশী, রোগের বিস্তার রোধে অসহায় বিশ্ব যখন পুরোটাই নির্ভর করে আছে লকডাউন পদ্ধতি এবং সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার উপর। তা কার্যকর করতে হলে ল্যাব টেস্টের ভিত্তিতে সম্ভাব্য করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীকে চিহ্নিত করা এবং সে অনুযায়ী অন্যদের থেকে আলাদা রাখা। কিন্তু শুধু মাত্র টেস্ট কম হওয়ার কারনে ও রিপোর্ট পেতে বিলম্ব হওয়ার কারণে ঠাকুরগাঁও জেলাতে করোনা সংক্রমণ দিন ক’দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং শঙ্কা বাড়ছে মানুষের মাঝে।
.
বক্তারা আরও বলেন, এখন সারাদেশে করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হয়েছে। আমাদের প্রিয় ঠাকুরগাঁও জেলায় করোনা তার বিস্তার ব্যপক হারে ছড়িয়েছে। ঠাকুরগাঁও জেলাতে করোনা শনাক্তের জন্য পিসিআর ল্যাব না থাকায় নমুনা সংগ্রহ করে অন্য জেলায় পাঠাতে হচ্ছে।
.
এতে রিপোর্ট হাতে পেতে সময় লাগছে ৫ থেকে ৭ দিন। এর মধ্যে কোন ব্যক্তি করোনা সংক্রমিত হলো কিনা জানা যাচ্ছে না। ফলে আক্রান্ত ব্যক্তির আইসোলেশন বা চিকিৎসার সুযোগও তৈরি হচ্ছেনা।
.
এতে আক্রান্ত ব্যক্তি যেমন ঝুঁকিতে পড়েন এবং কখনো বা মারা যাচ্ছে। তেমনি অন্যদের মাঝে রোগটির সংক্রমন বেড়ে যায়। তাই অনতিবিলম্বে ঠাকুরগাঁওয়ে পিসিআর ল্যাব স্থাপনের দাবি জানিয়েছে ঠাকুরগাঁওবাসী।
সম্প্রতি ঠাকুরগাঁওয়ের আওয়ামীলীগ নেতা মো: রওশন করোনা ভাইরাসে মারা যাওয়ায় জেলার হাসপাতালে পিসিআর ল্যাব ও আইসিইউ না থাকার কারনকে দায়ী করছেন বক্তারা। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত থাকবে বলে জানান তারা।
.
এ মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, ঠাকুরগাও প্রেসক্লাবের সভাপতি মনসুর আলী, জেলা উদীচির সাধারন সম্পাদক রেজওয়ানুল হক রিজু, ত্যাল,গ্যাস খনিজ সম্পদ রক্ষা জাতীয় কমিটির জেলার সদস্য সচিব মাহাবুব আলম রুবেল, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নাজমুল হুদা শাহ্ মো: এ্যাপোলো, জেলা বিএনপির সহসভাপতি ওবায়দুল্লাহ মাসুদ,জেলা মটর মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক বেলাল হোসেন, উপজেরা সিপিবির সভাপতি আহসানুল হাবিব বাবু, জেলা উদীচীর সহ সভাপতি এম এস আহম্মেদ রাজু, নিরাপদ সড়ক চাই জেলার সভাপতি, আবু মহিউদ্দীন, জেলা ছাত্র ইউনিয়নে সভাপতি আবু বকর সিদ্দিক প্রমুখ।
.
প্রসঙ্গত : ঠাকুরগাঁওয়ে পিপি আর ল্যাব স্থাপন করা হলে উত্তরের পঞ্চগড়, নীলফামারীসহ ঠাকুরগাঁও জেলার সকল মানুষ এ সুবিধা পাবে বলে জেলার সচেতন মহল মনে করেন।