‘টয়লেট’ করতে জঙ্গলে গিয়ে সন্তান প্রসব, জন্তুর পেটে গেল শিশু!

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৪:২৭:০১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুন ২০২০
  • / ১৩৩ Time View

নিজের বাড়িতে টয়লেট নেই। তাই মঙ্গলবার সকালে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে গিয়েছিলেন বাড়ির সামনের খোলা মাঠে। সেখানে গিয়েই সন্তান জন্মদেন ২৬ বছর বয়সী এক তরুণী। ব্যথায় ও আতঙ্কে সেখানেই জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন তিনি। জ্ঞান আসার পর দেখতে পান সদ্য জন্মে নেওয়া শিশুটি সেখানে আর নেই। কোনো বন্য জন্তু সেই বাচ্চাকে নিয়ে গেছে বলেই আশঙ্কা করছে তার পরিবার। এমন ভয়ঙ্কর ঘটনা ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের এক গ্রামে। চম্বল নামক এলাকার সেই গ্রামে নেই কোনো হাসপাতালও।

ভারতের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, বুধবার রাত পর্যন্ত জন্ম নেওয়া ওই পুত্র সন্তানের কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। শিল্পী চৌহান নামের ওই তরুণী প্রায় কয়েক ঘণ্টা জ্ঞান হারিয়ে সেখানেই পড়েছিলেন। পরিবারের লোকেরা তাঁকে খোঁজাখুঁজি শুরুর পর ওই এলাকায় গিয়ে দেখা মেলে তার। মাটিতেই রক্তে ভেসে যাচ্ছিল তার শরীর। পরে তাকে পাশের এলাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এখন তার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল।

শিল্পী চৌহান বলেন, আমি টয়লেট গিয়েছিলাম মাঠে। সেখানেই আমার প্রসব বেদনা শুরু হয়। আমি এক পুত্র সন্তানের জন্ম দিই। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই আমি জ্ঞান হারাই। প্রায় ২-৩ ঘণ্টা পর আমার পরিবারের সদস্যরা আমাকে খুঁজে পান। কিন্তু আমার সন্তান সেখানে ছিল না।

সূত্র: এই সময়।

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

‘টয়লেট’ করতে জঙ্গলে গিয়ে সন্তান প্রসব, জন্তুর পেটে গেল শিশু!

Update Time : ০৪:২৭:০১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুন ২০২০

নিজের বাড়িতে টয়লেট নেই। তাই মঙ্গলবার সকালে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে গিয়েছিলেন বাড়ির সামনের খোলা মাঠে। সেখানে গিয়েই সন্তান জন্মদেন ২৬ বছর বয়সী এক তরুণী। ব্যথায় ও আতঙ্কে সেখানেই জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন তিনি। জ্ঞান আসার পর দেখতে পান সদ্য জন্মে নেওয়া শিশুটি সেখানে আর নেই। কোনো বন্য জন্তু সেই বাচ্চাকে নিয়ে গেছে বলেই আশঙ্কা করছে তার পরিবার। এমন ভয়ঙ্কর ঘটনা ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের এক গ্রামে। চম্বল নামক এলাকার সেই গ্রামে নেই কোনো হাসপাতালও।

ভারতের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, বুধবার রাত পর্যন্ত জন্ম নেওয়া ওই পুত্র সন্তানের কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। শিল্পী চৌহান নামের ওই তরুণী প্রায় কয়েক ঘণ্টা জ্ঞান হারিয়ে সেখানেই পড়েছিলেন। পরিবারের লোকেরা তাঁকে খোঁজাখুঁজি শুরুর পর ওই এলাকায় গিয়ে দেখা মেলে তার। মাটিতেই রক্তে ভেসে যাচ্ছিল তার শরীর। পরে তাকে পাশের এলাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এখন তার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল।

শিল্পী চৌহান বলেন, আমি টয়লেট গিয়েছিলাম মাঠে। সেখানেই আমার প্রসব বেদনা শুরু হয়। আমি এক পুত্র সন্তানের জন্ম দিই। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই আমি জ্ঞান হারাই। প্রায় ২-৩ ঘণ্টা পর আমার পরিবারের সদস্যরা আমাকে খুঁজে পান। কিন্তু আমার সন্তান সেখানে ছিল না।

সূত্র: এই সময়।