অবৈধভাবে মাটি কাটায় কারাগারে সাবেক সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত সার্জেন্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • Update Time : ০২:২৪:২৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪
  • / ১০৯ Time View

এনামুল হক, সুন্দরগঞ্জ(গাইবান্ধা)প্রতিনিধি:
গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে ফসলি জমি ধ্বংস করে মাটি উত্তোলন ও বিক্রির অপরাধে সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত সার্জেন্ট মতিউর রহমান (৬৫) নামের এক ব্যক্তিকে ৩০ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

শনিবার (২ মার্চ) দুপুরে উপজেলার সর্বানন্দ ইউনিয়নের তালুক সর্বানন্দ ধনিয়ারকুড়া গ্রামে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

মতিউর রহমান ওই গ্রামের মৃত আহমাদ হোসেনের ছেলে। তিনি সেনাবাহিনীর সার্জেন্ট ছিলেন।

আদালত সূত্র জানায়, মতিউর রহমান ফসলি জমির মাটি কেটে বিক্রি করে আসছেন। এতে জমির ক্ষতির পাশাপাশি প্রতিবেশীর ফসলি জমির ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে। বিষয়টি জানতে পেরে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. তরিকুল ইসলাম। ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় জমির মালিক মতিউর রহমানকে ৩০ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ডাদেশ প্রদান করেন তিনি।

সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তরিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে মাটি উত্তোলন করায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে বালু মহাল ও মাটি ব্যবস্থা আইন-২০১০ এর ১৫ ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে ৩০ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় কৃষিজমি রক্ষায় অবৈধভাবে মাটি কাটা বন্ধে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়। উপজেলায় অবৈধভাবে মাটি কাটা বন্ধে এমন অভিযান অব্যাহত থাকবে।

Tag :

Please Share This Post in Your Social Media

অবৈধভাবে মাটি কাটায় কারাগারে সাবেক সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত সার্জেন্ট

Update Time : ০২:২৪:২৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪

এনামুল হক, সুন্দরগঞ্জ(গাইবান্ধা)প্রতিনিধি:
গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে ফসলি জমি ধ্বংস করে মাটি উত্তোলন ও বিক্রির অপরাধে সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত সার্জেন্ট মতিউর রহমান (৬৫) নামের এক ব্যক্তিকে ৩০ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

শনিবার (২ মার্চ) দুপুরে উপজেলার সর্বানন্দ ইউনিয়নের তালুক সর্বানন্দ ধনিয়ারকুড়া গ্রামে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

মতিউর রহমান ওই গ্রামের মৃত আহমাদ হোসেনের ছেলে। তিনি সেনাবাহিনীর সার্জেন্ট ছিলেন।

আদালত সূত্র জানায়, মতিউর রহমান ফসলি জমির মাটি কেটে বিক্রি করে আসছেন। এতে জমির ক্ষতির পাশাপাশি প্রতিবেশীর ফসলি জমির ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে। বিষয়টি জানতে পেরে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. তরিকুল ইসলাম। ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় জমির মালিক মতিউর রহমানকে ৩০ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ডাদেশ প্রদান করেন তিনি।

সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তরিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে মাটি উত্তোলন করায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে বালু মহাল ও মাটি ব্যবস্থা আইন-২০১০ এর ১৫ ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে ৩০ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় কৃষিজমি রক্ষায় অবৈধভাবে মাটি কাটা বন্ধে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়। উপজেলায় অবৈধভাবে মাটি কাটা বন্ধে এমন অভিযান অব্যাহত থাকবে।