ইসলামের খেলাফের জন্য এ দেশ স্বাধীন হয়নি: ফয়জুল করীম

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৫:৫৬:২৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪
  • / 43

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর সিনিয়র নায়েবে আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম শায়খে চরমোনাই বলেছেন, পাকিস্তানে ভোটের মর্যাদা রক্ষা না করার কারণে দেশ যেই দেশ স্বাধীন হলো, সে দেশে আজ ভোটের মর্যাদা কোথায়?

তিনি বলেন, যেই ভোটের মর্যাদা না দেয়ার কারণে আমরা অস্ত্রধারণ করেছি সেই ভোটের গুরুত্ব আজ কোথায়? আমরা বাক শক্তি ও চাকুরী পাওয়ার জন্য কি শ্লোগান দিয়েছিলাম?
ততকালীন সময়ে শ্লোগান দিয়েছিলাম চাল উতপাদন করি আমরা নিয়ে যায় পাকিস্তান। বড় চাকুরী তাদের ছোট চাকুরী আমাদের। তারা ভালো খায় আমরা খারাপ খাই। আমাদের উতপাদন করা চাল তারা কমদামে খায় আমরা খাই বেশী দামে।

(বুধবার ২২ মে) জাতীয় প্রেস ক্লাবের তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া মিলনায়তনে “মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আজকের বাংলাদেশ ” শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ইসলামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পরিষদের সভাপতি শহিদুল ইসলাম কবির এর সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি জেনারেল এবিএম রাকিবুল হাসানের সঞ্চালনায় আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন, সিনিয়র সাংবাদিক মোস্তফা কামাল মজুমদার, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সভাপতি নুরুল বশর আজিজী, ইসলামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পরিষদ এর সেক্রেটারী জেনারেল এ বি এম রাকিবুল হাসান, হকার নেতা মুহাম্মদ ঈমান উদ্দিন, মুফতী মুহাম্মাদ নাঈম বিন আবদুল বারী, হকার সংগ্রাম পরিষদের সহ সভাপতি মোঃ ইমাম হোসেন ভুইয়া, আতাউর রহমান রিয়াজ,মোহাম্মদ নেছার উদ্দীন, আতাউর রহমান, আবু শোয়াইব খান।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর সিনিয়র নায়েবে আমীর বলেন, আজকের দেখছি জনগণের চাকুরী না থাকলেও আওয়ামী লীগের ঠিক চাকুরী আছে। পদন্নতি আওয়ামী লীগের কিন্তু জনগণের পদন্নোতি নেই। আওয়ামী লীগ ভালো খায় সাধারণ মানুষ ভালো খেতে ও পড়তে পারে না। স্বাধীন দেশে সাধারণ মানুষ খুধার তাড়নায় সন্তান বিক্রি করে। তবে এই দেশ কিসের জন্য স্বাধীন হয়েছিল?

মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম বলেন, ভারত বন্ধু হিসেবে নয় নিজেদের স্বার্থ সিদ্ধি করতে এসে স্বাধীনতার পরে তার চেয়ে বেশি অস্ত্র নিয়ে গেছে।

তিনি বলেন, ভারত যদি বন্ধু হয় তবে, মানুষের বুকে কেন বন্ধুক চালিয়ে মানুষ হত্যা করে। তারা কয়দিন আগেও বিজিবি সদস্য কে হত্যা করেছে। তারা ফারাক্কা বাঁধ দেয় কেন? আমাদের দেশকে মরুভূমি করে কেন? খারাপ বীজ বন্ধু দেশকে দেয় কেন? প্রয়োজনে পানি না দিয়ে অপ্রয়োজনে পানি দিয়ে ডুবিয়ে দেয় কেন?

শায়খে চরমোনাই বলেন, আমরা বলি বাংলাদেশ স্বাধীন করেছি আমরা আর ভারত বলে স্বাধীন করেছে তারা। ভারত এখনো অখণ্ড ভারতে বিশ্বাসী। তাদের সেই প্লান চলছে। অখন্ড ভারত করতে এপার বাংলা ওপার বাংলা একত্রিত করার শ্লোগান নিয়ে একত্রিত হচ্ছে। চাটুকার ও পা চাটা গোলামদের নেতৃত্বে যে চক্রান্ত চলছে তা প্রতিরোধে দেশপ্রেমিকদের ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিরোধ করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, আমরা সব দিক দিয়ে স্বাধীনতা চাই। ভোট, বক্তৃতা,চাকুরির স্বাধীনতা চাই। নাগরিক ও মানবাধিকার চাই।

পার্বত্য অঞ্চলের কথা উল্লেখ করে মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম বলেন, পার্বত্য অঞ্চল দেখলে মনে হয় এটা আর একটা দেশ। সেখানে বাঙ্গালীদের পাহাড়ীদেকে চাঁদা দিতে হয়। জমি কিনতে পাহাড়িদের থেকে অনুমতি নিতে হয়। তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন তবে কি পার্বত্য অঞ্চল ভিন্ন কোন রাস্ট্র?

ফয়জুল করীম বলেন, ইসলামের খেলাফের জন্য এ দেশ স্বাধীন হয় নি। শেখ সাহেবের পোস্টারের মধ্যে নারায়ে তাকবীর -আল্লাহু আকবর লেখা ছিলো। তিনি আউজুবিল্লাহ -বিসমিল্লাহ বলে বক্তব্য শুরু করতেন। ৭০ এর নির্বাচনে ইশতেহারে বলা ছিলো শরীয়াহ বিরোধী কোন আইন পাশ হবে না। শেখ সাহেব মদ বন্ধ করেছেন আজকের আওয়ামী লীগ মদ চালু করেছে। তিনি পতিতালয় বন্ধ করেছেন, আওয়ামী লীগ তা চালু করেছে। তিনি সুদ-ঘুষ বন্ধ করেছেন আওয়ামী লীগ তা চালু করেছে। এক কথায় বলতে গেলে আওয়ামী লীগ শেখ সাহেবের আদর্শের উপরে নেই।

দেশের বর্তমান পরিস্থিতি উল্লেখ করে মুফতী ফয়জুল করীম বলেন, ব্যাংক থেকে একের পর এক হাজার হাজার কোটি টাকা চুরি হয়ে যাচ্ছে। ৮টি ব্যাংক দেউলিয়া হয়ে গেছে। প্রায় সকল ব্যাংকগুলি খালি হয়ে যাচ্ছে। দেশের সকল অর্থ কয়েকটি পরিবারের কাছে জমা হয়ে গেছে। এগুলোর দিকে খেয়াল না করে কে রাজাকার আর কে আল বদর এগুলো নিয়ে জনগণের দৃষ্টি অন্যদিকে ধাবিত করা হচ্ছে।

সিনিয়র সাংবাদিক মোস্তফা কামাল মজুমদার বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময়ে লক্ষ ছিলো গণতন্ত্র ও অর্থনৈতিক অধিকার। পার্সেন্টেজ এর কারণে তুরস্কে ২ বার নির্বাচন হয়েছে। ব্রাজিলে ২ বার নির্বাচন হয়েছে। আমাদের দেশে সব ভোট মিলে ৩০ ভাগ ভোট

বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা গণতন্ত্র, ভোটের অধিকার আজ যেন সোনার হরিণ। পুরো দেশটাকে আজ লুটেরারা গিলে খাচ্ছে। বাজার সিন্ডিকেটের মাধ্যমে জনগণের পকেট কাটা হচ্ছে, ব্যাংক গুলো লুট করে টাকা পাচার করছে সরকারি দলের লুটেরা আর অসত আমলারা। অবচ্ছা দৃষ্টে মনে হচ্ছে স্বাধীন বাংলাদেশ আজ লুটেরাদের রাজত্ব চলছে।

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

ইসলামের খেলাফের জন্য এ দেশ স্বাধীন হয়নি: ফয়জুল করীম

Update Time : ০৫:৫৬:২৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর সিনিয়র নায়েবে আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম শায়খে চরমোনাই বলেছেন, পাকিস্তানে ভোটের মর্যাদা রক্ষা না করার কারণে দেশ যেই দেশ স্বাধীন হলো, সে দেশে আজ ভোটের মর্যাদা কোথায়?

তিনি বলেন, যেই ভোটের মর্যাদা না দেয়ার কারণে আমরা অস্ত্রধারণ করেছি সেই ভোটের গুরুত্ব আজ কোথায়? আমরা বাক শক্তি ও চাকুরী পাওয়ার জন্য কি শ্লোগান দিয়েছিলাম?
ততকালীন সময়ে শ্লোগান দিয়েছিলাম চাল উতপাদন করি আমরা নিয়ে যায় পাকিস্তান। বড় চাকুরী তাদের ছোট চাকুরী আমাদের। তারা ভালো খায় আমরা খারাপ খাই। আমাদের উতপাদন করা চাল তারা কমদামে খায় আমরা খাই বেশী দামে।

(বুধবার ২২ মে) জাতীয় প্রেস ক্লাবের তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া মিলনায়তনে “মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আজকের বাংলাদেশ ” শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ইসলামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পরিষদের সভাপতি শহিদুল ইসলাম কবির এর সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি জেনারেল এবিএম রাকিবুল হাসানের সঞ্চালনায় আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন, সিনিয়র সাংবাদিক মোস্তফা কামাল মজুমদার, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সভাপতি নুরুল বশর আজিজী, ইসলামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পরিষদ এর সেক্রেটারী জেনারেল এ বি এম রাকিবুল হাসান, হকার নেতা মুহাম্মদ ঈমান উদ্দিন, মুফতী মুহাম্মাদ নাঈম বিন আবদুল বারী, হকার সংগ্রাম পরিষদের সহ সভাপতি মোঃ ইমাম হোসেন ভুইয়া, আতাউর রহমান রিয়াজ,মোহাম্মদ নেছার উদ্দীন, আতাউর রহমান, আবু শোয়াইব খান।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর সিনিয়র নায়েবে আমীর বলেন, আজকের দেখছি জনগণের চাকুরী না থাকলেও আওয়ামী লীগের ঠিক চাকুরী আছে। পদন্নতি আওয়ামী লীগের কিন্তু জনগণের পদন্নোতি নেই। আওয়ামী লীগ ভালো খায় সাধারণ মানুষ ভালো খেতে ও পড়তে পারে না। স্বাধীন দেশে সাধারণ মানুষ খুধার তাড়নায় সন্তান বিক্রি করে। তবে এই দেশ কিসের জন্য স্বাধীন হয়েছিল?

মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম বলেন, ভারত বন্ধু হিসেবে নয় নিজেদের স্বার্থ সিদ্ধি করতে এসে স্বাধীনতার পরে তার চেয়ে বেশি অস্ত্র নিয়ে গেছে।

তিনি বলেন, ভারত যদি বন্ধু হয় তবে, মানুষের বুকে কেন বন্ধুক চালিয়ে মানুষ হত্যা করে। তারা কয়দিন আগেও বিজিবি সদস্য কে হত্যা করেছে। তারা ফারাক্কা বাঁধ দেয় কেন? আমাদের দেশকে মরুভূমি করে কেন? খারাপ বীজ বন্ধু দেশকে দেয় কেন? প্রয়োজনে পানি না দিয়ে অপ্রয়োজনে পানি দিয়ে ডুবিয়ে দেয় কেন?

শায়খে চরমোনাই বলেন, আমরা বলি বাংলাদেশ স্বাধীন করেছি আমরা আর ভারত বলে স্বাধীন করেছে তারা। ভারত এখনো অখণ্ড ভারতে বিশ্বাসী। তাদের সেই প্লান চলছে। অখন্ড ভারত করতে এপার বাংলা ওপার বাংলা একত্রিত করার শ্লোগান নিয়ে একত্রিত হচ্ছে। চাটুকার ও পা চাটা গোলামদের নেতৃত্বে যে চক্রান্ত চলছে তা প্রতিরোধে দেশপ্রেমিকদের ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিরোধ করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, আমরা সব দিক দিয়ে স্বাধীনতা চাই। ভোট, বক্তৃতা,চাকুরির স্বাধীনতা চাই। নাগরিক ও মানবাধিকার চাই।

পার্বত্য অঞ্চলের কথা উল্লেখ করে মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম বলেন, পার্বত্য অঞ্চল দেখলে মনে হয় এটা আর একটা দেশ। সেখানে বাঙ্গালীদের পাহাড়ীদেকে চাঁদা দিতে হয়। জমি কিনতে পাহাড়িদের থেকে অনুমতি নিতে হয়। তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন তবে কি পার্বত্য অঞ্চল ভিন্ন কোন রাস্ট্র?

ফয়জুল করীম বলেন, ইসলামের খেলাফের জন্য এ দেশ স্বাধীন হয় নি। শেখ সাহেবের পোস্টারের মধ্যে নারায়ে তাকবীর -আল্লাহু আকবর লেখা ছিলো। তিনি আউজুবিল্লাহ -বিসমিল্লাহ বলে বক্তব্য শুরু করতেন। ৭০ এর নির্বাচনে ইশতেহারে বলা ছিলো শরীয়াহ বিরোধী কোন আইন পাশ হবে না। শেখ সাহেব মদ বন্ধ করেছেন আজকের আওয়ামী লীগ মদ চালু করেছে। তিনি পতিতালয় বন্ধ করেছেন, আওয়ামী লীগ তা চালু করেছে। তিনি সুদ-ঘুষ বন্ধ করেছেন আওয়ামী লীগ তা চালু করেছে। এক কথায় বলতে গেলে আওয়ামী লীগ শেখ সাহেবের আদর্শের উপরে নেই।

দেশের বর্তমান পরিস্থিতি উল্লেখ করে মুফতী ফয়জুল করীম বলেন, ব্যাংক থেকে একের পর এক হাজার হাজার কোটি টাকা চুরি হয়ে যাচ্ছে। ৮টি ব্যাংক দেউলিয়া হয়ে গেছে। প্রায় সকল ব্যাংকগুলি খালি হয়ে যাচ্ছে। দেশের সকল অর্থ কয়েকটি পরিবারের কাছে জমা হয়ে গেছে। এগুলোর দিকে খেয়াল না করে কে রাজাকার আর কে আল বদর এগুলো নিয়ে জনগণের দৃষ্টি অন্যদিকে ধাবিত করা হচ্ছে।

সিনিয়র সাংবাদিক মোস্তফা কামাল মজুমদার বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময়ে লক্ষ ছিলো গণতন্ত্র ও অর্থনৈতিক অধিকার। পার্সেন্টেজ এর কারণে তুরস্কে ২ বার নির্বাচন হয়েছে। ব্রাজিলে ২ বার নির্বাচন হয়েছে। আমাদের দেশে সব ভোট মিলে ৩০ ভাগ ভোট

বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা গণতন্ত্র, ভোটের অধিকার আজ যেন সোনার হরিণ। পুরো দেশটাকে আজ লুটেরারা গিলে খাচ্ছে। বাজার সিন্ডিকেটের মাধ্যমে জনগণের পকেট কাটা হচ্ছে, ব্যাংক গুলো লুট করে টাকা পাচার করছে সরকারি দলের লুটেরা আর অসত আমলারা। অবচ্ছা দৃষ্টে মনে হচ্ছে স্বাধীন বাংলাদেশ আজ লুটেরাদের রাজত্ব চলছে।