চাঁদপুর-৪ আসনে নৌকার মাঝি হতে চান তোফায়েল আহাম্মেদ ভূঁইয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ১২:০০:২৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর ২০২৩
  • / ৯৬ Time View

জেলা প্রতিনিধি

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য পদে চাঁদপুর-৪ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে রাজপথ কাঁপানো সাবেক ছাত্রনেতা মো. তোফায়েল আহাম্মেদ ভূঁইয়া দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন।

আজ মঙ্গলবার (২১ নভেম্বর) দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মনোনয়ন ফরম জমা দিবেন তিনি। এরআগে গতকাল সোমবার মনোনয়ন ফরম উত্তোলন করেন তোফায়েল আহাম্মেদ ভূঁইয়া।

জানা যায়, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের মাধ্যমে রাজনীতিতে হাতেখড়ি সাবেক এ ছাত্রলীগ নেতার। ১৯৮৪ সালে ফরিদগঞ্জ বঙ্গবন্ধু ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগের নির্বাচিত সভাপতি ছিলেন তিনি। তাঁর নেতৃত্বে উপজেলার ৩৭টি স্কুলে ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করা হয়। তিনি ১৯৮৪-৮৫ সালে গঠিত ফরিদগঞ্জ থানা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক ছিলেন। ১৯৮৫ সালে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ১৯৮৬ সালে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন।

পরবর্তীতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। সেখানেও ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন। ১৯৮৭-১৯৮৮ সালে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কিমিটিতে (হিরু-নির্মল কমিটি) সদস্য ছিলেন। এছাড়া বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের (হাজী মুকবুল-বাহাউদ্দিন-নাছিম কমিটি) প্রতিষ্ঠাতা সদস্য তিনি। এছাড়া তিনি গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ছিলেন।

তোফায়েল আহাম্মেদ ভূঁইয়া এ প্রতিনিধিক বলেন, ‘সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে ফরিদগঞ্জবাসীকে নৌকার জয় উপহার দিতে চাই। ফরিদগঞ্জবাসীর উন্নয়নে নৌকার জয়ের কোন বিকল্প নেই। স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে হলে সবাইকে নৌকার সঙ্গেই থাকতে হবে। নির্বাচনে উৎসব মুখোর পরিবেশ ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম বিতরণ করায়, তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা ও সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের কে ধন্যবাদ জানান।’

তিনি আরও বলেন, ‘দলের প্রয়োজনে নেতৃবৃন্দ যেসময় যেভাবে আমার কাছে সহযোগিতা চেয়েছেন আমি চেষ্টা করেছি সে অনুসারে দলের কাজ করতে। ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক থাকার সময় কেন্দ্রীয় সকল নির্দেশনা সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করেছি। নানা কর্মসূচি সফল বাস্তবায়নের মধ্যে দিয়ে স্বৈরাচার এরশাদের বিরুদ্ধে ফরিদগঞ্জের রাজপথ কাঁপিয়ে তুলেছি।’

সংসদ নির্বাচনে প্রার্থীতা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হবো জনগণের কল্যাণে কাজ করার জন্যে। বিশেষ করে ফরিদগঞ্জের অবহেলিত জনগণ যেনো তাদের কাঙ্খিত উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত না হয় সে বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্যে আমি প্রাণপন চেষ্টা করবো। ফরিদগঞ্জের স্কুল-কলেজ, রাস্তা-ঘাট, মসজিদ-মাদ্রাসা, গভীর নলকূপ স্থাপনসহ সামাজিক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সরকারিভাবে প্রাপ্ত বরাদ্ধ সুষম বন্টন করবো। অনিয়ম, দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করে সকল কার্যক্রম দুর্নীতি মুক্ত রাখবো।’

সকলের কাছে দোয়া ও সহযোগিতা চেয়ে তিনি আরও বলেন, ‘কথা দিচ্ছি যদি আপনাদের ভোটে জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হতে পারি তাহলে আপনাদের দেওয়া আমানতের খেয়ানত করবো না। ফরিদগঞ্জবাসীর কাছে আমি দোয়া ও সহযোগিতা চাই।’

প্রসঙ্গত, ফরিদগঞ্জ উপজেলার ১৫নং রুপসা উত্তর ইউনিয়নের পশ্চিম গাব্দের গাঁও গ্রামের মৃত. সালামত উল্ল্যাহ ভূঁইয়ার ছেলে মো. তোফায়েল আহাম্মেদ ভূঁইয়া। শিক্ষা জীবনে তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএসএস (সম্মান) পাশ করেন।

তিনি প্রথম শ্রেণির ঠিকাদার, সরবরাহকারী ও আমদানিকারক। এছাড়াও তিনি ১৪নং ফরিদগঞ্জ দক্ষিণ ইউনিয়নের কালির বাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ ও ১৫নং রুপসা উত্তর ইউনিয়নের গাব্দের গাঁও মরহুম ছালামত উল্ল্যাহ ভূঁইয়া এতিম খানা ও ফোরকানিয়া মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা।

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

চাঁদপুর-৪ আসনে নৌকার মাঝি হতে চান তোফায়েল আহাম্মেদ ভূঁইয়া

Update Time : ১২:০০:২৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর ২০২৩

জেলা প্রতিনিধি

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য পদে চাঁদপুর-৪ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে রাজপথ কাঁপানো সাবেক ছাত্রনেতা মো. তোফায়েল আহাম্মেদ ভূঁইয়া দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন।

আজ মঙ্গলবার (২১ নভেম্বর) দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মনোনয়ন ফরম জমা দিবেন তিনি। এরআগে গতকাল সোমবার মনোনয়ন ফরম উত্তোলন করেন তোফায়েল আহাম্মেদ ভূঁইয়া।

জানা যায়, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের মাধ্যমে রাজনীতিতে হাতেখড়ি সাবেক এ ছাত্রলীগ নেতার। ১৯৮৪ সালে ফরিদগঞ্জ বঙ্গবন্ধু ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগের নির্বাচিত সভাপতি ছিলেন তিনি। তাঁর নেতৃত্বে উপজেলার ৩৭টি স্কুলে ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করা হয়। তিনি ১৯৮৪-৮৫ সালে গঠিত ফরিদগঞ্জ থানা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক ছিলেন। ১৯৮৫ সালে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ১৯৮৬ সালে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন।

পরবর্তীতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। সেখানেও ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন। ১৯৮৭-১৯৮৮ সালে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কিমিটিতে (হিরু-নির্মল কমিটি) সদস্য ছিলেন। এছাড়া বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের (হাজী মুকবুল-বাহাউদ্দিন-নাছিম কমিটি) প্রতিষ্ঠাতা সদস্য তিনি। এছাড়া তিনি গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ছিলেন।

তোফায়েল আহাম্মেদ ভূঁইয়া এ প্রতিনিধিক বলেন, ‘সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে ফরিদগঞ্জবাসীকে নৌকার জয় উপহার দিতে চাই। ফরিদগঞ্জবাসীর উন্নয়নে নৌকার জয়ের কোন বিকল্প নেই। স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে হলে সবাইকে নৌকার সঙ্গেই থাকতে হবে। নির্বাচনে উৎসব মুখোর পরিবেশ ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম বিতরণ করায়, তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা ও সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের কে ধন্যবাদ জানান।’

তিনি আরও বলেন, ‘দলের প্রয়োজনে নেতৃবৃন্দ যেসময় যেভাবে আমার কাছে সহযোগিতা চেয়েছেন আমি চেষ্টা করেছি সে অনুসারে দলের কাজ করতে। ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক থাকার সময় কেন্দ্রীয় সকল নির্দেশনা সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করেছি। নানা কর্মসূচি সফল বাস্তবায়নের মধ্যে দিয়ে স্বৈরাচার এরশাদের বিরুদ্ধে ফরিদগঞ্জের রাজপথ কাঁপিয়ে তুলেছি।’

সংসদ নির্বাচনে প্রার্থীতা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হবো জনগণের কল্যাণে কাজ করার জন্যে। বিশেষ করে ফরিদগঞ্জের অবহেলিত জনগণ যেনো তাদের কাঙ্খিত উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত না হয় সে বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্যে আমি প্রাণপন চেষ্টা করবো। ফরিদগঞ্জের স্কুল-কলেজ, রাস্তা-ঘাট, মসজিদ-মাদ্রাসা, গভীর নলকূপ স্থাপনসহ সামাজিক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সরকারিভাবে প্রাপ্ত বরাদ্ধ সুষম বন্টন করবো। অনিয়ম, দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করে সকল কার্যক্রম দুর্নীতি মুক্ত রাখবো।’

সকলের কাছে দোয়া ও সহযোগিতা চেয়ে তিনি আরও বলেন, ‘কথা দিচ্ছি যদি আপনাদের ভোটে জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হতে পারি তাহলে আপনাদের দেওয়া আমানতের খেয়ানত করবো না। ফরিদগঞ্জবাসীর কাছে আমি দোয়া ও সহযোগিতা চাই।’

প্রসঙ্গত, ফরিদগঞ্জ উপজেলার ১৫নং রুপসা উত্তর ইউনিয়নের পশ্চিম গাব্দের গাঁও গ্রামের মৃত. সালামত উল্ল্যাহ ভূঁইয়ার ছেলে মো. তোফায়েল আহাম্মেদ ভূঁইয়া। শিক্ষা জীবনে তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএসএস (সম্মান) পাশ করেন।

তিনি প্রথম শ্রেণির ঠিকাদার, সরবরাহকারী ও আমদানিকারক। এছাড়াও তিনি ১৪নং ফরিদগঞ্জ দক্ষিণ ইউনিয়নের কালির বাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ ও ১৫নং রুপসা উত্তর ইউনিয়নের গাব্দের গাঁও মরহুম ছালামত উল্ল্যাহ ভূঁইয়া এতিম খানা ও ফোরকানিয়া মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা।