আ. লীগের বর্ধিত সভা: দিক-নির্দেশনা মেনে চলার কথা বললেন নেতারা

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৭:০১:৪০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ২৬ Time View

বর্ধিত সভায় দলীয় সভাপতির দেয়া দিক র্নিদেশনাগুলো অক্ষরে অক্ষরে পালন করবে তৃণমূল আওয়ামী লীগ। মাঠ পর্যায়ে দলকে আরও শক্তিশালী করতে যার যার অবস্থান থেকে ত্যাগ স্বীকারে ভূমিকা রাখবেন।

শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) গণভবনে ক্ষমতাসীন দলের বর্ধিত সভা শেষে তৃণমূলের নেতারা এ কথা জানান। ৬ষ্ঠ উপজেলা নির্বাচনকে সামনে রেখে দিকনির্দেশনা এবং দলীয় কোন্দল নিরসনের লক্ষ্যে তৃণমূলের নেতাদের আজ গণভবনে ডাকা হয়। সভা শেষ করে দুপুর ১২টার পর গণভবন থেকে বেরিয়ে আসেন কেন্দ্র-তৃণমূলের প্রতিনিধিরা।

এ সময় তারা জানান, উপজেলা নির্বাচনে কোনো ধরনের সংঘাত-সহিংসতা সৃষ্টি করা যাবে না বলে কড়া নির্দেশনা দিয়েছেন দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সহিংসতা করলে নেয়া হবে কঠোর ব্যবস্থা। স্বতন্ত্র এমপিদের সঙ্গে বিভেদ কমানোর নির্দেশও আসে। আওয়ামী লীগ সভাপতির বক্তব্যে সব স্তরের নেতারা উজ্জ্বীবিত।

আওয়ামী লীগ দলীয় চাঁদপুরের সংসদ সদস্য ড. সেলিম মাহমুদ বলেন, আমরা অনেক উজ্জীবিত। আমাদের নেত্রী দেশের সকল সকল নেতাকর্মীদের যে নির্দেশনা দিয়েছেন, তাতে সবাই উজ্জীবিত।

স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য মোহাম্মদ মঈন উদ্দিন মঈন বলেন, আমরা ছাত্ররাজনীতি করেছি। আমরা শেখ হাসিনার কর্মী। স্বাধীনতার সুফল ঘরে ঘরে পৌঁছে দিতে তিনি নির্দেশ দিয়েছেন।

স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগ নেতা এ কে আজাদ বলেন, নেত্রী স্পষ্টভাবে বলেছেন, নৌকার জোয়ার থাকা সত্ত্বেও যারা বিজয়ী হতে পারেননি, তাদের অন্যকে দোষ দিয়ে লাভ নেই। একত্রে কাজ করতে বলেছেন।

একই কথা বললেন নৌকা নিয়ে এমপি হওয়া আ স ম ফিরোজও। আরও বলেন, উপজেলা নির্বাচনে ঐক্যবদ্ধ কাজ করতে বলেছেন।

আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য সাইফুজ্জমান শিখর বলেন, আমাদের প্রতি মূল নির্দেশনা হলো জনগণের জন্য কাজ করা এবং ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করা।

দলটির জেলা ও উপজেলার নেতারা জানান, কেন্দ্রের নির্দেশনাকে সামনে রেখেই এগিয়ে যাবে তৃণমূল।

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

আ. লীগের বর্ধিত সভা: দিক-নির্দেশনা মেনে চলার কথা বললেন নেতারা

Update Time : ০৭:০১:৪০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

বর্ধিত সভায় দলীয় সভাপতির দেয়া দিক র্নিদেশনাগুলো অক্ষরে অক্ষরে পালন করবে তৃণমূল আওয়ামী লীগ। মাঠ পর্যায়ে দলকে আরও শক্তিশালী করতে যার যার অবস্থান থেকে ত্যাগ স্বীকারে ভূমিকা রাখবেন।

শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) গণভবনে ক্ষমতাসীন দলের বর্ধিত সভা শেষে তৃণমূলের নেতারা এ কথা জানান। ৬ষ্ঠ উপজেলা নির্বাচনকে সামনে রেখে দিকনির্দেশনা এবং দলীয় কোন্দল নিরসনের লক্ষ্যে তৃণমূলের নেতাদের আজ গণভবনে ডাকা হয়। সভা শেষ করে দুপুর ১২টার পর গণভবন থেকে বেরিয়ে আসেন কেন্দ্র-তৃণমূলের প্রতিনিধিরা।

এ সময় তারা জানান, উপজেলা নির্বাচনে কোনো ধরনের সংঘাত-সহিংসতা সৃষ্টি করা যাবে না বলে কড়া নির্দেশনা দিয়েছেন দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সহিংসতা করলে নেয়া হবে কঠোর ব্যবস্থা। স্বতন্ত্র এমপিদের সঙ্গে বিভেদ কমানোর নির্দেশও আসে। আওয়ামী লীগ সভাপতির বক্তব্যে সব স্তরের নেতারা উজ্জ্বীবিত।

আওয়ামী লীগ দলীয় চাঁদপুরের সংসদ সদস্য ড. সেলিম মাহমুদ বলেন, আমরা অনেক উজ্জীবিত। আমাদের নেত্রী দেশের সকল সকল নেতাকর্মীদের যে নির্দেশনা দিয়েছেন, তাতে সবাই উজ্জীবিত।

স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য মোহাম্মদ মঈন উদ্দিন মঈন বলেন, আমরা ছাত্ররাজনীতি করেছি। আমরা শেখ হাসিনার কর্মী। স্বাধীনতার সুফল ঘরে ঘরে পৌঁছে দিতে তিনি নির্দেশ দিয়েছেন।

স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগ নেতা এ কে আজাদ বলেন, নেত্রী স্পষ্টভাবে বলেছেন, নৌকার জোয়ার থাকা সত্ত্বেও যারা বিজয়ী হতে পারেননি, তাদের অন্যকে দোষ দিয়ে লাভ নেই। একত্রে কাজ করতে বলেছেন।

একই কথা বললেন নৌকা নিয়ে এমপি হওয়া আ স ম ফিরোজও। আরও বলেন, উপজেলা নির্বাচনে ঐক্যবদ্ধ কাজ করতে বলেছেন।

আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য সাইফুজ্জমান শিখর বলেন, আমাদের প্রতি মূল নির্দেশনা হলো জনগণের জন্য কাজ করা এবং ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করা।

দলটির জেলা ও উপজেলার নেতারা জানান, কেন্দ্রের নির্দেশনাকে সামনে রেখেই এগিয়ে যাবে তৃণমূল।