Homeক‌্যাম্পাসখুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে হলের তালা ভেঙে মধ্যরাতে ছাত্রীদের বিক্ষোভ

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে হলের তালা ভেঙে মধ্যরাতে ছাত্রীদের বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক:

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) অপরাজিতা হলে ইলেকট্রিক সরঞ্জাম জব্দ করার নোটিশের প্রতিবাদ ও বিভিন্ন দাবিতে বিক্ষোভ করছেন হলটির আবাসিক ছাত্রীরা।

মঙ্গলবার (১৬ আগ্সট) রাত ১০টার পরে ছাত্রীরা হলের তালা ভেঙে বাইরে বেরিয়ে আসেন। এসময় তারা হল প্রাধ্যক্ষের বাজে আচরণ ও হুমকির প্রতিবাদ জানান। ছাত্রীরা ‘হল আমাদের অধিকার, সুযোগ নয়’, ‘প্রভোস্ট কই, প্রভোস্ট কই, প্রভোস্টকে আসতে হবে’ স্লোগান দিতে থাকেন।

রাত ১০টা ৫০ মিনিটের দিকে ঘটনাস্থলে আসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রবিষয়ক পরিচালক ও সহকারী পরিচালকরা। তারা আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন। তবে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন। রাত ১২টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ছাত্রীদের বিক্ষোভ চলছিল। বিক্ষোভ শুরুর দেড় ঘণ্টা পার হলেও সেখানে আসেননি হল প্রাধ্যক্ষ।

এদিকে, অপরাজিতা হলের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে যোগ দিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব হলের আবাসিক শিক্ষার্থীরাও ওই হলের ফটকে অবস্থান নিয়েছেন। তারা তালা ভেঙে বের হওয়ার চেষ্টা করছেন।

আন্দোলনরত ছাত্রীরা জানান, হলের প্রতিটি কক্ষ থেকে ইলেকট্রিক রাইস কুকার সাতদিনের মধ্যে সরানোর নির্দেশ দিয়েছেন হল প্রাধ্যক্ষ। কিন্তু ছাত্রীরা এটা করতে রাজি নন। এ নিয়ে বিভিন্ন মিটিংয়ে ছাত্রীদের বাবা-মা তুলে কথা বলেছেন প্রাধ্যক্ষ। তিনি ছাত্রীদের ভয়-ভীতি দেখান এবং হুমকি দেন। ছাত্রীরা ভয়ে এর প্রতিবাদও করতে পারেন না।

তারা অভিযোগ করেন, ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট দেওয়া নিয়েও ছাত্রীদেরকে হয়রানি করে হল প্রশাসন। কোনো বিষয়ে অভিযোগ করলেও তার সমাধান করে না। এমনকি হল নিয়মিত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নও করা হয় না।

জানা গেছে, মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) অপরাজিতা হলের এক ছাত্রী বটি দিয়ে নিজের গলা কাটার চেষ্টা করেন। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়।

এরপর ছাত্রীদের রান্না করার সরঞ্জাম জব্দ করার নির্দেশ দেয় হল কর্তৃপক্ষ। ইলেকট্রনিক ডিভাইস, রাইস কুকার, হিটার এগুলো সরানোর নির্দেশ দেওয়া হয়। অন্যথায় ছাত্রীদের হলের সিট বাতিলের হুঁশিয়ারি দেয় হল প্রশাসন। এছাড়া কিছুদিন আগে ফেসবুকে কমেন্ট করাকে কেন্দ্র করে এক ছাত্রীকে ৪৫ মিনিট ধরে ধমকানো ও শাসানো হয়।

ছাত্রীরা অভিযোগ করেন, একজন সহকারী প্রাধ্যক্ষ ছাত্রীদের হুমকি দিয়ে বলেন, হল তোমাদের সুযোগ, অধিকার না। যার সমস্যা সে হল থেকে নেমে যাও।

জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রবিষয়ক পরিচালক অধ্যাপক মো. শরীফ হাসান লিমন বলেন, ‘আজকে যেহেতু একটি অনভিপ্রেত ঘটনা (আত্মহত্যার চেষ্টা) ঘটেছে, তার পরিপ্রেক্ষিতে হল কর্তৃপক্ষ এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কিন্তু তিনি হয়তো শিক্ষার্থীদের সেন্টিমেন্ট বুঝতে পারেননি। আশাকরি, প্রাধ্যক্ষ আসলে সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।’

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular