করোনা আক্রান্ত একই পরিবারের ৬ জনের করোনামুক্ত হওয়ার গল্প

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৬:৫৯:৩১ অপরাহ্ন, সোমবার, ৮ জুন ২০২০
  • / ১৪৮৫ Time View

 

শেখ মহিউদ্দিন রাসেল :

আলহামদুল্লিাহ, পরম করুনাময় রাব্বুল আলামিনের কাছে। যার দয়া ও করুনায়ই আমি ও আমার ৪ সন্তানসহ পরিবারের ৬ জন আজ করোনামুক্ত। নিজেদেরকে করোনা যুদ্ধে জয়ী বলবো না। আল্লাহর দয়ায়ই কঠিন এ ভাইরাস থেকে মুক্ত হয়েছি। সকল জয়ের মালিক তিনি এবং সকল প্রসংশাই তাঁরই। আল্লাহ একজন আছে বলেই তাঁর প্রমাণ এখানে। বিভিন্ন ক্ষেত্রে আমরা পজেটিভ খুঁজি কিন্তু করোনার ক্ষেত্রে নেগেটিভই সফলতা। করোনা পজেটিভ থেকে করোনা নেগেটিভ। এ এক কঠিন বাস্তবতা। এ বাস্তবতাকে সঙ্গী করে অতিক্রম করতে পেরেছি শুধুমাত্র ইবাদত আর দৃঢ় মনোবলের কারণেই। আমি বলবো কোন ওষুধ উপাত্ত নয় স্বয়ং আল্লাহ তায়ালা এ কঠিন সময়টিতে আমাদের প্রতি সদয় হয়েছেন। তা না হলে একি সাথে সকলেই করোনা পজেটিভ আবার একই সাথে ৬ জনই নেগেটিভ। এ এক কাকতালীয় আচর্য্যজনক ঘটনা।


আমরা দু’জন স্বামী-স্ত্রী সরকারি চাকুরীজীবী। সঙ্গত কারণেই সরকারের নির্দেশনা পালনে ব্রত। তারই অংশ হিসেবে জেলা পরিষদ জেলার বিভিন্ন শ্রেণী পেশার জনগণকে দু’দফায় ত্রাণ বিতরণ করে। বিতরণ কাজে আমিও অংশ নেই। আমার স্ত্রীও তাঁর স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের উপবৃত্তির তালিকা প্রণয়নেও আক্কাছ আলী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যেতে হয়েছে। দু’জনেরই গন্তব্য ছিলো আবার একই বাসার প্রাণে। সব উপকরণ পড়েও সতর্কতার মধ্যে চলেও ভাইরাস যে কখন নিজেদের দেহে বাসা বেঁধেছে তা জানা ছিল না। শরীর একটু খারাপ লাগায় ছুটি নিয়ে অফিসে যাওয়া বন্ধ করে দেই। ১৪ মে আমার ও স্ত্রী রোজিনা হাবিবের জ্বর ,সর্দি, শরীর ব্যাথা দেখা দেয়। ভাবলাম মৌসুমের ভাইরাস জ¦র। বুঝে উঠতে না উঠতেই বড় ছেলে শেখ আরিফ মহিউদ্দিন (১৫), শেখ আসিফ মহিউদ্দিন (১৩), শেখ আবিদ মহিউদ্দিন (৯) ও আমেনা বিনতে মহিউদ্দিন (৩ বছর ৩মাস) সকলেরই জ¦র, সর্দি, বমি ও ক’জনের পেট খারাপ দেখা দেয়।

বিষয়টি স্ত্রী শ্যালক সুমনকে জানায়। তাঁর কথামতে আর সময়ক্ষেপণ না করেই সিভিল সার্জন ডা: সাখাওয়াত উল্লাহ সাহেবের সাথে আলাপ করি এবং তিনি হাসপাতালে যেতে বলেন। আমি এতে বাঁধসাধি যে, ওদেরকে নিয়ে হাসপাতালে গিয়ে নমুনা দেয়া সম্ভব না। প্রয়োজনে নমুনা দেব না কিন্তু হাসপাতালে নিয়ে যাবো না বলে সিদ্ধান্ত নেই। তিনি বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে আমলে নেন। মুহুর্তের মধ্যে সন্তানদের সবাইকে দূরুত্ব বজায় রেখে অবস্থান করার জন্য বলি। সবার বাটি, প্লেট, ইত্যাদি আলাদা করে দেই। কেউ কাউকে স্পর্শ না করার জন্য তাদের বলি। ছোট মেয়েটা ঘুরে ফিরে আমাদের কাছে। শুধুই কান্নাকাটি করে। এক ছাদের নীচে দু’টি বেড রুম ও ড্রইং রুম মেঝে মিলিয়ে ৫টি বেডে আলাদাভাবে ৬ জনের থাকার ব্যবস্থা করি। বাচ্ছাটাকে তাঁর থেকে একটু দূরে রাখি এবং নিজেদের মনোবল শক্ত রেখে আমরা দু’জনেই তাদের মাথায় পানি দেই এবং লেবু, দারচিনি, এলাচ, লং, আদা, কালিজিরা, তেজপাতা পানিতে দেই। ঝাল দেয়া পানি বাটিতে করে তোয়ালিয়া, গামছা মাথার উপর দিয়ে নাক ও মুখের সামনে নিয়ে ভাপ নেই দিনে অন্তত: ৪ বার। ওরা নিতে চাইতো না, তারপরও চেষ্টা বিফলে যায়নি।

কান্নাকাটি করলেও ছোট মেয়েটার মাথা ধরে বাটি মুখের সামনে দিয়ে রাখতাম। ভাপ নেয়া এ টক, তিতো পানি আমরা ৫ জন পান করি আর বড় ছেলের গলা ব্যাথার কারণে লবন দিয়ে উক্ত পানি গড়গড়া করাতাম। ছোট মেয়েটা কে হালকা গরম পানি পান করাতাম। নমুনার রেজাল্ট যাই হোক না কেনো পজেটিভ ভেবেই যথারীতি চিকিতসা শুরু করে দিয়েছি। স্ত্রীর নাকে গন্ধ থাকার কারণে সেও লবন মিশ্রিত পানি দিয়ে গড়গড়া করতো। পেট খারাপ থাকার কারনে ওদের দু’একজনকে গরম পানি দেইনি কয়েকদিন। তবে এসএমসির ওরস্যালাইন দেয়া হতো। রং চা, গরুর গরম দুধ পান করাতাম। স্ত্রী রোজি বলতো ফ্রিজ খুললে ঠান্ডা বাস্প গায়ে ও মুখে লাগলে খুব খারাপ লাগে। পরে অবশ্য মুখে মাক্স পড়ে দূর থেকে ফ্রিজ খোলা হতো। ফল মালটা, শাক সবজি ভালভাবে ধোয়া ও সিদ্ধ করা হতো। সকলের আলাদা পোষাক, বিছানা দেয়া হয়েছে। প্রতিদিনই আমি তা রৌদে দিতাম জীবানু ধংসের জন্য। এরই মধ্যে বাসার মেঝে বিøসিং পাউডার দিয়ে নিজেই ধুয়ে নেই। সকলের হাত সাবান এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে ধোয়া হতো। তার মধ্যে ওষুধ হিসেবে napa 500mg, বমির জন্য omidon 10mg। শ্বাসকষ্টের জন্য monas 10mg খাই। তবে কারো শ্বাসকষ্ট ছিল না। গলাব্যাথাও তেমন ছিল না। সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা: সৈয়দ আহমেদ কাজল ভাইয়ের পরামর্শ নেই। তিনি fexo 120mg যোগ করার জন্য বলেন প্রতিদিন রাতে ১টা বড়দের বেলায়। পাশাপাশি আমার জন্য ডায়াবেটিক্স diatrol 80mg ও d-lina 5mg গ্যাসটিকের pantonix 20-20mg চলবে জানান। ছোট বাচ্চার জন্য সিরাপ prosma। সিভিল সার্জন এর কথামতে আমি ডা: সাজেদা পলিন ম্যাডামের সাথে কথা বলি। ১৭ জুন সকালে সদর হাসপাতাল থেকে জনৈক ডা: আমাকে কল করেন এবং একেক করে ৬ জনের নাম, জন্ম তারিখ, পেশা, মোবাইল নম্বর, ঠিকানা নেন। ওই দিন দুপুর ২ টায় দুই জন স্বাস্থ্য সহকারী বাসায় এসে আমাদের সকলের নমুনা সংগ্রহ করেন। নমুনা সংগ্রহের সময় তাদের পিপিই ড্রেস পড়া দেখে ছোট বাচ্চারা ভয়ে কেঁদে ওঠে এবং নমুনা দিতে নারাজ।

অতঃপর স্বাস্থ্যসহকারীরা কাঠির মাধ্যমে গলা থেকে লালা সংগ্রহ করেন। তখন অধিকাংশরাই বমি করে দেই। এতে কয়েকটি রোজা রাখা সম্ভব হয়নি। এবার রিপোর্টের অপেক্ষার পালা। প্রহর গুনছি রিপোর্টের জন্য আর ওদের, নিজেদের সেবা ওভাবেই চালাচ্ছি। এখন বাচ্চারা বুঝেছে যে, তাদের কঠিন অসুখ হয়েছে। ছোট মেয়েটাও এবার গামছা দিয়েই ভাপ নেয় দুষ্টমির ছলে। কোন ঠান্ডা পানি নয় কুসুম গরম করে সবাই পানি পান করি। তখন আমার ইচ্ছা ছিলো অসুখ আমার হোক ওদের কারো যেনো না হয়। আমি একা আলাদা সরে থাকতে পারবো আর ওর মা’য়ের হলে সন্তানদের সেবা করতে পারবে না। বিভিন্ন ধরনের শংকা নিয়েই রিপোর্টের জন্য দিনগুনছি আর ইবাদত করছি। খারাপ লাগতো তখন যখন ফজরের নামাজ পড়ে ওদের দিকে তাকাতাম। বাসাটা যেনো একটা মিনি হাসপাতাল। যে যার জায়গায় পড়ে আছে। ছোট মেয়েটা তার মা’য়ের সাথে, আবার আমার কোলে। শুধুই যন্ত্রনা কান্নাকাটি। এরই মধ্যে আমার জ¦র ভালো হয়ে গেছে; মনে হয়েছে সুস্থ বোধ করছি। স্ত্রী চরম অসুস্থ হয়ে পড়ে। বাচ্চাদের কারো জ¦র কিছুটা কমলেও আবার কারো পেটখারাপ থাকে, আবার বমি করে। একটা না একটা উপসর্গ থাকেই। প্রতিটা রাতের বেশী সময় আমরা দু’জনেই সজাগ ছিলাম। কপাল ধরে ওদের অবস্থা, শ^াসপ্রশ^াস সঞ্চালন লক্ষ্য করতাম। পরে অবশ্য হাত ধুয়ে নিতাম। তখন আমি বিষয়গুলো কঠিনভাবে সামলাই। এর মধ্যে অনেক আত্মীয়-স্বজন জেনে যায় আমাদের নমুনা নেয়া হয়েছে। তাদের সাথে কথা বলা, নিজেদের সেবা, রান্নাবান্না সবমিলিয়ে এক কঠিন বাস্তবতায় আমরা।
স্ত্রী রোজী বলে খবর নিতে বলতো রিপোর্ট এসেছে কিনা। আমি নিবো কিনা আবার পিছিয়ে যাই ভয়ে। যদি না খারাপ রিপোর্ট আসে। ২০ মে দুপুর অনুমান ২টা। ডা: সাজেদা পলিন বলছি, আপনাদের ৬ জনেরই করোনা রিপোর্ট পজেটিভ এসেছে। আমি অপ্রস্তুত ছিলাম।

মুহুর্তের মধ্যে যেনো মাথায় বাজ পড়লো। এ কথাটাই মনে হয়েছে আমার জীবনের সবচেয়ে কঠিন বার্তা। বিষয়টি স্ত্রীকে জানালাম। সে আমাকে শান্তনা দিলো আল্লাহ যা করে ভালই করে। ওদেরকে জানতে দেইনি। দু’জনেই সিদ্ধান্ত নিলাম। আল্লাহ ভরসা। আমরা মনোবল এইভাবে শক্ত রাখলাম যে, আমাদের কিছুই হয়নি। আমরা যদি শারীরিকভাবে ভেঙ্গে পড়ি তা হলে সন্তানদের বাচাঁতে পারবো না। এই ভেবে নিজেদের সংযত করলাম। এরই মধ্যে সিভিল সার্জন ও ডা: পলিন আপা জানালো আমাদের এ সময়টা কিভাবে চলতে হবে। তিনি আমার মেসেঞ্জারে দিকনির্দেশনা ও ভিটামিন জাতীয় ঔষধের নাম দেন teb-zorate 60, Ten e cap 200mg, teb- araitovo6t b। বাচ্চাদের জন্য zinc সিরাপ/ zinc b teb আর যা খাচ্ছি ওষুধ তা চলবে জানান। মুহুর্তেই চারিদিকে বিষয়টি চাউর হয়ে যায়। ফেইসবুক, অনলাইন মিডিয়াসহ সবর্ত্রই যেন ভাইরাল হয়ে পড়ে। এদিকে দু’জনের মোবাইলে অনবরত কল আসতেই থাকে। বিষয়টি আমি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী কর্মকতা মহোদয়কে জানাই। তারা আমাকে পরামর্শ ও শান্তনা দেন। এরপর থেকেই মোদের ও ওদের চিকিসা সেবাযতœ আরও বাড়িয়ে দেই। ভাগ্যিস আমরা রিপোর্ট পজেটিভ আসার আগেই চিকিসা ব্যবস্থা নিয়ে আসছি। এটা ছিল আমাদের সুস্থতার টার্নিংপয়েন্ট। এর কারণে আমি ও আমার স্ত্রী এখন অনেকটা সুস্থবোধ করছি। পজেটিভ রিপোর্টের পর বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি সংস্থার বিরামহীন ফোন আসছে। ঢাকা স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, ঢাকা শিশু হাসপাতাল, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়, জেলা প্রশাসন, জেলা পরিষদ, এসপি অফিস, গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআই, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস, সদর মডেল থানা, সিভিল সার্জন অফিস, উপজেলা স্বাস্থ্য ক্লিনিক, সদর হাসপাতালসহ বিভিন্ন সংস্থা থেকে বিভিন্ন তথ্য নাম, জন্ম তারিখ, পেশা, মোবাইল নম্বর, ঠিকানা, নমুনা ও পজেটিভ হওয়ার তারিখ, শারীরিক অবস্থা ইত্যাদ্দি তথ্য নেন। দু’জনে আমরা সরকারি চাকুরি করাতে হয়তো অতিরিক্ত কিছু সংস্থা তথ্য নিয়েছে।

পজেটিভ রিপোর্টের প্রথম দিন বিকেলে এলাকার রানা নামে এক সন্ত্রাসী আওয়াজ তুলে আমার বাসাকে দেখিয়ে করোনা হয়েছেরে- করোনা হয়েছেরেসহ আরো অনেক বাজে কথা বলে উপহাস করতে থাকে। তখন বিষয়টি আমার নজরে আসে। এতে বুঝতে পারলাম আমাদের বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হয়ে গেছে। এতে খুব কষ্ট পেয়ে নিজের মধ্যে বিষয়টি চেপে রাখি। আমার সাথে দীর্ঘদিন অভিমান করে থাকা বড়ভাই শেখ মহসিন ওষুধ ও খাবার দেয়ার জন্য পাগলের মতো ছুটে আসে বাসা প্রাঙ্গনে। বাসায় তা দেয়ার সময় মড়ার ওপর খাড়ার ঘা’য়ের মতো এলাকার রানা নামে ওই যুবক প্রচন্ডভাবে বাঁধা দেয়। তা নিয়ে হতাশভাই আমার। কথা কাটাকাটি ও বাঁধা উপেক্ষা করে আমাকে খাদ্যসামগ্রী দিয়ে যায়। তখন তাঁর দরদ উজার করা আবেগ দু’ভাইয়ের মধ্যে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। রানার বিষয়টি আমি ৯৯৯ নম্বরে জানালে আবার এ ধরনের আচরণ করলে তাক্ষনিক তাদেরকে জানাতে বলেন। জানাই চাঁদপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নাসির উদ্দিনকে।

তিনি জানান, করোনা আক্রান্ত বাড়িতে পুলিশ যেতে ও আপনার সাথে কথা বলতে পারবে না। আমি বলেছি পাশের বাড়ি তাঁর। তিনি আমার কাছে তাঁর টেলিফোন নম্বর চান। থানার করোনা সংশ্লিষ্ট কাজের দায়িত্বপ্রাপ্ত অফিসার এস আই আওলাদ সাহেবকে জানালে তিনি রানাকে টেলিফোনে শতর্ক করে দেন। অ্যাডিশনাল এসপির স্টেনো আমার চাচাতো ভাই মোসলেউদ্দিনকেও বিষয়টি জানাই সেও ওসি (তদন্ত)কে জানায়। কিন্তু পুলিশ আসার কোন দৃশ্যই আজও চোখে পড়েনি। বিষয়টি জেনে সাংবাদিক সোহেল রুশদীও রানাকে টেলিফোনে সতর্ক করে দেন। বাঁধাদানকারী সোহেল রানা ভুল করেছে তাঁর পক্ষ থেকে আর করবে না বলে জানানো হয়। নিজের পরিবারের এ অবস্থা তা নিয়েই ছিলো মাথাব্যাথা। এহেন পরিস্থিতিতে আর বাড়াবাড়ি না করাটাই সঠিক মনে করেছি। এক সময় সাংবাদিকতা করেছি। তাই হয়তো মিডিয়াগুলো আমাকে ভালোভাবেই চিনতো ও জানতো।

তারা বেশ আন্তরিকতা দেখিয়েছে আমার ছবি ও অনেকে নাম এড়িয়ে গিয়ে। এরই মধ্যে আমার ডান পা ফুলে ফোড়াঁর মত সৃষ্টি হয়। যার ছবি তুলে ডাক্তারকে পাঠাই। তিনি চিন্তিত হয়ে পড়েন এবং দ্রুত ডায়াবেটিক মাপার জন্য বলেন। আমি এ নিয়ে চরম হতাশ হয়ে পড়ি । কখনও গুলোকো লিডার মেশিন দিয়ে মেপে দেখিনি। এখন মেশিন পাবো কোথায়, মাপবোইবা কিভাবে। যা ডাক্তারকে জানাই এমনকি সিভিল সার্জন মহোদয়ের সাথে আলাপ করি। কাউকে পাঠাতে তিনি অপারগতা প্রকাশ করেন এবং ডা: সাজেদা পলিন আপা জানান অবস্থা খারাপ হলে সদর হাসপাতালে আমাকে ভর্তি হওয়ার জন্য। নিরুপায় হয়ে অনেকটা ঘাবড়ে গিয়ে বিষয়টি নিয়ে আমি জেলা প্রশাসক মো: মাজেদুর রহমান খান, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ¦ ওচমান গণি পাটওয়ারী, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম দুলাল পাটওয়ারী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) এসএম জাকারিয়া মহোদয়কে ফোনে জানাই। তারা বিষয়টি নিয়ে সিভিল সার্জন ও কর্তব্যরত ডাক্তারের সাথে কথা বলেন।

জনবলের অভাবের কারণে সম্ভব হয়নি লোক পাঠানো। তবে ডাক্তার এন্টিবায়োটিক ও মালিশ এবং ডায়াবেটিকস ওষধ বাড়িয়ে দিয়েছেন। ডায়াবেটিক হাসাপাতালের ডা: খবির সাহেবও পরামর্শ দেন। পরে অবশ্য সহোদর বড়ভাই মহসিন ডায়াবেটিক মেশিন দিয়ে যায় এবং ভিডিও কলের মাধ্যমে চালানোর বিষয়টি দেখান। আমি মেশিনটি চালানোর চেষ্টা করেও সফল হইনি। এক পর্যায়ে মেশিনটি নষ্ট করে ফেলি। ডায়াবেটিক মাপার বিষয়ে বড়বোন নুরজাহান বেগম কুমকুম আপা ফেইসবুকে সহযোগিতা চাইলে অনেকেই নিজস্ব মেশিনের কথা বলেন। এরই মধ্যে চাঁদমুখের সাধারণ সম্পাদক এইচএম জাকির সংগঠনের সভাপতির সাথে আলাপ করলে জসিম শেখ ভাই একটি মেশিন কিউআরসির মেহেদীর মাধ্যমে বাসায় পাঠান। এ বিষয়ে বাল্যবন্ধু ইউএনবির সাংবাদিক রাশেদ শাহরিয়ার পলাশও পরামর্শ দেন। ফরিদগঞ্জ বাড়ি যমুনা টিভির ঢাকাস্থ সাংবাদিক শাহাদাত ভাই তাঁর পরিবারের সদস্যরা আক্রান্ত হয়ে ভালো হওয়ায় ফোনে তাঁর কাছ থেকে পরামর্শ নেই। মেশিন চালানোর বিষয়ে ডায়াবেটিকস হাসপাতালের কর্মকর্তা উজ্জল ভাইও পরামর্শ দেন। অনেক রক্তক্ষরণ হয়েছে আমার কিন্ত মেশিনে উঠেনি পরিসংখ্যান। এরই মধ্যে শেখ আরিফ, আমেনার জ্বর ভালো হয়ে যায়। তবে কাশি ও সর্দি লেগেই আছে সকলের। শেখ আসিফ ও শেখ আবিদের হালকা জ্বর  ও পেটখারাপ, বুমির বেগ ছিলো। তাদেরকে দিনের মাঝে রৌদে ছাদে নিয়ে যেতাম কিছুক্ষনের জন্য। তবে জ্বর কখনও মেপে দেখিনি। কপালে হাত দিয়েই অনুমান করতাম। প্রতিদিন নাক দিয়ে লম্বা নিশস নিয়ে তা আটকিয়ে আবার মুখ দিয়ে দম ছেড়েছি অন্তত: দশ বার। ফেইসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে করোনা থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য যা পেয়েছি তাই করেছি।

সিভিল সার্জন জানালেন, সরকারি সিদ্ধান্ত হলো এখন ১৪ দিন পর দ্বিতীয় নমুনা নেয়া। তাকে জানালাম বাচ্চারা আলাদাভাবে থাকছে দ্বিতীয় নমুনা নেয়া হলে তাদেরকে একত্রে রাখা যেতো। ৩১ মে হয় চৌদ্দ দিন। ১ জুন নমুনা নিবে বলে জানায়। অবশেষে ওই দিন দুপুরে নমুনা নেন আর তাদের ব্যবহৃত পিপিই, অন্যান্য সামগ্রী বাসায়ই পুড়িয়ে ফেলেন। ভাগ্য কি সহায় বলতে হবে। পরদিন ২ জুন থেকে বাড়ি গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করা বন্ধ হয়ে যায় সংগ্রহকারীগণ অসুস্থ হওয়ার কারণে। এবার দ্বিতীয় রিপোর্টের অপেক্ষায়। রুটিনমাফিক হালকা কুসুম গরম পানি খাওয়া, নিয়মিত গরম ভাপ নেয়া, লবন আবার ভিনেগার মিশ্রিত পানি দিয়ে গড়গড়া করা, প্রচুর পানি পান করা, রং চা, গ্রীণ টি পান করা, শরীর দুর্বলতা কাটানোর জন্য ওরস্যালাইন খাওয়া, ভিটামিন সি ও ডি যুক্ত খাবার, ফল, শাকসবজি খাওয়া, বাচ্চাদের সিভিট ট্যাবলেট খাওয়া, কসুম গরম পানি দিয়ে গোসল করা, জ¦রের কারণে মাথায় ঠান্ডা পানি ও গা মুছিয়ে দেয়া ইত্যাদ্দি রুটিনমাফিক চলছিল। এর জন্য আমার স্ত্রী রোজির অবদানের কথা আমি কখনও অস্বীকার করতে পারবো না। নিজের চিন্তা না করে আমাদের পাচঁ জনের পিছনে গাঁধাখাটুনি খেটেছে। আল্লাহ সহায় থাকাতে তাঁর উছিলায়ই আমাদের আজকের সুস্থ্যতা। তার মনোবল অটল থাকাতে ঘরনামক মিনি হাসপাতালটা আজ একসুখী বসতঘরে ফিরে এসেছে। আল্লাহ তাঁকে নেক হায়াত দান করুক।

আর এখন এ কথাটিই মনে পড়ছে,
“সংসার সুখের হয় রমণীর গুনে
গুনবতী স্বামী যদি থাকে তাঁর সনে”
সন্তানদের সকলকে নিয়েই নামাজের জামাত আর ইবাদত করেছি। নামাজের মছলায় তাদের মা’য়ের আহাজারি আল্লাহ শুনেছে। পর্যায়ক্রমে সকলেই সুস্থ হয়ে উঠি। তবে বাচ্চাদের সামান্য কাঁিশ,হাঁছি রয়েছে। আশা করি তাও সেরে যাবে।

পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান স্যারের পাঠানো ফল ফলাদি, শুশুরবাড়ী থেকে পাঠানো ঈদের বাজার দিয়ে সেরেছি ঈদ আয়োজন। এডিসি মাহমুদ জামান স্যার সব সময় খোঁজ নিতেন এবং সব ধরণের সহযোগিতার করার বার বার ইচ্ছা পোষন করেন। অনেকেই অনেক কিছু পাঠাতে চেয়েছে আমি বারণ করে দেই। প্রতিবেশীরা খোঁজখবর না নিলেও আমার বাসার দিকে তাদের চাওনি ছিল বেশ লক্ষ্যনীয়। মনে হয়েছে নিজেরা বুঝি অনেক অপরাধ করে ফেলেছি। ঘটনা জানার পর থেকে চারিদিকের বাসার জানালাও খুলেনি অনেকে এখন পর্যন্তও। আবার এলাকার কেউ আমাকে দুর থেকে বাসায় দেখা মাত্রই খোঁজ নিয়েছেন। আবার অনেকের বাঁকা চোখের চাওনি আমাকে করেছে হতবাক। অনেকে আবার এই সুযোগে ক্ষোভ ও প্রতিহিংসার বহি:প্রকাশ ঘটিয়েছেন ভিন্ন কায়দায়। বাসাটি তাদের কাছে দূর থেকে দেখার একটি দুর্লভ বস্তুতে পরিণত হয়েছে। বাসায়ই সন্তানদের নিয়ে ঈদের জামাত করি। খাবার নিয়ে এগিয়ে আসে ভায়রা মাহবুব ও তাঁর স্ত্রী লোপা। তাদের সরবরাহকৃত গরুর দুধে ক্লান্তি দূর হয়ে যায় নিমিষেই। ভাই মিজানুর রহমানও বাজার নিয়ে হাজির হয়। বড় ভাই সোলেমান শেখ ওরফে ছলু ভাই, ছোট ভাই নাজমুল, সংবাদকর্মী মাঈনুল ও এলাকার জাহাংগীর এবং হাফেজ মাওলানা মাকসুদ হুজুর, তাজুল ইসলাম বেপারী, রহিম বেপারী, রুবেল এসে খোজঁখবর নিয়েছেন।

৪ জুন বিকেলে ডা: সাজেদা পলিন আপা জানান আপনাদের সকলের রিপোর্ট এসেছে। তিনি রিপোর্টের কপি আমার মোবাইল মেসেঞ্জারে পাঠান এবং আরো এক সপ্তাহ বিশ্রামে থাকার জন্য বলেন। মনটা ভরে গেলো আর মনে হলো এটাই আমার জীবনের সবচেয়ে আনন্দের বার্তা। নিজের অজান্তে চোখে জল এসে যায়, এ হলো আনন্দ, আনন্দের ফোঁটা। তা আমি মুহুর্তের মধ্যে সবাইকে জানাই এবং তা ফেইসবুকে দেই। তো ওই আগের মতই শুরু হলো মানুষের প্রাণঢালা ভালোবাসার প্রতিফলন মোবাইল কলে এবং ফেইসবুকে। সকলে জেনেছে দ্বিতীয় রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। তারপরও অনেকে আমাদের প্রতি স্বাভাবিক হচ্ছে না। বহু দূরত্ব রেখেই কথা বলছে। আমাকে দেখামাত্র মনে হচ্ছে এক আতংক। ডান পায়ের ফোঁড়া শুকিয়ে যাচ্ছে, অদ্যাবদি আর মাপা হলো না ডায়াবেটিকস। যা নিয়ে আমি তখন খুবই চিন্তিত ছিলাম। এখন অবশ্য চিন্তামুক্ত। নেগেটিভ হওয়ার পরও মহসিন ভাই আমার,আমাকে বাসায় দেখতে এসেছেন ওষধপত্র ও খাবার দাবার নিয়ে। আল্লাহ ভাইটির সহায় হোক।

দু’বোন আমার। খবর শুনে তাদের হতাশা দেখেছি। মা, বাবা থাকলে যেমনটি করতেন ঠিক তেমন ভালবাসা ফুটে উঠেছে তাদের মাঝে। আমাদের মন খারাপ হবে তাই মনোবল শক্ত রাখার জন্য প্রতিনিয়ত ফোন করে বুঝিয়েছে। নুরুন্নাহার বেগম হাওয়া আপা ঢাকা থাকেন। হয়ত: চোখের জলে দু’জনের কাপড় ভিজে গেছে কিন্তু পরানের ভাইকে বুঝতে দেয়নি। সহোদর বড় ভাই শেখ মহসিন, পান্না ভাবী,ভাতিজা নিরব,নির্জর শুনে হাউমাউ করে সকলেই কাঁেদন। আমি তাদের বুঝাতে চেষ্টা করেছি। পরক্ষণেই ভাই আমার ছুটে আসে ভাইয়ের প্রাণে। মা, বাবা নেই আমার। খবর শুনে মুহুর্তের মধ্যে শশুরবাড়ি ফরিদপুরে থাকা বয়স্ক শশুড় ও শাশুড়ি, বড় ও ছোট ভাইসহ সবাই চিন্তিত হয়ে পড়ে। প্রতিনিয়ত খোঁজখবর নিয়েছেন, দোয়া করেছেন। মা ও বাবার মতই তাদের ভূমিকাও ছিল অপরীসীম। সেই সুদুর ফরিদপুর থেকে ঈদে টাকা পাঠিয়েছেন বাজার করার জন্য। প্রতিদিন ৫/৬বার ফোন করে খোঁজ নিয়েছেন। জ্বর হয়েছে তখন নমুনা দিতে চাইনি। শ্যালক শরীয়তপুর থানায় কর্মরত এস আই গোলজার আলম সুমনের কথায়ই করোনার নমুনা দেই। সঠিক সময়ে তাঁর পরামর্শ সত্যিই অনেক কাজে এসেছে। ভাইয়ের মতই কাজ করেছে সে। ঠিকই সে পুলিশের দায়িত্ব পালন করেছে তবে মনটা পড়ে ছিলো চাঁদপুরের এখানটায়। অনেকের কাছে করোনা মানেই মৃত্যু অবধারিত। আমি মনে করি করোনা কিছুই না যদি একে গরম দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করা যায়, রুটিন মাফিক উল্লেখিত ব্যবস্থাগুলো নেয়া যায়। তবে বয়স্কদের বেলায় অন্যকোন রোগ থাকলে একটু ঝুঁকিপূর্ণ।

এই দুর্যোগ মুহুর্তে স্বাস্থ্যগত যাদের সহযোগিতা পেয়েছি বিশেষ করে, বক্ষব্যধি ক্লিনিকের ল্যাব টেকনিশিয়ান সাখাওয়াত হোসেন (বর্তমানে করোনা আক্রান্ত), সদর উপজেলার স্বাস্থ্য সুপারভাইজার বাবুল চক্রবর্তী, উপসহকারী কমিউনিটি স্বাস্থ্য কর্মকর্তা এ কে এম মাসুদুর রহমান ও ইউনুছ রিয়াজ। এ ৫ ভাই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আমাদের নমুনা সংগ্রহ করেছেন। সিভিল সার্জন মো: সাখাওয়াত উল্লাহ, সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা: সাজেদা পলিন, সহকারি সার্জন ডা: মাসুদ রানা, মেডিক্যাল অফিসার ডা: সৈয়দ আহমেদ কাজল। এর মধ্যে ডা: সাজেদা পলিন ও ডা: মাসুদ রানা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। যতবার পরামর্শ চেয়েছি ততবার উত্তর দিয়েছে ডা: পলিন আপা। ধন্যবাদ নয় অন্তর থেকে দোয়া করি আল্লাহ তাদের ও তাদেও পরিবারকে হেফাজত করুক। এরা সকলেই তাদের কর্মে প্রমাণ দিয়েছেন মানবতার জন্যই তাঁরা।

পাশাপাশি স্মরণ করছি, ফোনে, ফেইবুকে, ইমু, মেসেঞ্জারসহ বিভিন্ন মাধ্যমে শত শত শুভাকাংঙ্খী, আত্মীয়-স্বজন দরদউজার করা ভালোবাসা, দোয়ার বার্তা জানিয়েছেন। করোনা থেকে সুস্থ্য হয়েছে এমন ভিডিও অনেকে পাঠিয়েছেন। যা অনেক কাজে এসেছে। এতে আমাদের সকলের মনোবল চাঙ্গা থেকে মজবুতের ভীত তৈরী করেছে। বিশেষ করে নিরাপদ সড়ক চাই বাংলাদেশ এর চেয়ারম্যান চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আজাদ হোসাইন ভাইসহ সাংগঠনিক সম্পাদক জহিরুল ইসলাম মিশু ভাই ফোনে কথা বলেছেন। সরকারের যুগ্ম সচিব আবদুল মান্নান, যুগ্ম সচিব বিধায়ক রায় চৌধুরীসহ উপসচিব পর্যায়ের অনেকে, সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারী, জেলা পরিষদ সদস্য ফোনে শান্তনা ও পরামর্শ দেন। সুদূর লন্ডন, যুক্তরাষ্ট্র, সৌদি আরব থেকে এবং দেশের বিভিন্ন জেলা, জেলা পরিষদ থেকে অনেকে ফোন করেন।

স্থানীয় পর্যায়ে জেলা প্রশাসন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, পুলিশ প্রশাসন, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক, জেলা পরিষদ ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো: মিজানুর রহমান, সিভিল সার্জন, শরিয়তপুরের সিভিল সার্জন ডা: সফিকুল ইসলাম, বিভিন্ন পত্রিকার সম্পাদক, সাংবাদিক সমাজ, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো: সাহাব উদ্দিন, উপজেলা শিক্ষা অফিসার নাজমা বেগম, সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো: মানছুর আহমেদসহ অগণিত শুভাকাংঙ্খি, ভক্তকূল খোজঁখবর নেন। তাছাড়া আক্কাছ আলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রুবিনা রহমানসহ রোজির ও আমার অফিসের কলিগরাও প্রতিনিয়ত খোঁজখবর নেন। আর ফেইসবুক মেসেঞ্জারে শত শত মানুষের কমেন্ট আমাকে করেছে অনুপ্রাণিত। এ ছাড়া এপেক্সক্লাব, নিরাপদ সড়ক চাই, জেলা কমিউনিটি পুলিশিং, চাঁদমুখসহ বিভিন্ন সংগঠন, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, আলেম সমাজসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার নেতৃবৃন্দ খোঁজ নেন আর যে যেখানে পেরেছে মসজিদ, মাদ্রাসায় দোয়ার ব্যবস্থা করেছেন। আবার অনেকে এতেকাপে বসে দোয়াও করেছে। আল্লাহর রহমত, অগণিত মানুষের দোয়া, ভালবাসাই আজকের সুস্থ্যতা। এ পরিস্থিতি আমাকে ভালভাবেই জানান দিয়েছে আসলেই মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য। তাদের এই ভালোবাসা আমাকে সামনে এগিয়ে যাওয়ার পথ দেখিয়েছে। আমি ও আমার পরিবার সবার কাছে কৃতজ্ঞ। যা ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব না।

পরিশেষে বলতে চাই, করোনাকে ভয় করো না। এটি একটি ঠান্ডাজনিত ভাইরাস। আমার মতে আক্রান্তের প্রথম ২৪/৪৪ ঘন্টার মধ্যে যদি এটিকে মোকাবেলা করা যায় তা হলেই বিপদ কেটে যাবে। তবে এ ক্ষেত্রে পরীক্ষা নমুনার জন্য অপেক্ষা না করে জ¦র, সর্দি ইত্যাদ্দি দেখা দিলেই উল্লেখিত ব্যবস্থাগুলো অত্যন্ত দ্রুত গ্রহণ করা উচিত। এর জন্য প্রথম শর্ত হলো আল্লাহকে ডাকা আর নিজের মনোবল শক্ত রাখা। করোনা মানেই মৃত্যু নয়, করোনা মানেই সচেতনতা ও মনোবল শক্ত রাখা। আর সকল জ্বর সর্দি করোনা উপসর্গ নয়। সবাই ভাল থাকুন ও সুস্থ থাকুন। আল্লাহ সকলেই সহায় হোক।

লেখক : প্রশাসনিক কর্মকর্তা (চ:), জেলা পরিষদ, চাঁদপুর।

Please Share This Post in Your Social Media

করোনা আক্রান্ত একই পরিবারের ৬ জনের করোনামুক্ত হওয়ার গল্প

Update Time : ০৬:৫৯:৩১ অপরাহ্ন, সোমবার, ৮ জুন ২০২০

 

শেখ মহিউদ্দিন রাসেল :

আলহামদুল্লিাহ, পরম করুনাময় রাব্বুল আলামিনের কাছে। যার দয়া ও করুনায়ই আমি ও আমার ৪ সন্তানসহ পরিবারের ৬ জন আজ করোনামুক্ত। নিজেদেরকে করোনা যুদ্ধে জয়ী বলবো না। আল্লাহর দয়ায়ই কঠিন এ ভাইরাস থেকে মুক্ত হয়েছি। সকল জয়ের মালিক তিনি এবং সকল প্রসংশাই তাঁরই। আল্লাহ একজন আছে বলেই তাঁর প্রমাণ এখানে। বিভিন্ন ক্ষেত্রে আমরা পজেটিভ খুঁজি কিন্তু করোনার ক্ষেত্রে নেগেটিভই সফলতা। করোনা পজেটিভ থেকে করোনা নেগেটিভ। এ এক কঠিন বাস্তবতা। এ বাস্তবতাকে সঙ্গী করে অতিক্রম করতে পেরেছি শুধুমাত্র ইবাদত আর দৃঢ় মনোবলের কারণেই। আমি বলবো কোন ওষুধ উপাত্ত নয় স্বয়ং আল্লাহ তায়ালা এ কঠিন সময়টিতে আমাদের প্রতি সদয় হয়েছেন। তা না হলে একি সাথে সকলেই করোনা পজেটিভ আবার একই সাথে ৬ জনই নেগেটিভ। এ এক কাকতালীয় আচর্য্যজনক ঘটনা।


আমরা দু’জন স্বামী-স্ত্রী সরকারি চাকুরীজীবী। সঙ্গত কারণেই সরকারের নির্দেশনা পালনে ব্রত। তারই অংশ হিসেবে জেলা পরিষদ জেলার বিভিন্ন শ্রেণী পেশার জনগণকে দু’দফায় ত্রাণ বিতরণ করে। বিতরণ কাজে আমিও অংশ নেই। আমার স্ত্রীও তাঁর স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের উপবৃত্তির তালিকা প্রণয়নেও আক্কাছ আলী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যেতে হয়েছে। দু’জনেরই গন্তব্য ছিলো আবার একই বাসার প্রাণে। সব উপকরণ পড়েও সতর্কতার মধ্যে চলেও ভাইরাস যে কখন নিজেদের দেহে বাসা বেঁধেছে তা জানা ছিল না। শরীর একটু খারাপ লাগায় ছুটি নিয়ে অফিসে যাওয়া বন্ধ করে দেই। ১৪ মে আমার ও স্ত্রী রোজিনা হাবিবের জ্বর ,সর্দি, শরীর ব্যাথা দেখা দেয়। ভাবলাম মৌসুমের ভাইরাস জ¦র। বুঝে উঠতে না উঠতেই বড় ছেলে শেখ আরিফ মহিউদ্দিন (১৫), শেখ আসিফ মহিউদ্দিন (১৩), শেখ আবিদ মহিউদ্দিন (৯) ও আমেনা বিনতে মহিউদ্দিন (৩ বছর ৩মাস) সকলেরই জ¦র, সর্দি, বমি ও ক’জনের পেট খারাপ দেখা দেয়।

বিষয়টি স্ত্রী শ্যালক সুমনকে জানায়। তাঁর কথামতে আর সময়ক্ষেপণ না করেই সিভিল সার্জন ডা: সাখাওয়াত উল্লাহ সাহেবের সাথে আলাপ করি এবং তিনি হাসপাতালে যেতে বলেন। আমি এতে বাঁধসাধি যে, ওদেরকে নিয়ে হাসপাতালে গিয়ে নমুনা দেয়া সম্ভব না। প্রয়োজনে নমুনা দেব না কিন্তু হাসপাতালে নিয়ে যাবো না বলে সিদ্ধান্ত নেই। তিনি বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে আমলে নেন। মুহুর্তের মধ্যে সন্তানদের সবাইকে দূরুত্ব বজায় রেখে অবস্থান করার জন্য বলি। সবার বাটি, প্লেট, ইত্যাদি আলাদা করে দেই। কেউ কাউকে স্পর্শ না করার জন্য তাদের বলি। ছোট মেয়েটা ঘুরে ফিরে আমাদের কাছে। শুধুই কান্নাকাটি করে। এক ছাদের নীচে দু’টি বেড রুম ও ড্রইং রুম মেঝে মিলিয়ে ৫টি বেডে আলাদাভাবে ৬ জনের থাকার ব্যবস্থা করি। বাচ্ছাটাকে তাঁর থেকে একটু দূরে রাখি এবং নিজেদের মনোবল শক্ত রেখে আমরা দু’জনেই তাদের মাথায় পানি দেই এবং লেবু, দারচিনি, এলাচ, লং, আদা, কালিজিরা, তেজপাতা পানিতে দেই। ঝাল দেয়া পানি বাটিতে করে তোয়ালিয়া, গামছা মাথার উপর দিয়ে নাক ও মুখের সামনে নিয়ে ভাপ নেই দিনে অন্তত: ৪ বার। ওরা নিতে চাইতো না, তারপরও চেষ্টা বিফলে যায়নি।

কান্নাকাটি করলেও ছোট মেয়েটার মাথা ধরে বাটি মুখের সামনে দিয়ে রাখতাম। ভাপ নেয়া এ টক, তিতো পানি আমরা ৫ জন পান করি আর বড় ছেলের গলা ব্যাথার কারণে লবন দিয়ে উক্ত পানি গড়গড়া করাতাম। ছোট মেয়েটা কে হালকা গরম পানি পান করাতাম। নমুনার রেজাল্ট যাই হোক না কেনো পজেটিভ ভেবেই যথারীতি চিকিতসা শুরু করে দিয়েছি। স্ত্রীর নাকে গন্ধ থাকার কারণে সেও লবন মিশ্রিত পানি দিয়ে গড়গড়া করতো। পেট খারাপ থাকার কারনে ওদের দু’একজনকে গরম পানি দেইনি কয়েকদিন। তবে এসএমসির ওরস্যালাইন দেয়া হতো। রং চা, গরুর গরম দুধ পান করাতাম। স্ত্রী রোজি বলতো ফ্রিজ খুললে ঠান্ডা বাস্প গায়ে ও মুখে লাগলে খুব খারাপ লাগে। পরে অবশ্য মুখে মাক্স পড়ে দূর থেকে ফ্রিজ খোলা হতো। ফল মালটা, শাক সবজি ভালভাবে ধোয়া ও সিদ্ধ করা হতো। সকলের আলাদা পোষাক, বিছানা দেয়া হয়েছে। প্রতিদিনই আমি তা রৌদে দিতাম জীবানু ধংসের জন্য। এরই মধ্যে বাসার মেঝে বিøসিং পাউডার দিয়ে নিজেই ধুয়ে নেই। সকলের হাত সাবান এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে ধোয়া হতো। তার মধ্যে ওষুধ হিসেবে napa 500mg, বমির জন্য omidon 10mg। শ্বাসকষ্টের জন্য monas 10mg খাই। তবে কারো শ্বাসকষ্ট ছিল না। গলাব্যাথাও তেমন ছিল না। সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা: সৈয়দ আহমেদ কাজল ভাইয়ের পরামর্শ নেই। তিনি fexo 120mg যোগ করার জন্য বলেন প্রতিদিন রাতে ১টা বড়দের বেলায়। পাশাপাশি আমার জন্য ডায়াবেটিক্স diatrol 80mg ও d-lina 5mg গ্যাসটিকের pantonix 20-20mg চলবে জানান। ছোট বাচ্চার জন্য সিরাপ prosma। সিভিল সার্জন এর কথামতে আমি ডা: সাজেদা পলিন ম্যাডামের সাথে কথা বলি। ১৭ জুন সকালে সদর হাসপাতাল থেকে জনৈক ডা: আমাকে কল করেন এবং একেক করে ৬ জনের নাম, জন্ম তারিখ, পেশা, মোবাইল নম্বর, ঠিকানা নেন। ওই দিন দুপুর ২ টায় দুই জন স্বাস্থ্য সহকারী বাসায় এসে আমাদের সকলের নমুনা সংগ্রহ করেন। নমুনা সংগ্রহের সময় তাদের পিপিই ড্রেস পড়া দেখে ছোট বাচ্চারা ভয়ে কেঁদে ওঠে এবং নমুনা দিতে নারাজ।

অতঃপর স্বাস্থ্যসহকারীরা কাঠির মাধ্যমে গলা থেকে লালা সংগ্রহ করেন। তখন অধিকাংশরাই বমি করে দেই। এতে কয়েকটি রোজা রাখা সম্ভব হয়নি। এবার রিপোর্টের অপেক্ষার পালা। প্রহর গুনছি রিপোর্টের জন্য আর ওদের, নিজেদের সেবা ওভাবেই চালাচ্ছি। এখন বাচ্চারা বুঝেছে যে, তাদের কঠিন অসুখ হয়েছে। ছোট মেয়েটাও এবার গামছা দিয়েই ভাপ নেয় দুষ্টমির ছলে। কোন ঠান্ডা পানি নয় কুসুম গরম করে সবাই পানি পান করি। তখন আমার ইচ্ছা ছিলো অসুখ আমার হোক ওদের কারো যেনো না হয়। আমি একা আলাদা সরে থাকতে পারবো আর ওর মা’য়ের হলে সন্তানদের সেবা করতে পারবে না। বিভিন্ন ধরনের শংকা নিয়েই রিপোর্টের জন্য দিনগুনছি আর ইবাদত করছি। খারাপ লাগতো তখন যখন ফজরের নামাজ পড়ে ওদের দিকে তাকাতাম। বাসাটা যেনো একটা মিনি হাসপাতাল। যে যার জায়গায় পড়ে আছে। ছোট মেয়েটা তার মা’য়ের সাথে, আবার আমার কোলে। শুধুই যন্ত্রনা কান্নাকাটি। এরই মধ্যে আমার জ¦র ভালো হয়ে গেছে; মনে হয়েছে সুস্থ বোধ করছি। স্ত্রী চরম অসুস্থ হয়ে পড়ে। বাচ্চাদের কারো জ¦র কিছুটা কমলেও আবার কারো পেটখারাপ থাকে, আবার বমি করে। একটা না একটা উপসর্গ থাকেই। প্রতিটা রাতের বেশী সময় আমরা দু’জনেই সজাগ ছিলাম। কপাল ধরে ওদের অবস্থা, শ^াসপ্রশ^াস সঞ্চালন লক্ষ্য করতাম। পরে অবশ্য হাত ধুয়ে নিতাম। তখন আমি বিষয়গুলো কঠিনভাবে সামলাই। এর মধ্যে অনেক আত্মীয়-স্বজন জেনে যায় আমাদের নমুনা নেয়া হয়েছে। তাদের সাথে কথা বলা, নিজেদের সেবা, রান্নাবান্না সবমিলিয়ে এক কঠিন বাস্তবতায় আমরা।
স্ত্রী রোজী বলে খবর নিতে বলতো রিপোর্ট এসেছে কিনা। আমি নিবো কিনা আবার পিছিয়ে যাই ভয়ে। যদি না খারাপ রিপোর্ট আসে। ২০ মে দুপুর অনুমান ২টা। ডা: সাজেদা পলিন বলছি, আপনাদের ৬ জনেরই করোনা রিপোর্ট পজেটিভ এসেছে। আমি অপ্রস্তুত ছিলাম।

মুহুর্তের মধ্যে যেনো মাথায় বাজ পড়লো। এ কথাটাই মনে হয়েছে আমার জীবনের সবচেয়ে কঠিন বার্তা। বিষয়টি স্ত্রীকে জানালাম। সে আমাকে শান্তনা দিলো আল্লাহ যা করে ভালই করে। ওদেরকে জানতে দেইনি। দু’জনেই সিদ্ধান্ত নিলাম। আল্লাহ ভরসা। আমরা মনোবল এইভাবে শক্ত রাখলাম যে, আমাদের কিছুই হয়নি। আমরা যদি শারীরিকভাবে ভেঙ্গে পড়ি তা হলে সন্তানদের বাচাঁতে পারবো না। এই ভেবে নিজেদের সংযত করলাম। এরই মধ্যে সিভিল সার্জন ও ডা: পলিন আপা জানালো আমাদের এ সময়টা কিভাবে চলতে হবে। তিনি আমার মেসেঞ্জারে দিকনির্দেশনা ও ভিটামিন জাতীয় ঔষধের নাম দেন teb-zorate 60, Ten e cap 200mg, teb- araitovo6t b। বাচ্চাদের জন্য zinc সিরাপ/ zinc b teb আর যা খাচ্ছি ওষুধ তা চলবে জানান। মুহুর্তেই চারিদিকে বিষয়টি চাউর হয়ে যায়। ফেইসবুক, অনলাইন মিডিয়াসহ সবর্ত্রই যেন ভাইরাল হয়ে পড়ে। এদিকে দু’জনের মোবাইলে অনবরত কল আসতেই থাকে। বিষয়টি আমি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী কর্মকতা মহোদয়কে জানাই। তারা আমাকে পরামর্শ ও শান্তনা দেন। এরপর থেকেই মোদের ও ওদের চিকিসা সেবাযতœ আরও বাড়িয়ে দেই। ভাগ্যিস আমরা রিপোর্ট পজেটিভ আসার আগেই চিকিসা ব্যবস্থা নিয়ে আসছি। এটা ছিল আমাদের সুস্থতার টার্নিংপয়েন্ট। এর কারণে আমি ও আমার স্ত্রী এখন অনেকটা সুস্থবোধ করছি। পজেটিভ রিপোর্টের পর বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি সংস্থার বিরামহীন ফোন আসছে। ঢাকা স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, ঢাকা শিশু হাসপাতাল, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়, জেলা প্রশাসন, জেলা পরিষদ, এসপি অফিস, গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআই, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস, সদর মডেল থানা, সিভিল সার্জন অফিস, উপজেলা স্বাস্থ্য ক্লিনিক, সদর হাসপাতালসহ বিভিন্ন সংস্থা থেকে বিভিন্ন তথ্য নাম, জন্ম তারিখ, পেশা, মোবাইল নম্বর, ঠিকানা, নমুনা ও পজেটিভ হওয়ার তারিখ, শারীরিক অবস্থা ইত্যাদ্দি তথ্য নেন। দু’জনে আমরা সরকারি চাকুরি করাতে হয়তো অতিরিক্ত কিছু সংস্থা তথ্য নিয়েছে।

পজেটিভ রিপোর্টের প্রথম দিন বিকেলে এলাকার রানা নামে এক সন্ত্রাসী আওয়াজ তুলে আমার বাসাকে দেখিয়ে করোনা হয়েছেরে- করোনা হয়েছেরেসহ আরো অনেক বাজে কথা বলে উপহাস করতে থাকে। তখন বিষয়টি আমার নজরে আসে। এতে বুঝতে পারলাম আমাদের বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হয়ে গেছে। এতে খুব কষ্ট পেয়ে নিজের মধ্যে বিষয়টি চেপে রাখি। আমার সাথে দীর্ঘদিন অভিমান করে থাকা বড়ভাই শেখ মহসিন ওষুধ ও খাবার দেয়ার জন্য পাগলের মতো ছুটে আসে বাসা প্রাঙ্গনে। বাসায় তা দেয়ার সময় মড়ার ওপর খাড়ার ঘা’য়ের মতো এলাকার রানা নামে ওই যুবক প্রচন্ডভাবে বাঁধা দেয়। তা নিয়ে হতাশভাই আমার। কথা কাটাকাটি ও বাঁধা উপেক্ষা করে আমাকে খাদ্যসামগ্রী দিয়ে যায়। তখন তাঁর দরদ উজার করা আবেগ দু’ভাইয়ের মধ্যে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। রানার বিষয়টি আমি ৯৯৯ নম্বরে জানালে আবার এ ধরনের আচরণ করলে তাক্ষনিক তাদেরকে জানাতে বলেন। জানাই চাঁদপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নাসির উদ্দিনকে।

তিনি জানান, করোনা আক্রান্ত বাড়িতে পুলিশ যেতে ও আপনার সাথে কথা বলতে পারবে না। আমি বলেছি পাশের বাড়ি তাঁর। তিনি আমার কাছে তাঁর টেলিফোন নম্বর চান। থানার করোনা সংশ্লিষ্ট কাজের দায়িত্বপ্রাপ্ত অফিসার এস আই আওলাদ সাহেবকে জানালে তিনি রানাকে টেলিফোনে শতর্ক করে দেন। অ্যাডিশনাল এসপির স্টেনো আমার চাচাতো ভাই মোসলেউদ্দিনকেও বিষয়টি জানাই সেও ওসি (তদন্ত)কে জানায়। কিন্তু পুলিশ আসার কোন দৃশ্যই আজও চোখে পড়েনি। বিষয়টি জেনে সাংবাদিক সোহেল রুশদীও রানাকে টেলিফোনে সতর্ক করে দেন। বাঁধাদানকারী সোহেল রানা ভুল করেছে তাঁর পক্ষ থেকে আর করবে না বলে জানানো হয়। নিজের পরিবারের এ অবস্থা তা নিয়েই ছিলো মাথাব্যাথা। এহেন পরিস্থিতিতে আর বাড়াবাড়ি না করাটাই সঠিক মনে করেছি। এক সময় সাংবাদিকতা করেছি। তাই হয়তো মিডিয়াগুলো আমাকে ভালোভাবেই চিনতো ও জানতো।

তারা বেশ আন্তরিকতা দেখিয়েছে আমার ছবি ও অনেকে নাম এড়িয়ে গিয়ে। এরই মধ্যে আমার ডান পা ফুলে ফোড়াঁর মত সৃষ্টি হয়। যার ছবি তুলে ডাক্তারকে পাঠাই। তিনি চিন্তিত হয়ে পড়েন এবং দ্রুত ডায়াবেটিক মাপার জন্য বলেন। আমি এ নিয়ে চরম হতাশ হয়ে পড়ি । কখনও গুলোকো লিডার মেশিন দিয়ে মেপে দেখিনি। এখন মেশিন পাবো কোথায়, মাপবোইবা কিভাবে। যা ডাক্তারকে জানাই এমনকি সিভিল সার্জন মহোদয়ের সাথে আলাপ করি। কাউকে পাঠাতে তিনি অপারগতা প্রকাশ করেন এবং ডা: সাজেদা পলিন আপা জানান অবস্থা খারাপ হলে সদর হাসপাতালে আমাকে ভর্তি হওয়ার জন্য। নিরুপায় হয়ে অনেকটা ঘাবড়ে গিয়ে বিষয়টি নিয়ে আমি জেলা প্রশাসক মো: মাজেদুর রহমান খান, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ¦ ওচমান গণি পাটওয়ারী, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম দুলাল পাটওয়ারী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) এসএম জাকারিয়া মহোদয়কে ফোনে জানাই। তারা বিষয়টি নিয়ে সিভিল সার্জন ও কর্তব্যরত ডাক্তারের সাথে কথা বলেন।

জনবলের অভাবের কারণে সম্ভব হয়নি লোক পাঠানো। তবে ডাক্তার এন্টিবায়োটিক ও মালিশ এবং ডায়াবেটিকস ওষধ বাড়িয়ে দিয়েছেন। ডায়াবেটিক হাসাপাতালের ডা: খবির সাহেবও পরামর্শ দেন। পরে অবশ্য সহোদর বড়ভাই মহসিন ডায়াবেটিক মেশিন দিয়ে যায় এবং ভিডিও কলের মাধ্যমে চালানোর বিষয়টি দেখান। আমি মেশিনটি চালানোর চেষ্টা করেও সফল হইনি। এক পর্যায়ে মেশিনটি নষ্ট করে ফেলি। ডায়াবেটিক মাপার বিষয়ে বড়বোন নুরজাহান বেগম কুমকুম আপা ফেইসবুকে সহযোগিতা চাইলে অনেকেই নিজস্ব মেশিনের কথা বলেন। এরই মধ্যে চাঁদমুখের সাধারণ সম্পাদক এইচএম জাকির সংগঠনের সভাপতির সাথে আলাপ করলে জসিম শেখ ভাই একটি মেশিন কিউআরসির মেহেদীর মাধ্যমে বাসায় পাঠান। এ বিষয়ে বাল্যবন্ধু ইউএনবির সাংবাদিক রাশেদ শাহরিয়ার পলাশও পরামর্শ দেন। ফরিদগঞ্জ বাড়ি যমুনা টিভির ঢাকাস্থ সাংবাদিক শাহাদাত ভাই তাঁর পরিবারের সদস্যরা আক্রান্ত হয়ে ভালো হওয়ায় ফোনে তাঁর কাছ থেকে পরামর্শ নেই। মেশিন চালানোর বিষয়ে ডায়াবেটিকস হাসপাতালের কর্মকর্তা উজ্জল ভাইও পরামর্শ দেন। অনেক রক্তক্ষরণ হয়েছে আমার কিন্ত মেশিনে উঠেনি পরিসংখ্যান। এরই মধ্যে শেখ আরিফ, আমেনার জ্বর ভালো হয়ে যায়। তবে কাশি ও সর্দি লেগেই আছে সকলের। শেখ আসিফ ও শেখ আবিদের হালকা জ্বর  ও পেটখারাপ, বুমির বেগ ছিলো। তাদেরকে দিনের মাঝে রৌদে ছাদে নিয়ে যেতাম কিছুক্ষনের জন্য। তবে জ্বর কখনও মেপে দেখিনি। কপালে হাত দিয়েই অনুমান করতাম। প্রতিদিন নাক দিয়ে লম্বা নিশস নিয়ে তা আটকিয়ে আবার মুখ দিয়ে দম ছেড়েছি অন্তত: দশ বার। ফেইসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে করোনা থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য যা পেয়েছি তাই করেছি।

সিভিল সার্জন জানালেন, সরকারি সিদ্ধান্ত হলো এখন ১৪ দিন পর দ্বিতীয় নমুনা নেয়া। তাকে জানালাম বাচ্চারা আলাদাভাবে থাকছে দ্বিতীয় নমুনা নেয়া হলে তাদেরকে একত্রে রাখা যেতো। ৩১ মে হয় চৌদ্দ দিন। ১ জুন নমুনা নিবে বলে জানায়। অবশেষে ওই দিন দুপুরে নমুনা নেন আর তাদের ব্যবহৃত পিপিই, অন্যান্য সামগ্রী বাসায়ই পুড়িয়ে ফেলেন। ভাগ্য কি সহায় বলতে হবে। পরদিন ২ জুন থেকে বাড়ি গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করা বন্ধ হয়ে যায় সংগ্রহকারীগণ অসুস্থ হওয়ার কারণে। এবার দ্বিতীয় রিপোর্টের অপেক্ষায়। রুটিনমাফিক হালকা কুসুম গরম পানি খাওয়া, নিয়মিত গরম ভাপ নেয়া, লবন আবার ভিনেগার মিশ্রিত পানি দিয়ে গড়গড়া করা, প্রচুর পানি পান করা, রং চা, গ্রীণ টি পান করা, শরীর দুর্বলতা কাটানোর জন্য ওরস্যালাইন খাওয়া, ভিটামিন সি ও ডি যুক্ত খাবার, ফল, শাকসবজি খাওয়া, বাচ্চাদের সিভিট ট্যাবলেট খাওয়া, কসুম গরম পানি দিয়ে গোসল করা, জ¦রের কারণে মাথায় ঠান্ডা পানি ও গা মুছিয়ে দেয়া ইত্যাদ্দি রুটিনমাফিক চলছিল। এর জন্য আমার স্ত্রী রোজির অবদানের কথা আমি কখনও অস্বীকার করতে পারবো না। নিজের চিন্তা না করে আমাদের পাচঁ জনের পিছনে গাঁধাখাটুনি খেটেছে। আল্লাহ সহায় থাকাতে তাঁর উছিলায়ই আমাদের আজকের সুস্থ্যতা। তার মনোবল অটল থাকাতে ঘরনামক মিনি হাসপাতালটা আজ একসুখী বসতঘরে ফিরে এসেছে। আল্লাহ তাঁকে নেক হায়াত দান করুক।

আর এখন এ কথাটিই মনে পড়ছে,
“সংসার সুখের হয় রমণীর গুনে
গুনবতী স্বামী যদি থাকে তাঁর সনে”
সন্তানদের সকলকে নিয়েই নামাজের জামাত আর ইবাদত করেছি। নামাজের মছলায় তাদের মা’য়ের আহাজারি আল্লাহ শুনেছে। পর্যায়ক্রমে সকলেই সুস্থ হয়ে উঠি। তবে বাচ্চাদের সামান্য কাঁিশ,হাঁছি রয়েছে। আশা করি তাও সেরে যাবে।

পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান স্যারের পাঠানো ফল ফলাদি, শুশুরবাড়ী থেকে পাঠানো ঈদের বাজার দিয়ে সেরেছি ঈদ আয়োজন। এডিসি মাহমুদ জামান স্যার সব সময় খোঁজ নিতেন এবং সব ধরণের সহযোগিতার করার বার বার ইচ্ছা পোষন করেন। অনেকেই অনেক কিছু পাঠাতে চেয়েছে আমি বারণ করে দেই। প্রতিবেশীরা খোঁজখবর না নিলেও আমার বাসার দিকে তাদের চাওনি ছিল বেশ লক্ষ্যনীয়। মনে হয়েছে নিজেরা বুঝি অনেক অপরাধ করে ফেলেছি। ঘটনা জানার পর থেকে চারিদিকের বাসার জানালাও খুলেনি অনেকে এখন পর্যন্তও। আবার এলাকার কেউ আমাকে দুর থেকে বাসায় দেখা মাত্রই খোঁজ নিয়েছেন। আবার অনেকের বাঁকা চোখের চাওনি আমাকে করেছে হতবাক। অনেকে আবার এই সুযোগে ক্ষোভ ও প্রতিহিংসার বহি:প্রকাশ ঘটিয়েছেন ভিন্ন কায়দায়। বাসাটি তাদের কাছে দূর থেকে দেখার একটি দুর্লভ বস্তুতে পরিণত হয়েছে। বাসায়ই সন্তানদের নিয়ে ঈদের জামাত করি। খাবার নিয়ে এগিয়ে আসে ভায়রা মাহবুব ও তাঁর স্ত্রী লোপা। তাদের সরবরাহকৃত গরুর দুধে ক্লান্তি দূর হয়ে যায় নিমিষেই। ভাই মিজানুর রহমানও বাজার নিয়ে হাজির হয়। বড় ভাই সোলেমান শেখ ওরফে ছলু ভাই, ছোট ভাই নাজমুল, সংবাদকর্মী মাঈনুল ও এলাকার জাহাংগীর এবং হাফেজ মাওলানা মাকসুদ হুজুর, তাজুল ইসলাম বেপারী, রহিম বেপারী, রুবেল এসে খোজঁখবর নিয়েছেন।

৪ জুন বিকেলে ডা: সাজেদা পলিন আপা জানান আপনাদের সকলের রিপোর্ট এসেছে। তিনি রিপোর্টের কপি আমার মোবাইল মেসেঞ্জারে পাঠান এবং আরো এক সপ্তাহ বিশ্রামে থাকার জন্য বলেন। মনটা ভরে গেলো আর মনে হলো এটাই আমার জীবনের সবচেয়ে আনন্দের বার্তা। নিজের অজান্তে চোখে জল এসে যায়, এ হলো আনন্দ, আনন্দের ফোঁটা। তা আমি মুহুর্তের মধ্যে সবাইকে জানাই এবং তা ফেইসবুকে দেই। তো ওই আগের মতই শুরু হলো মানুষের প্রাণঢালা ভালোবাসার প্রতিফলন মোবাইল কলে এবং ফেইসবুকে। সকলে জেনেছে দ্বিতীয় রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। তারপরও অনেকে আমাদের প্রতি স্বাভাবিক হচ্ছে না। বহু দূরত্ব রেখেই কথা বলছে। আমাকে দেখামাত্র মনে হচ্ছে এক আতংক। ডান পায়ের ফোঁড়া শুকিয়ে যাচ্ছে, অদ্যাবদি আর মাপা হলো না ডায়াবেটিকস। যা নিয়ে আমি তখন খুবই চিন্তিত ছিলাম। এখন অবশ্য চিন্তামুক্ত। নেগেটিভ হওয়ার পরও মহসিন ভাই আমার,আমাকে বাসায় দেখতে এসেছেন ওষধপত্র ও খাবার দাবার নিয়ে। আল্লাহ ভাইটির সহায় হোক।

দু’বোন আমার। খবর শুনে তাদের হতাশা দেখেছি। মা, বাবা থাকলে যেমনটি করতেন ঠিক তেমন ভালবাসা ফুটে উঠেছে তাদের মাঝে। আমাদের মন খারাপ হবে তাই মনোবল শক্ত রাখার জন্য প্রতিনিয়ত ফোন করে বুঝিয়েছে। নুরুন্নাহার বেগম হাওয়া আপা ঢাকা থাকেন। হয়ত: চোখের জলে দু’জনের কাপড় ভিজে গেছে কিন্তু পরানের ভাইকে বুঝতে দেয়নি। সহোদর বড় ভাই শেখ মহসিন, পান্না ভাবী,ভাতিজা নিরব,নির্জর শুনে হাউমাউ করে সকলেই কাঁেদন। আমি তাদের বুঝাতে চেষ্টা করেছি। পরক্ষণেই ভাই আমার ছুটে আসে ভাইয়ের প্রাণে। মা, বাবা নেই আমার। খবর শুনে মুহুর্তের মধ্যে শশুরবাড়ি ফরিদপুরে থাকা বয়স্ক শশুড় ও শাশুড়ি, বড় ও ছোট ভাইসহ সবাই চিন্তিত হয়ে পড়ে। প্রতিনিয়ত খোঁজখবর নিয়েছেন, দোয়া করেছেন। মা ও বাবার মতই তাদের ভূমিকাও ছিল অপরীসীম। সেই সুদুর ফরিদপুর থেকে ঈদে টাকা পাঠিয়েছেন বাজার করার জন্য। প্রতিদিন ৫/৬বার ফোন করে খোঁজ নিয়েছেন। জ্বর হয়েছে তখন নমুনা দিতে চাইনি। শ্যালক শরীয়তপুর থানায় কর্মরত এস আই গোলজার আলম সুমনের কথায়ই করোনার নমুনা দেই। সঠিক সময়ে তাঁর পরামর্শ সত্যিই অনেক কাজে এসেছে। ভাইয়ের মতই কাজ করেছে সে। ঠিকই সে পুলিশের দায়িত্ব পালন করেছে তবে মনটা পড়ে ছিলো চাঁদপুরের এখানটায়। অনেকের কাছে করোনা মানেই মৃত্যু অবধারিত। আমি মনে করি করোনা কিছুই না যদি একে গরম দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করা যায়, রুটিন মাফিক উল্লেখিত ব্যবস্থাগুলো নেয়া যায়। তবে বয়স্কদের বেলায় অন্যকোন রোগ থাকলে একটু ঝুঁকিপূর্ণ।

এই দুর্যোগ মুহুর্তে স্বাস্থ্যগত যাদের সহযোগিতা পেয়েছি বিশেষ করে, বক্ষব্যধি ক্লিনিকের ল্যাব টেকনিশিয়ান সাখাওয়াত হোসেন (বর্তমানে করোনা আক্রান্ত), সদর উপজেলার স্বাস্থ্য সুপারভাইজার বাবুল চক্রবর্তী, উপসহকারী কমিউনিটি স্বাস্থ্য কর্মকর্তা এ কে এম মাসুদুর রহমান ও ইউনুছ রিয়াজ। এ ৫ ভাই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আমাদের নমুনা সংগ্রহ করেছেন। সিভিল সার্জন মো: সাখাওয়াত উল্লাহ, সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা: সাজেদা পলিন, সহকারি সার্জন ডা: মাসুদ রানা, মেডিক্যাল অফিসার ডা: সৈয়দ আহমেদ কাজল। এর মধ্যে ডা: সাজেদা পলিন ও ডা: মাসুদ রানা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। যতবার পরামর্শ চেয়েছি ততবার উত্তর দিয়েছে ডা: পলিন আপা। ধন্যবাদ নয় অন্তর থেকে দোয়া করি আল্লাহ তাদের ও তাদেও পরিবারকে হেফাজত করুক। এরা সকলেই তাদের কর্মে প্রমাণ দিয়েছেন মানবতার জন্যই তাঁরা।

পাশাপাশি স্মরণ করছি, ফোনে, ফেইবুকে, ইমু, মেসেঞ্জারসহ বিভিন্ন মাধ্যমে শত শত শুভাকাংঙ্খী, আত্মীয়-স্বজন দরদউজার করা ভালোবাসা, দোয়ার বার্তা জানিয়েছেন। করোনা থেকে সুস্থ্য হয়েছে এমন ভিডিও অনেকে পাঠিয়েছেন। যা অনেক কাজে এসেছে। এতে আমাদের সকলের মনোবল চাঙ্গা থেকে মজবুতের ভীত তৈরী করেছে। বিশেষ করে নিরাপদ সড়ক চাই বাংলাদেশ এর চেয়ারম্যান চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আজাদ হোসাইন ভাইসহ সাংগঠনিক সম্পাদক জহিরুল ইসলাম মিশু ভাই ফোনে কথা বলেছেন। সরকারের যুগ্ম সচিব আবদুল মান্নান, যুগ্ম সচিব বিধায়ক রায় চৌধুরীসহ উপসচিব পর্যায়ের অনেকে, সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারী, জেলা পরিষদ সদস্য ফোনে শান্তনা ও পরামর্শ দেন। সুদূর লন্ডন, যুক্তরাষ্ট্র, সৌদি আরব থেকে এবং দেশের বিভিন্ন জেলা, জেলা পরিষদ থেকে অনেকে ফোন করেন।

স্থানীয় পর্যায়ে জেলা প্রশাসন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, পুলিশ প্রশাসন, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক, জেলা পরিষদ ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো: মিজানুর রহমান, সিভিল সার্জন, শরিয়তপুরের সিভিল সার্জন ডা: সফিকুল ইসলাম, বিভিন্ন পত্রিকার সম্পাদক, সাংবাদিক সমাজ, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো: সাহাব উদ্দিন, উপজেলা শিক্ষা অফিসার নাজমা বেগম, সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো: মানছুর আহমেদসহ অগণিত শুভাকাংঙ্খি, ভক্তকূল খোজঁখবর নেন। তাছাড়া আক্কাছ আলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রুবিনা রহমানসহ রোজির ও আমার অফিসের কলিগরাও প্রতিনিয়ত খোঁজখবর নেন। আর ফেইসবুক মেসেঞ্জারে শত শত মানুষের কমেন্ট আমাকে করেছে অনুপ্রাণিত। এ ছাড়া এপেক্সক্লাব, নিরাপদ সড়ক চাই, জেলা কমিউনিটি পুলিশিং, চাঁদমুখসহ বিভিন্ন সংগঠন, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, আলেম সমাজসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার নেতৃবৃন্দ খোঁজ নেন আর যে যেখানে পেরেছে মসজিদ, মাদ্রাসায় দোয়ার ব্যবস্থা করেছেন। আবার অনেকে এতেকাপে বসে দোয়াও করেছে। আল্লাহর রহমত, অগণিত মানুষের দোয়া, ভালবাসাই আজকের সুস্থ্যতা। এ পরিস্থিতি আমাকে ভালভাবেই জানান দিয়েছে আসলেই মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য। তাদের এই ভালোবাসা আমাকে সামনে এগিয়ে যাওয়ার পথ দেখিয়েছে। আমি ও আমার পরিবার সবার কাছে কৃতজ্ঞ। যা ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব না।

পরিশেষে বলতে চাই, করোনাকে ভয় করো না। এটি একটি ঠান্ডাজনিত ভাইরাস। আমার মতে আক্রান্তের প্রথম ২৪/৪৪ ঘন্টার মধ্যে যদি এটিকে মোকাবেলা করা যায় তা হলেই বিপদ কেটে যাবে। তবে এ ক্ষেত্রে পরীক্ষা নমুনার জন্য অপেক্ষা না করে জ¦র, সর্দি ইত্যাদ্দি দেখা দিলেই উল্লেখিত ব্যবস্থাগুলো অত্যন্ত দ্রুত গ্রহণ করা উচিত। এর জন্য প্রথম শর্ত হলো আল্লাহকে ডাকা আর নিজের মনোবল শক্ত রাখা। করোনা মানেই মৃত্যু নয়, করোনা মানেই সচেতনতা ও মনোবল শক্ত রাখা। আর সকল জ্বর সর্দি করোনা উপসর্গ নয়। সবাই ভাল থাকুন ও সুস্থ থাকুন। আল্লাহ সকলেই সহায় হোক।

লেখক : প্রশাসনিক কর্মকর্তা (চ:), জেলা পরিষদ, চাঁদপুর।