কক্সবাজারে বিদেশী আগ্নেয়াস্ত্র ও গোলাবারুদ সহ গ্রেফতার-৫

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৭:৫০:৫৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ মে ২০২৪
  • / ৩৭ Time View

কক্সবাজার প্রতিনিধি:-

পুলিশের টানা ৭২ ঘন্টার শ্বাসরুদ্ধকর অভিযানে কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফ থেকে জার্মানের তৈরি জি থ্রি রাইফেল, শুটার গান ও ৯২ রাউন্ড রাইফেলের গুলি উদ্ধারসহ ৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে কক্সবাজার জেলা পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১৬ মে) বিকাল ৪ টায় কক্সবাজার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান জেলা পুলিশ সুপার মো. মাহাফুজুল ইসলাম।

গ্রেপ্তাররা হল, উখিয়া উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়নের মাদারবুনিয়া এলাকার মোহাম্মদ ছৈয়দের ছেলে মোস্তাক আহম্মদ (৩৭) ও তার স্ত্রী লতিফা আক্তার (৩৪), একই এলাকার মৃত নুর নবীর ছেলে মো. কাশেম ওরফে মনিয়া (৩৮) এবং মহেশখালী উপজেলার বড় মহেশখালী ইউনিয়নের মাঝের ডেইল এলাকার আনজু মিয়ার ছেলে রবিউল আলম (২৮) ও একই ইউনিয়নের শুক্করিয়া পাড়ার মৃত আবুল হাশেমের ছেলে মো. বেলাল হোসেন (৩৮)।
অভিযানে উদ্ধার করা হয় জার্মানির তৈরি একটি জি থ্রি রাইফেল, ১টি ম্যাগাজিন, ২টি ওয়ান শুটার গান ও ৯২ রাউন্ড গুলি।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার মো. মাহাফুজুল ইসলাম জানান, টানা ৭২ ঘন্টা অভিযানে উখিয়া ও টেকনাফ থেকে বিদেশী আগ্নেয়াস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার এবং ৫ জন অস্ত্র ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার করেছে। পুলিশের কাছে গোপন সংবাদ ছিল দুর্ধর্ষ ডাকাত ও অস্ত্র ব্যবসায়ী পার্শ্ববর্তী দেশ মিয়ানমার থেকে বিদেশী আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলি বাংলাদেশের অভ্যন্তরে নিয়ে এসে অপরাধী চক্রের নিকট হস্তান্তরের জন্য সংঘবদ্ধ হয়েছে।

এর সূত্র ধরে প্রথমে উখিয়া উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়নের মাদারবুনিয়া এলাকায় গহীন পাহাড়ে দুর্ধর্ষ ডাকাত মোস্তাকের বাড়ি থেকে মোস্তাক, রবি আলম, কাশেম এবং মোস্তাকের স্ত্রী’কে ২টি ওয়ান শুটার গান (এলজি), ৭৭ রাউন্ড গুলি এবং ২৪টি গুলির খোসাসহ গ্রেপ্তার করা হয়।

পরে চক্রটির সদস্য বেলাল টেকনাফ এলাকা থেকে পালিয়ে তার নিজ এলাকা মহেশখালী যাওয়ার সময় রামু উপজেলায় বিজিবির মরিচ্যা চেকপোস্টে গ্রেপ্তার করা হয়।

বেলালের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শাপলাপুর এলাকায় সমুদ্র তীরবর্তী ঝাউবাগানের মধ্যে বালির নিচে লুকিয়ে রাখা অবস্থায় ১টি বিদেশী জি থ্রি রাইফেল, ১টি ম্যাগাজিন ও ১৫ রাউন্ড তাজা গুলি উদ্ধার করা হয়। “

পুলিশ সুপার জানান, ডাকাত মোস্তাক একাধিক ডাকাতি, অস্ত্র, মাদক মামলার আসামী এবং তার বিরুদ্ধে ৪টি গ্রেফতারী পরোয়ানা মূলতবী রয়েছে। অস্ত্র ব্যবসায়ী রবি আলমের বিরুদ্ধে ৪ টি মামলা রয়েছে। এব্যাপারে উখিয়া ও টেকনাফ থানায় অস্ত্র আইনে নিয়মিত ২টি মামলা রুজু করা হয়েছে। আসামিদের ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। একই সঙ্গে অস্ত্র ব্যবসায়ী চক্রের অপর আসামীদের গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

কক্সবাজারে বিদেশী আগ্নেয়াস্ত্র ও গোলাবারুদ সহ গ্রেফতার-৫

Update Time : ০৭:৫০:৫৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ মে ২০২৪

কক্সবাজার প্রতিনিধি:-

পুলিশের টানা ৭২ ঘন্টার শ্বাসরুদ্ধকর অভিযানে কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফ থেকে জার্মানের তৈরি জি থ্রি রাইফেল, শুটার গান ও ৯২ রাউন্ড রাইফেলের গুলি উদ্ধারসহ ৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে কক্সবাজার জেলা পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১৬ মে) বিকাল ৪ টায় কক্সবাজার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান জেলা পুলিশ সুপার মো. মাহাফুজুল ইসলাম।

গ্রেপ্তাররা হল, উখিয়া উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়নের মাদারবুনিয়া এলাকার মোহাম্মদ ছৈয়দের ছেলে মোস্তাক আহম্মদ (৩৭) ও তার স্ত্রী লতিফা আক্তার (৩৪), একই এলাকার মৃত নুর নবীর ছেলে মো. কাশেম ওরফে মনিয়া (৩৮) এবং মহেশখালী উপজেলার বড় মহেশখালী ইউনিয়নের মাঝের ডেইল এলাকার আনজু মিয়ার ছেলে রবিউল আলম (২৮) ও একই ইউনিয়নের শুক্করিয়া পাড়ার মৃত আবুল হাশেমের ছেলে মো. বেলাল হোসেন (৩৮)।
অভিযানে উদ্ধার করা হয় জার্মানির তৈরি একটি জি থ্রি রাইফেল, ১টি ম্যাগাজিন, ২টি ওয়ান শুটার গান ও ৯২ রাউন্ড গুলি।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার মো. মাহাফুজুল ইসলাম জানান, টানা ৭২ ঘন্টা অভিযানে উখিয়া ও টেকনাফ থেকে বিদেশী আগ্নেয়াস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার এবং ৫ জন অস্ত্র ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার করেছে। পুলিশের কাছে গোপন সংবাদ ছিল দুর্ধর্ষ ডাকাত ও অস্ত্র ব্যবসায়ী পার্শ্ববর্তী দেশ মিয়ানমার থেকে বিদেশী আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলি বাংলাদেশের অভ্যন্তরে নিয়ে এসে অপরাধী চক্রের নিকট হস্তান্তরের জন্য সংঘবদ্ধ হয়েছে।

এর সূত্র ধরে প্রথমে উখিয়া উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়নের মাদারবুনিয়া এলাকায় গহীন পাহাড়ে দুর্ধর্ষ ডাকাত মোস্তাকের বাড়ি থেকে মোস্তাক, রবি আলম, কাশেম এবং মোস্তাকের স্ত্রী’কে ২টি ওয়ান শুটার গান (এলজি), ৭৭ রাউন্ড গুলি এবং ২৪টি গুলির খোসাসহ গ্রেপ্তার করা হয়।

পরে চক্রটির সদস্য বেলাল টেকনাফ এলাকা থেকে পালিয়ে তার নিজ এলাকা মহেশখালী যাওয়ার সময় রামু উপজেলায় বিজিবির মরিচ্যা চেকপোস্টে গ্রেপ্তার করা হয়।

বেলালের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শাপলাপুর এলাকায় সমুদ্র তীরবর্তী ঝাউবাগানের মধ্যে বালির নিচে লুকিয়ে রাখা অবস্থায় ১টি বিদেশী জি থ্রি রাইফেল, ১টি ম্যাগাজিন ও ১৫ রাউন্ড তাজা গুলি উদ্ধার করা হয়। “

পুলিশ সুপার জানান, ডাকাত মোস্তাক একাধিক ডাকাতি, অস্ত্র, মাদক মামলার আসামী এবং তার বিরুদ্ধে ৪টি গ্রেফতারী পরোয়ানা মূলতবী রয়েছে। অস্ত্র ব্যবসায়ী রবি আলমের বিরুদ্ধে ৪ টি মামলা রয়েছে। এব্যাপারে উখিয়া ও টেকনাফ থানায় অস্ত্র আইনে নিয়মিত ২টি মামলা রুজু করা হয়েছে। আসামিদের ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। একই সঙ্গে অস্ত্র ব্যবসায়ী চক্রের অপর আসামীদের গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত রয়েছে।