এমভি আব্দুল্লাহ ও ২৩ নাবিক মুক্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৮:৪৩:০৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪
  • / ২৪ Time View

বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহকে জি‌ম্মি করে মুক্তিপণ নেয়া জলদস্যু দলের ৮ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে সোমালিয়ার পুলিশ। দেশটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় ফেডারেল রাজ্য পুন্টল্যান্ডের পূর্ব উপকূল থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

মুক্তিপণ নিয়ে ২৩ নাবিকসহ বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহকে ছেড়ে দিয়ে তীরে পৌঁছানোর পর জলদস্যুদেরকে গ্রেপ্তারের খবর দিয়েছে সোমালিয়ার স্থানীয় একটি অনলাইন পোর্টাল।

এমভি আব্দুল্লাহ ও এর ২৩ নাবিক / ‘জিম্মিদশা থেকে মুক্ত হতে দস্যুদের দিতে হয়েছে ৫০ লাখ ডলার’

সোমালিয়ার স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল পুন্টল্যান্ডের একজন উচ্চপদস্থ পুলিশ কর্মকর্তার বরাত দিয়ে ‘গারো’ নামের ওই অনলাইনের প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহ জিম্মি করে রাখা আট দস্যুকে গ্রেপ্তার করেছে পুন্টল্যান্ড পুলিশ। তবে তাদের কাছ থেকে মুক্তিপণের টাকা উদ্ধার করা হয়েছে কি না, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

তবে পুন্টল্যান্ড পুলিশ এ বিষয়ে কিছু জানায়নি। এর আগে গত ১৭ মার্চ এমভি আবদুল্লাহ জাহাজ জিম্মির ঘটনায় সন্দেহভাজন দুজনকে গ্রেপ্তার করার কথা জানিয়েছিল পুন্টল্যান্ড পুলিশের ওয়েবসাইটে।

গত ১২ মার্চ ভারত মহাসাগরে জলদস্যুর কবলে পড়ে ২৩ নাবিকসহ বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহ। জলদস্যুরা জাহাজে ‍উঠে নাবিকদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে জাহাজটিকে সোমালিয়ার উপকূলে দস্যুদের নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকায় নিয়ে যেতে বাধ্য করে। একপর্যায়ে সুবিধাজনক স্থানে জাহাজটি নোঙর করায় দস্যুরা। এরপর মুক্তিপণের বিষয়ে দেনদরবার শুরু হয়।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) বাংলাদেশ সময় বিকেল ৪টায় মুক্তিপণের ডলার জলদস্যুদের হাতে পৌঁছালে ২৩ নাবিকসহ জাহাজটি তারা ছেড়ে দেয়। তবে মুক্তিপণ হিসেবে কত ডলার দেয়া হয় তা নিশ্চিত করে কিছুই জানায়নি কবির গ্রুপ।

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

এমভি আব্দুল্লাহ ও ২৩ নাবিক মুক্ত

Update Time : ০৮:৪৩:০৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহকে জি‌ম্মি করে মুক্তিপণ নেয়া জলদস্যু দলের ৮ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে সোমালিয়ার পুলিশ। দেশটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় ফেডারেল রাজ্য পুন্টল্যান্ডের পূর্ব উপকূল থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

মুক্তিপণ নিয়ে ২৩ নাবিকসহ বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহকে ছেড়ে দিয়ে তীরে পৌঁছানোর পর জলদস্যুদেরকে গ্রেপ্তারের খবর দিয়েছে সোমালিয়ার স্থানীয় একটি অনলাইন পোর্টাল।

এমভি আব্দুল্লাহ ও এর ২৩ নাবিক / ‘জিম্মিদশা থেকে মুক্ত হতে দস্যুদের দিতে হয়েছে ৫০ লাখ ডলার’

সোমালিয়ার স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল পুন্টল্যান্ডের একজন উচ্চপদস্থ পুলিশ কর্মকর্তার বরাত দিয়ে ‘গারো’ নামের ওই অনলাইনের প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহ জিম্মি করে রাখা আট দস্যুকে গ্রেপ্তার করেছে পুন্টল্যান্ড পুলিশ। তবে তাদের কাছ থেকে মুক্তিপণের টাকা উদ্ধার করা হয়েছে কি না, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

তবে পুন্টল্যান্ড পুলিশ এ বিষয়ে কিছু জানায়নি। এর আগে গত ১৭ মার্চ এমভি আবদুল্লাহ জাহাজ জিম্মির ঘটনায় সন্দেহভাজন দুজনকে গ্রেপ্তার করার কথা জানিয়েছিল পুন্টল্যান্ড পুলিশের ওয়েবসাইটে।

গত ১২ মার্চ ভারত মহাসাগরে জলদস্যুর কবলে পড়ে ২৩ নাবিকসহ বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহ। জলদস্যুরা জাহাজে ‍উঠে নাবিকদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে জাহাজটিকে সোমালিয়ার উপকূলে দস্যুদের নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকায় নিয়ে যেতে বাধ্য করে। একপর্যায়ে সুবিধাজনক স্থানে জাহাজটি নোঙর করায় দস্যুরা। এরপর মুক্তিপণের বিষয়ে দেনদরবার শুরু হয়।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) বাংলাদেশ সময় বিকেল ৪টায় মুক্তিপণের ডলার জলদস্যুদের হাতে পৌঁছালে ২৩ নাবিকসহ জাহাজটি তারা ছেড়ে দেয়। তবে মুক্তিপণ হিসেবে কত ডলার দেয়া হয় তা নিশ্চিত করে কিছুই জানায়নি কবির গ্রুপ।