চৌহালীতে যৌন নির্যাতন করে মহিলা গ্রাম পুলিশকে চাকরিচ্যুত!!

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০১:৪৩:০১ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ জুলাই ২০২০
  • / ১০৪৮ Time View
মো: ইমরুল হাসান শিকদার, চৌহালী প্রতিনিধি:
সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার উমারপুর ইউনিয়নের এক মহিলা গ্রাম পুলিশকে চাকরিচ্যুত করেছে উমারপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মতিন মন্ডল।
.
জানা যায়, গ্রাম পুলিশের চাকুরির দুই বছর পর থেকেই নানাভাবে কুপ্রস্তাব দেন চেয়ারম্যান। পরে মহিলাকে জোর করে যৌন নির্যাতন করেন চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন মন্ডল। পরে চেয়ারম্যান দিন রাত তার বাসায় থাকতে বললে ঔ মহিলা গ্রাম পুলিশ রাজি হয় না।
.
পরে বিষয়টি জানাজানি হলে চেয়ারম্যান সুকৌশলে তাকে চাকরিচ্যুত করেন। পরে গ্রাম পুলিশ চৌহালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার রবাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন। তাতেও কোন প্রতিকার পাইনি অসহায় গ্রাম পুলিশ। নানান অনিয়ম,দুর্নীতির বিরুদ্ধে গত ৮-৭-২০২০ তারিখে চেয়ারম্যান অপসারণ চেয়ে মানববন্ধন করেন উমারপুর ইউনিয়নের ৮ সদস্যসহ এলাকাবাসী। এসময় প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুল হাকিম মেম্বার বলেন, চেয়ারম্যান কোন বন্টন আমাদের না দিয়ে নিজের ইচ্ছা মতো তালিকা তৈরী করে, পরে তা বিক্রি করেন।
.
তিনি আরো বলেন, ভিজিডি কার্ডে অতিরিক্ত টাকা না দিলে কাউকে চাউল দেন না। চল্লিশ দিনের কর্মসূচিতে গরীব অসহায় মানুষের দিয়ে কাজ করিয়ে তাদের টাকা না দিয়ে নিজের প্যাকেটে ভরে।এতে কেউ যদি প্রতিবাদ করতে আসে, তার উপর নেমে আসে নির্যাতন। ভুক্তভোগী মহিলা গ্রাম পুলিশ বলেন, আমার চাকুরির দু- বছর পর থেকে আমাকে ভয় দেখিয়ে যৌন নির্যাতন করেন।
.
তিনি(চেয়ারম্যান) আমাকে দিন রাত তার বাসায় থাকতে বলেন,আমি রাজী হয় নাই দেখে সম্পন্ন মিথ্যা ও অন্যায়ভাবে আমাকে চাকরিচ্যুত করেন। তিনি বলেন এখনো আমাকে(01839447275) ফোন দিয়ে বলে, আমার কথা শুনলে তোর চাকুরিসহ বেতন ফেরত পাবি।
.
আমি চৌহালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেও কোন প্রতিকার পাই নাই। আমি গরীব মানুষ আপনারা আমার চাকুরি ফেরত দেওয়ার একটা ব্যবস্থা করেন।
এ বিষয়ে আব্দুল মমিন মন্ডল জানান, মিথ্যা কথা বলেছে, তার চরিত্র ভাল না তাই সকল গ্রাম পুলিশ তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল করে, এবং তা পরে তদন্ত তার বিরুদ্ধে তা আমার কাছে প্রমান আছে। তাকে আপনি এখনো ফোন দিয়ে কুপ্রস্তাব দেন এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন,আমি হাজ্বী মানুষ মিথ্যা কথা বলবো না, তাকে আমি কোন ফোন দেই নাই। সেই আমাকে ফোন দিয়ে বিরক্ত করে।

Please Share This Post in Your Social Media

চৌহালীতে যৌন নির্যাতন করে মহিলা গ্রাম পুলিশকে চাকরিচ্যুত!!

Update Time : ০১:৪৩:০১ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ জুলাই ২০২০
মো: ইমরুল হাসান শিকদার, চৌহালী প্রতিনিধি:
সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার উমারপুর ইউনিয়নের এক মহিলা গ্রাম পুলিশকে চাকরিচ্যুত করেছে উমারপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মতিন মন্ডল।
.
জানা যায়, গ্রাম পুলিশের চাকুরির দুই বছর পর থেকেই নানাভাবে কুপ্রস্তাব দেন চেয়ারম্যান। পরে মহিলাকে জোর করে যৌন নির্যাতন করেন চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন মন্ডল। পরে চেয়ারম্যান দিন রাত তার বাসায় থাকতে বললে ঔ মহিলা গ্রাম পুলিশ রাজি হয় না।
.
পরে বিষয়টি জানাজানি হলে চেয়ারম্যান সুকৌশলে তাকে চাকরিচ্যুত করেন। পরে গ্রাম পুলিশ চৌহালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার রবাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন। তাতেও কোন প্রতিকার পাইনি অসহায় গ্রাম পুলিশ। নানান অনিয়ম,দুর্নীতির বিরুদ্ধে গত ৮-৭-২০২০ তারিখে চেয়ারম্যান অপসারণ চেয়ে মানববন্ধন করেন উমারপুর ইউনিয়নের ৮ সদস্যসহ এলাকাবাসী। এসময় প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুল হাকিম মেম্বার বলেন, চেয়ারম্যান কোন বন্টন আমাদের না দিয়ে নিজের ইচ্ছা মতো তালিকা তৈরী করে, পরে তা বিক্রি করেন।
.
তিনি আরো বলেন, ভিজিডি কার্ডে অতিরিক্ত টাকা না দিলে কাউকে চাউল দেন না। চল্লিশ দিনের কর্মসূচিতে গরীব অসহায় মানুষের দিয়ে কাজ করিয়ে তাদের টাকা না দিয়ে নিজের প্যাকেটে ভরে।এতে কেউ যদি প্রতিবাদ করতে আসে, তার উপর নেমে আসে নির্যাতন। ভুক্তভোগী মহিলা গ্রাম পুলিশ বলেন, আমার চাকুরির দু- বছর পর থেকে আমাকে ভয় দেখিয়ে যৌন নির্যাতন করেন।
.
তিনি(চেয়ারম্যান) আমাকে দিন রাত তার বাসায় থাকতে বলেন,আমি রাজী হয় নাই দেখে সম্পন্ন মিথ্যা ও অন্যায়ভাবে আমাকে চাকরিচ্যুত করেন। তিনি বলেন এখনো আমাকে(01839447275) ফোন দিয়ে বলে, আমার কথা শুনলে তোর চাকুরিসহ বেতন ফেরত পাবি।
.
আমি চৌহালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেও কোন প্রতিকার পাই নাই। আমি গরীব মানুষ আপনারা আমার চাকুরি ফেরত দেওয়ার একটা ব্যবস্থা করেন।
এ বিষয়ে আব্দুল মমিন মন্ডল জানান, মিথ্যা কথা বলেছে, তার চরিত্র ভাল না তাই সকল গ্রাম পুলিশ তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল করে, এবং তা পরে তদন্ত তার বিরুদ্ধে তা আমার কাছে প্রমান আছে। তাকে আপনি এখনো ফোন দিয়ে কুপ্রস্তাব দেন এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন,আমি হাজ্বী মানুষ মিথ্যা কথা বলবো না, তাকে আমি কোন ফোন দেই নাই। সেই আমাকে ফোন দিয়ে বিরক্ত করে।