কালবৈশাখীর শিলাবৃষ্টিতে ভাঙল বাসাবাড়ির জানালা-গাড়ির কাঁচ

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ১১:২৯:২৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১ এপ্রিল ২০২৪
  • / ৩৫ Time View

 

সিলেটে হঠাৎ কালবৈশাখী ঝড়ের সঙ্গে শিলাবৃষ্টি হয়েছে। আকাশ থেকে পড়া বড় বড় শিলাখণ্ডের আঘাতে নগরের অনেক বাসাবাড়ির জানালার কাচ ভেঙে গেছে। যানবাহনেরও ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

রোববার (৩১ মার্চ) রাত সাড়ে ১০টার দিকে সিলেট নগরী ও আশেপাশের উপজেলায় প্রায় ১৫ মিনিট ধরে বয়ে যায় এই কালবৈশাখি ঝড়। এসময় বড় বড় শিলাখণ্ডের আঘাতে অনেকের বসতবাড়ি, ফসলী জমির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, শিলার ওজন ছিল প্রায় আধা কেজি। বৃষ্টির সময় চারদিকে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। রোববার রাত সাড়ে ১০টার পর ১০ থেকে ১৫ মিনিটের কালবৈশাখী ঝড় ও শিলাবৃষ্টির কারণে বিভিন্ন জায়গায় ঘরবাড়ি ও গাছপালা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়া নগরীর চৌহাট্টা এলাকায় শিলা পড়ে একটি প্রাইভেটকারের কাচ ভেঙে গেছে।

সিলেট নগরীর বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দারা জানান, প্রচণ্ড শব্দে মনে হয়েছিল ঘরের টিন ছিদ্র হয়ে যাচ্ছে। এ রকম বড় শিলাবৃষ্টি আগে কখনো দেখেননি।

এদিকে, অনেককে দেখা গেছে শিলাবৃষ্টির ওজন পরিমাপ করতে। ডিজিটাল স্কেলে মাপা ওই শিলার ওজন ছিল ২০০ গ্রামের বেশি।

এত বড় শিলা মাথায় পড়লে যে কারওই মাথা ফেটে যাওয়ার কথা। তবে এখন পর্যন্ত এই ঝড়ে আহতের খবর মেলেনি। তবে তখন রাস্তায় থাকা গাড়ি, সিএনজি চালিত অটোরিকশার ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। কোনটির সামনের কাঁচ ভেঙেছে তো কোনো গাড়ির পেছনে। অনেকের বাড়ির টিনের চাল আবার ফুটো হয়ে যায় এতবড় ও ওজনের শিলার আঘাতে।

সিলেট আবহাওয়া অধিদপ্তরের সহকারী আবহাওয়াবিদ শাহ মো. সজীব হোসাইন বলেন, বছরের এই সময়ে ঝড়ের সঙ্গে বৃষ্টিকে কালবৈশাখি বলা হয়ে থাকে। কালবৈশাখিতে সাধারণত শিলাবৃষ্টি হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

কালবৈশাখীর শিলাবৃষ্টিতে ভাঙল বাসাবাড়ির জানালা-গাড়ির কাঁচ

Update Time : ১১:২৯:২৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১ এপ্রিল ২০২৪

 

সিলেটে হঠাৎ কালবৈশাখী ঝড়ের সঙ্গে শিলাবৃষ্টি হয়েছে। আকাশ থেকে পড়া বড় বড় শিলাখণ্ডের আঘাতে নগরের অনেক বাসাবাড়ির জানালার কাচ ভেঙে গেছে। যানবাহনেরও ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

রোববার (৩১ মার্চ) রাত সাড়ে ১০টার দিকে সিলেট নগরী ও আশেপাশের উপজেলায় প্রায় ১৫ মিনিট ধরে বয়ে যায় এই কালবৈশাখি ঝড়। এসময় বড় বড় শিলাখণ্ডের আঘাতে অনেকের বসতবাড়ি, ফসলী জমির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, শিলার ওজন ছিল প্রায় আধা কেজি। বৃষ্টির সময় চারদিকে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। রোববার রাত সাড়ে ১০টার পর ১০ থেকে ১৫ মিনিটের কালবৈশাখী ঝড় ও শিলাবৃষ্টির কারণে বিভিন্ন জায়গায় ঘরবাড়ি ও গাছপালা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়া নগরীর চৌহাট্টা এলাকায় শিলা পড়ে একটি প্রাইভেটকারের কাচ ভেঙে গেছে।

সিলেট নগরীর বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দারা জানান, প্রচণ্ড শব্দে মনে হয়েছিল ঘরের টিন ছিদ্র হয়ে যাচ্ছে। এ রকম বড় শিলাবৃষ্টি আগে কখনো দেখেননি।

এদিকে, অনেককে দেখা গেছে শিলাবৃষ্টির ওজন পরিমাপ করতে। ডিজিটাল স্কেলে মাপা ওই শিলার ওজন ছিল ২০০ গ্রামের বেশি।

এত বড় শিলা মাথায় পড়লে যে কারওই মাথা ফেটে যাওয়ার কথা। তবে এখন পর্যন্ত এই ঝড়ে আহতের খবর মেলেনি। তবে তখন রাস্তায় থাকা গাড়ি, সিএনজি চালিত অটোরিকশার ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। কোনটির সামনের কাঁচ ভেঙেছে তো কোনো গাড়ির পেছনে। অনেকের বাড়ির টিনের চাল আবার ফুটো হয়ে যায় এতবড় ও ওজনের শিলার আঘাতে।

সিলেট আবহাওয়া অধিদপ্তরের সহকারী আবহাওয়াবিদ শাহ মো. সজীব হোসাইন বলেন, বছরের এই সময়ে ঝড়ের সঙ্গে বৃষ্টিকে কালবৈশাখি বলা হয়ে থাকে। কালবৈশাখিতে সাধারণত শিলাবৃষ্টি হয়।