আপনি কেন প্রেম করবেন

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০৮:৩৯:০৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২২
  • / ৬৪৮ Time View

মুজাহিদ:

প্রেম ভালবাসা হল পৃথিবীতে মানুষ ও অন্য সকল প্রাণীর হাজার বছর বেঁচে থাকার এক মাত্র মাধ্যম। যদি এই পৃথিবীতে অবস্থানকারী প্রাণীকুলের মধ্যে প্রেম ভালবাসা না থাকতো তাহলে এই সুন্দর পৃথিবী এক মুহুর্তের জন্যও টিকে থাকতো না। তাই প্রেম এই সুন্দর, শান্তি ও সৌহার্দপূর্ণ পৃথিবী সৃষ্টির এক এবং এক মাত্র মাধ্যম।

প্রেম কি:

প্রেম ভালবাসা হল একটি আবেগ, অনুভুতি আর পছন্দের একটি স্বাভাবিক বিষয়। যা মানুষের মনে অগোচরেই সৃষ্টি হয়। আবার অনেক প্রেম এক সাথে পথ চলতে, একত্রে অবস্থান করতে করতেই সৃষ্টি হয়।

প্রেম পুরোপুরি মানসিক বিষয়। এটি মানুষের মনে তৈরি হয়। আপনি ইচ্ছা করলেই কারো প্রেমে পড়তে পারবেন না, যদি আপনার মন সেটিকে মেনে না নেয়। প্রেম এমন একটি শক্তি যা আপনার সবকিছুকেই নিয়ন্ত্রণে নিয়ে যাবে। আর তখন আপনার মনের নির্দেশনা আপনি শুনতে বাধ্য হয়ে যাবেন। এটি আপনাকে বিষ্মিত করে দেবে। প্রেম কখন যে হয়ে যাবে আপনি তা বুঝতেও পারবেন না। কারণ এটি মনস্তাত্ত্বিক একটি বিষয়। যেটা সবার অজান্তে হয়।

ব্যাকরণিক দিক থেকে যদি প্রেমকে বিশ্লেষণ করি তাহলে দেখা যায়, প্রেম হল একটি বিশেষ্য শব্দ, এর অনেক সমার্থক শব্দ আছে যেমন, প্রেম (বিশেষ্য)= প্রণয়/প্রেম /অনুরাগ /প্রীতি/সদ্ভাব/বন্ধুত্ব/স্নেহ/শ্রদ্ধা/ভক্তি/ আসক্তি/আকর্ষণ /টান /পছন্দ ইত্যাদি।

আবার যদি ভালবাসার কথা বলি তাহলে দেখা যায়, প্রেম এবং ভালবাসা কিন্তু একই অর্থে ব্যবহৃত হয় কিন্তু বাংলা ব্যাকরণ অনুসারে যদি বলি তাহলে দেখা যায় ‘ভালবাসা’ দুটা প্রয়োগ রয়েছে। একটি হল ক্রিয়া হিসাবে অন্যটি বিশেষ্য হিসাবে ব্যবহৃত৷ এবং এরও সমার্থক শব্দ রয়েছে যেটা কিন্তু আবার প্রেমেরই অর্থ বহন করে

যেমন:
বাংলা ব্যকরণে ভালবাসা,
১. ভালবাসা (ক্রিয়া)
২. ভালবাসা (বিশেষ্য)
ভালবাসা (ক্রিয়া) = প্রণয়যুক্ত বা প্রেমযুক্ত হওয়া / প্রীতিভাবাপন্ন হওয়া / স্নেহ করা / শ্রদ্ধা করা / ভক্তি করা / আসক্ত হওয়া বা আকৃষ্ট হওয়া / পছন্দ করা ।

ভালবাসা (বিশেষ্য) = প্রণয় / প্রেম / অনুরাগ / প্রীতি / সদ্ভাব / বন্ধুত্ব / স্নেহ / শ্রদ্ধা / ভক্তি / আসক্তি / আকর্ষণ / টান / পছন্দ ।

সব ব্যকরণ ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ বাদ দিয়ে যদি মোটকথায় প্রেমের সংঙ্গা যদি বলি তাহলে দেখা যায় “প্রেম হল অন্য কোন ব্যক্তির প্রতি কোন ভালোবাসার অনুভূতি, বা কোন দৃঢ় আকর্ষণ, এবং এসকল বিষয়ের ফলে সৃষ্ট আবেগ-অনুভূতি প্রকাশের উদ্দেশ্যে কোন ব্যক্তি কর্তৃক বিয়ের নিমিত্তে বিবাহপূর্ব সম্পর্ক গঠনকারী আচরণাবলি প্রকাশের পদক্ষেপ গ্রহণ করা।”

প্রেম কেন করবেন:
প্রেম যেহেতু পৃথিবীর সবথেকে সুন্দর তম অনুভূতির মধ্যে অন্যতম এবং প্রেম যেহেতু সুন্দর পৃথিবী বাঁচিয়ে রাখার জন্য মানুষের মধ্যে শান্তি, সম্প্রতি ও সৌহার্দপূর্ণ বন্ধন সৃষ্টির একমাত্র মাধ্যম সেহেতু প্রেম গুরুত্বপূর্ণ একটা বিষয়। এছাড়াও প্রেম করার আরো অনেক বৈজ্ঞানিক কারণও রয়েছে যেমন:-

১। প্রেমে পরলে মানুষের মন ও শরীর শান্ত হয়। এতে নতুন ব্রেইন সেল তৈরি হয়, ফলে স্মৃতি শক্তি বৃদ্ধি পায়।

২। অনেক ক্ষেত্রে ভালোবাসার মানুষের সাথে কথা বলার সময় হার্টবিট বেড়ে যায়, যার ফলে সারা শরীরে রক্ত চলাচল বেড়ে যায়।

৩। যারা ভালোবাসতে জানেনা তাদের মনে ক্রোদের জন্ম নেয়, যা শরীরের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর।

৪। প্রেমিক – প্রেমিকা যারা একসাথে বসে প্রেমের কথা বলে তাদের শরীরে একপ্রকার অক্রিটক্সিন নামক উচ্চমাত্রার হরমোন নিঃসৃত হয়, যার ফলে শরীরের ব্লাড প্রেসার কমে যায়।

৫। যারা ভালোবাসে না তারা একাকিত্বে ভোগে, যার ফলে অকাল মৃত্যুর আশংকা পাঁচ গুন বেড়ে যায়।

৬। প্রেমের কারনে দুঃচিন্তা কমে যায়, আয়ু বেড়ে যায়। মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতি হয় এবং হতাশা দুর হয়।

৭। যারা প্রেমে পড়ে বা প্রেমের কথা শোনে বা লেখে তাদের শরীরের কোলেস্টেরলের মাত্রা কমতে থাকে।

৮। ভালোবাসলে শরীরে এন্ডোরফিন নামক একপ্রকার হরমোন তৈরী হয়, যা শরীরের চামড়া মসৃন ও নরম রাখে এবং মুখে আভার সৃস্টি হয়।

৯। নিঃস্বার্থ ভাবে ভালোবাসলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়।

সর্বোপরি প্রেম হল উত্তেজনাপূর্ণ এবং রহস্যময় এক অনুভূতি। এটি হল কোন ব্যক্তির প্রতি আকর্ষণের সাথে সম্পর্কিত কোন আবেগীয় আকর্ষণ হতে উদ্বুদ্ধ একটি বহিঃপ্রকাশমূলক ও আনন্দঘন অনুভূতি। যা তাকে এবং সেই ব্যক্তিকে সতেজ এবং সচল রাখতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। তাই পরিশেষে এটাই বলবো যে, আসুন সকলে ভালবাসি সুন্দর পৃথিবী গড়ি, সকলে সকলের সাথে প্রেমের প্রনয় গড়ি পৃথিবীকে সমৃদ্ধি করি।

Please Share This Post in Your Social Media

আপনি কেন প্রেম করবেন

Update Time : ০৮:৩৯:০৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২২

মুজাহিদ:

প্রেম ভালবাসা হল পৃথিবীতে মানুষ ও অন্য সকল প্রাণীর হাজার বছর বেঁচে থাকার এক মাত্র মাধ্যম। যদি এই পৃথিবীতে অবস্থানকারী প্রাণীকুলের মধ্যে প্রেম ভালবাসা না থাকতো তাহলে এই সুন্দর পৃথিবী এক মুহুর্তের জন্যও টিকে থাকতো না। তাই প্রেম এই সুন্দর, শান্তি ও সৌহার্দপূর্ণ পৃথিবী সৃষ্টির এক এবং এক মাত্র মাধ্যম।

প্রেম কি:

প্রেম ভালবাসা হল একটি আবেগ, অনুভুতি আর পছন্দের একটি স্বাভাবিক বিষয়। যা মানুষের মনে অগোচরেই সৃষ্টি হয়। আবার অনেক প্রেম এক সাথে পথ চলতে, একত্রে অবস্থান করতে করতেই সৃষ্টি হয়।

প্রেম পুরোপুরি মানসিক বিষয়। এটি মানুষের মনে তৈরি হয়। আপনি ইচ্ছা করলেই কারো প্রেমে পড়তে পারবেন না, যদি আপনার মন সেটিকে মেনে না নেয়। প্রেম এমন একটি শক্তি যা আপনার সবকিছুকেই নিয়ন্ত্রণে নিয়ে যাবে। আর তখন আপনার মনের নির্দেশনা আপনি শুনতে বাধ্য হয়ে যাবেন। এটি আপনাকে বিষ্মিত করে দেবে। প্রেম কখন যে হয়ে যাবে আপনি তা বুঝতেও পারবেন না। কারণ এটি মনস্তাত্ত্বিক একটি বিষয়। যেটা সবার অজান্তে হয়।

ব্যাকরণিক দিক থেকে যদি প্রেমকে বিশ্লেষণ করি তাহলে দেখা যায়, প্রেম হল একটি বিশেষ্য শব্দ, এর অনেক সমার্থক শব্দ আছে যেমন, প্রেম (বিশেষ্য)= প্রণয়/প্রেম /অনুরাগ /প্রীতি/সদ্ভাব/বন্ধুত্ব/স্নেহ/শ্রদ্ধা/ভক্তি/ আসক্তি/আকর্ষণ /টান /পছন্দ ইত্যাদি।

আবার যদি ভালবাসার কথা বলি তাহলে দেখা যায়, প্রেম এবং ভালবাসা কিন্তু একই অর্থে ব্যবহৃত হয় কিন্তু বাংলা ব্যাকরণ অনুসারে যদি বলি তাহলে দেখা যায় ‘ভালবাসা’ দুটা প্রয়োগ রয়েছে। একটি হল ক্রিয়া হিসাবে অন্যটি বিশেষ্য হিসাবে ব্যবহৃত৷ এবং এরও সমার্থক শব্দ রয়েছে যেটা কিন্তু আবার প্রেমেরই অর্থ বহন করে

যেমন:
বাংলা ব্যকরণে ভালবাসা,
১. ভালবাসা (ক্রিয়া)
২. ভালবাসা (বিশেষ্য)
ভালবাসা (ক্রিয়া) = প্রণয়যুক্ত বা প্রেমযুক্ত হওয়া / প্রীতিভাবাপন্ন হওয়া / স্নেহ করা / শ্রদ্ধা করা / ভক্তি করা / আসক্ত হওয়া বা আকৃষ্ট হওয়া / পছন্দ করা ।

ভালবাসা (বিশেষ্য) = প্রণয় / প্রেম / অনুরাগ / প্রীতি / সদ্ভাব / বন্ধুত্ব / স্নেহ / শ্রদ্ধা / ভক্তি / আসক্তি / আকর্ষণ / টান / পছন্দ ।

সব ব্যকরণ ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ বাদ দিয়ে যদি মোটকথায় প্রেমের সংঙ্গা যদি বলি তাহলে দেখা যায় “প্রেম হল অন্য কোন ব্যক্তির প্রতি কোন ভালোবাসার অনুভূতি, বা কোন দৃঢ় আকর্ষণ, এবং এসকল বিষয়ের ফলে সৃষ্ট আবেগ-অনুভূতি প্রকাশের উদ্দেশ্যে কোন ব্যক্তি কর্তৃক বিয়ের নিমিত্তে বিবাহপূর্ব সম্পর্ক গঠনকারী আচরণাবলি প্রকাশের পদক্ষেপ গ্রহণ করা।”

প্রেম কেন করবেন:
প্রেম যেহেতু পৃথিবীর সবথেকে সুন্দর তম অনুভূতির মধ্যে অন্যতম এবং প্রেম যেহেতু সুন্দর পৃথিবী বাঁচিয়ে রাখার জন্য মানুষের মধ্যে শান্তি, সম্প্রতি ও সৌহার্দপূর্ণ বন্ধন সৃষ্টির একমাত্র মাধ্যম সেহেতু প্রেম গুরুত্বপূর্ণ একটা বিষয়। এছাড়াও প্রেম করার আরো অনেক বৈজ্ঞানিক কারণও রয়েছে যেমন:-

১। প্রেমে পরলে মানুষের মন ও শরীর শান্ত হয়। এতে নতুন ব্রেইন সেল তৈরি হয়, ফলে স্মৃতি শক্তি বৃদ্ধি পায়।

২। অনেক ক্ষেত্রে ভালোবাসার মানুষের সাথে কথা বলার সময় হার্টবিট বেড়ে যায়, যার ফলে সারা শরীরে রক্ত চলাচল বেড়ে যায়।

৩। যারা ভালোবাসতে জানেনা তাদের মনে ক্রোদের জন্ম নেয়, যা শরীরের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর।

৪। প্রেমিক – প্রেমিকা যারা একসাথে বসে প্রেমের কথা বলে তাদের শরীরে একপ্রকার অক্রিটক্সিন নামক উচ্চমাত্রার হরমোন নিঃসৃত হয়, যার ফলে শরীরের ব্লাড প্রেসার কমে যায়।

৫। যারা ভালোবাসে না তারা একাকিত্বে ভোগে, যার ফলে অকাল মৃত্যুর আশংকা পাঁচ গুন বেড়ে যায়।

৬। প্রেমের কারনে দুঃচিন্তা কমে যায়, আয়ু বেড়ে যায়। মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতি হয় এবং হতাশা দুর হয়।

৭। যারা প্রেমে পড়ে বা প্রেমের কথা শোনে বা লেখে তাদের শরীরের কোলেস্টেরলের মাত্রা কমতে থাকে।

৮। ভালোবাসলে শরীরে এন্ডোরফিন নামক একপ্রকার হরমোন তৈরী হয়, যা শরীরের চামড়া মসৃন ও নরম রাখে এবং মুখে আভার সৃস্টি হয়।

৯। নিঃস্বার্থ ভাবে ভালোবাসলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়।

সর্বোপরি প্রেম হল উত্তেজনাপূর্ণ এবং রহস্যময় এক অনুভূতি। এটি হল কোন ব্যক্তির প্রতি আকর্ষণের সাথে সম্পর্কিত কোন আবেগীয় আকর্ষণ হতে উদ্বুদ্ধ একটি বহিঃপ্রকাশমূলক ও আনন্দঘন অনুভূতি। যা তাকে এবং সেই ব্যক্তিকে সতেজ এবং সচল রাখতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। তাই পরিশেষে এটাই বলবো যে, আসুন সকলে ভালবাসি সুন্দর পৃথিবী গড়ি, সকলে সকলের সাথে প্রেমের প্রনয় গড়ি পৃথিবীকে সমৃদ্ধি করি।